সিঅ্যান্ডএর শুরু থেকেই জালিয়াতি

0
1118

সিনিয়র রিপোর্টার : ২০১৫ সালে পুঁজিবাজার থেকে ৪৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল লিমিটেড। একই সালের ২১ জানুয়ারি দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে শেয়ার লেনদেন শুরু করে। তবে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির আগে থেকেই সিঅ্যান্ডএর জালিয়াতি শুরু হয়। শেয়ার লেনদেন শুরু হলে তা প্রকাশ পায়, যদিও নিয়ন্ত্রক সংস্থা এখনো কোন ব্যবস্থা না নিলেও মামলার প্রস্তুতি চলছে।

২০০১ সালে মাত্র পাঁচ লাখ টাকা মূলধনের কোম্পানি ছিল সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল। এরপর ২০১৩ সালের ২৫ নভেম্বরে ৯ লাখ ৯২ হাজার নতুন শেয়ার ইস্যু ও প্রাক-আইপিও প্লেসমেন্টের মাধ্যমে মূলধন বাড়ানো হয় ৯ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

মাত্র এক মাসের ব্যবধানে একই বছরের ৩০ ডিসেম্বর আবারও নতুন শেয়ার ছেড়ে ১২০ কোটি টাকার বেশি মূলধন বাড়ানো হয়। এরপর বিএসইসির কাছে কোম্পানিটির আইপিও আবেদন জমা দেয়া হয়।

অর্থাৎ আইপিও আবেদনের আগের দুই মাসে পাঁচ লাখ টাকার কোম্পানিটি হয়ে যায় ১৩০ কোটি টাকা মূলধনের কোম্পানি। আইপিওর ৪৫ কোটি টাকা যোগ হওয়ার পর সেটি হয়ে যায় ১৭৫ কোটি টাকা মূলধনের কোম্পানি।

তালিকাভুক্তির পর তিন বছরে যথাক্রমে ১১, ১২ ও ১০ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিয়ে কোম্পানির মূলধন দাঁড়ায় ২৩৯ কোটি ৩১ লাখ টাকা।

সিঅ্যান্ডএর আরও অনিয়মের খবর সে সময় আগে গণমাধ্যমে। আইপিও আবেদনে মিথ্যা তথ্য দেয়ার সুনির্দিষ্ট তথ্য নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদনও হয়। তবে এম খায়রুল হোসেনের নেতৃত্বাধীন কমিশন এসব অভিযোগ বিবেচনায় আনেনি।

শেয়ার লেনদেন শুরুর ২৭ মাস পর অর্থাৎ ২০১৭ সালের ১ মে হঠাৎ উৎপাদন বন্ধ করে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপভিত্তিক তৈরি পোশাক ক্রেতাদের সংগঠন অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্সের চাহিদা অনুযায়ী কোম্পানির কারখানা সংস্কার করার কথা বলে উৎপাদন বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ। এরপর প্রায় চার বছরেও আর উৎপাদনে ফেরেনি কোম্পানিটি।

ঘটনার পরে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি কারখানা পরিদর্শনে যায়। তবে কর্তৃপক্ষ কারখানায় ঢুকতে পারেনি বলে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনকে (বিএসইসি) লিখিত জানায়।

তালিকাভুক্তির প্রথম দিনেই সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলের ১০ টাকার প্রতিটি শেয়ারের দাম এক লাফে ১২০ শতাংশ বেড়ে ২২ টাকায় উন্নীত হয়েছিল।

২০১৬ সালের ৩০ জুন কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে শেয়ার ছিল ৩০.২৯ শতাংশ। পরে এক-চতুর্থাংশ বিক্রি করেন দেন তারা। এখন পরিচালকদের শেয়ার সংখ্যা ২২.১৪ শতাংশ।

গত জুলাইয়ে কোম্পানিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক রুখসানা মোর্শেদ, পরিচালক শারমিন আকতার ও প্রাতিষ্ঠানিক পরিচালক বাংলাদেশ শু ইন্ডাস্ট্রিজকে ১৪ কোটি টাকা জরিমানা করেছিল বিএসইসি। আইন লঙ্ঘন করে কোনো ঘোষণা ছাড়া তাদের হাতে থাকা বিপুল শেয়ার বিক্রি করে দিয়ে ১২ কোটি টাকার বেশি মুনাফা করায় এ জরিমানা করা হয়। তবে সে টাকা পরিশোধ করেননি তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here