সোনারগাঁ টেক্সটাইলের উৎপাদনে ফেরা নিয়ে আশঙ্কা

0
149
বরিশালে সোনারগাঁও টেক্সটাইল চালু ও বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে গত বছরের ১৬ নভেম্বর শ্রমিকরা মিলগেটে অবস্থান ও মহাসড়ক অবরোধ

সিনিয়র রিপোর্টার : সোনারগাঁ টেক্সটাইল লিমিটেড ধুকে ধুকে শুধু টিকে আছে। বিপুল পরিমাণ ঋণের বোঝা নিয়ে এখনো উৎপাদনে ফিরতে পারেনি। চলতি বছরে কোম্পানির উৎপাদনে ফেরার আভাস থাকলেও তা হয়তো আর সম্ভব হবে না।

কারণ, কোম্পানির প্রায় ১৫০ কোটি টাকা ঋণ পরিশোধ এবং দুই তৃতীয়াংশ মেশিনারিজের কলকব্জা পরিবর্তন করতে হবে।

বর্তমানে কোম্পানির গুদামসহ অন্যান্য সুবিধাগুলো ভাড়া দিয়ে যে আয় আসছে তা দিয়েই চলছে কিছু সংখ্যক কর্মচারীর বেতন। তাছাড়া কোম্পানির চেয়ারম্যানের বয়স হওয়ায় তিনি আর নতুন করে দায় নিতে চান না।

কোম্পানির শীর্ষ পর্যায়ের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সম্প্রতি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, উৎপাদনে ফেরা হয়ত আর সম্ভব হবে না। কোম্পানির দায় বহনের ক্ষমতা এবং চেয়ারম্যানের শরীর সাপোর্ট করছে না।

বরিশালে সোনারগাঁও টেক্সটাইল চালু ও বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে গত বছরের ১৬ নভেম্বর শ্রমিকরা মিলগেটে অবস্থান ও মহাসড়ক অবরোধ করলেও এখনো ব্যবস্থা নেয়নি কোম্পানির কর্তৃপক্ষ। যে কারণে সম্ভাবনার বদলে আশঙ্কা আরো বাড়ছে।

খান সন্স গ্রুপের স্পিনিং মিলস রয়েছে ৩টি। সোনারগাঁও টেক্সটাইল, মাদারীপুর টেক্সটাইল এবং খান সন্স টেক্সটাইল। এর মধ্যে সোনারগাঁও, মাদারীপুর টেক্সটাইলস দুটোই বিদ্যুৎভিত্তিক পরিচালিত। খান সন্স অটোমোবাইলস নামেও একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

তবে সোনার গাঁও টেক্সটাইলের জমি পারমাণ ১০ একর। যা ভাড়া দিয়ে চলছে কর্মচারদের বেতন ও ভাতা। করোনা পরিস্থিতিতে গত বছরের জুন মাসে কারখানা বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে সোনারগাঁও টেক্সটাইল লিমিটেড।

২০১৮-২০১৯ সমাপ্ত হিসাব বছরে ৩ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। তবে চলতি বছরে সম্ভাবনা অনেক ক্ষীণ।

২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৯৩ পয়সা এবং কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ২৯ টাকা ৪৪ পয়সা।

পেছনের খবর দেখুন-

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here