২৪টি কোম্পানি দ্বিতীয় প্রান্তিক প্রকাশ

0
1829

স্টাফ রিপোর্টার : ২৪টি কোম্পানি দ্বিতীয় প্রান্তিকের (অক্টোবর-ডিসেম্বর’১৯) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানি সূত্রে জানা তথ্য নিচে:

কাশেম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২৫ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৯ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৩ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল  ৪৫ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৩১ টাকা ১৪ পয়সা।

ইন্দো-বাংলা ফার্মা : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৪৫ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৩৪ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮৫ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৬৪ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৫ পয়সা।

জেএমআই সিরিঞ্জ অ্যান্ড মেডিকেল ডিভাইসেস লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১ টাকা ৩৬ পয়সা ও  আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ১ টাকা ৭৪ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৫৯ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৭৪ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১১৬ টাকা ০৯ পয়সা।

সিভিও পেট্রো কেমিক্যাল রিফাইনারি লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৫১ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে ছিল ২ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪০ পয়সা ও আগের বছর একই সময় আয় ছিল ৪ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৪ টাকা ১ পয়সা।

ইন্ট্রােকো : কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২৬ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৩৫ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪০ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৪৬ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ১৩ পয়সা।

বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেড : কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮৮ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ১ টাকা ৩২ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৪২ টাকা ৯৮ পয়সা।

ইমাম বাটন : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২৪ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে ছিল ১৫ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২৮ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ২২ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৫ টাকা ৪ পয়সা।

কনফিডেন্স সিমেন্ট লিমিটেড : কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২ টাকা ৭৯ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে একক আয় ছিল ১ টাকা ৭ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ টাকা ১২ পয়সা ও আগের বছর একই সময় একক আয় ছিল ২ টাকা ৫৮ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৭১ টাকা ৩০ পয়সা।

নাভানা সিএনজি লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি কনসুলেটেড আয় হয়েছে ২৫ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৪৩ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি কনসুলেটেড আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৮ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৮৩ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৩৫ টাকা ৩৬ পয়সা।

বিডি অটোকার্স লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৭৪ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৬৪ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৭ টাকা ১৮ পয়সা।

অ্যাডভেন্ট ফার্মাসিটিক্যাল : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৫২ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৫৭ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১৫ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ১ টাকা ৭ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ২৪ পয়সা।

নর্দার্ণ জুট অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানি লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২ টাকা ৯৪ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৯ টাকা ০৬ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১০ টাকা ১০ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ১১ টাকা ০৯ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১০০ টাকা ৪৩ পয়সা।

ওয়াটা কেমিক্যালস লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৩ টাকা ৩১ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ২ টাকা ২৮ পয়সা (রিস্টেটেড)।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬ টাকা ৬০ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৪ টাকা ৪৫ পয়সা (রিস্টেটেড)। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৫৭ টাকা ৬৩ পয়সা।

বিডিকম : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১৪ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৫৬ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪০ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৮৯ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৬ টাকা ৪১ পয়সা।

ফু-ওয়াং সিরামিক : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২২ পয়সা (এডজাস্টেড) ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৩০ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১১ টাকা ৩৭ পয়সা।

দেশবন্ধু পলিমার : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৩ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ১২ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ১৫ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১০ টাকা ৭৭ পয়সা।

আফতাব অটোমোবাইলস লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১৭ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৪৭ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৮ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ১ টাকা ০১ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৬০ টাকা ৮১ পয়সা।

স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৫০ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৪৩ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪ টাকা ৬০ পয়সা ও আগের বছর একই সময় আয় ছিল ৮০ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১১ টাকা ২৭ পয়সা।

স্যালভো কেমিক্যাল লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১০ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ০৮ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৪ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ২৬  পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ৩৯ পয়সা।

বিডি থাই অ্যালুমিনিয়াম লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৫ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ১৩ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১০ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৩৩ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ২৭ টাকা ৪৮  পয়সা।

বারাকা পাওয়ার লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৬৭ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৩৬ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৩৫ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৯৭ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৮ টাকা ৭৭ পয়সা।

ফার কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১৮ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ২৯ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৬ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৬২  পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৯৯ পয়সা।

ড্যাফোডিল কম্পিউটার্স লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৩১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৪৩ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮০ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৮৪ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৪ টাকা ৬৪ পয়সা।

ফরচুন সুজ লিমিটেড : কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২৮ পয়সা ও আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৪৫ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ০৯ পয়সা ও আগের বছর একই সময় ছিল ৯৬ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৯২ পয়সা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here