সাবমেরিন ক্যাবলসের আগামী বছরে হবে ১৬০০ জিবিপিএস ক্যাপাসিটি

0
431

সিনিয়র রিপোর্টার : দেশের অনেক প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় সম্প্রতি এসএমডাবলু-৬ সাবমেরিন ক্যাবল চালুর আগে বাংলাদেশে সাবমেরিন ক্যাবল ব্যান্ডউইডথ ক্যাপাসিটির ঘাটতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে। সেসব প্রতিবেদন বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেডের (বিএসসিসিএল) দৃষ্টিগোচর হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানিটি চাহিদা পূরণের চেষ্টা করছে এবং দেশের সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ ক্যাপাসিটির চাহিদা পূরণে কর্মপরিকল্পনা নিয়েছে। আগামী বছরে আরো ১ হাজার ৬০০ জিবিপিএস সাবমেরিন ক্যাবল ব্যান্ডউইডথ ক্যাপাসিটি লাইট আপকরণ হবে।

কর্মপরিকল্পনার অংশ হিসেবে বিএসসিসিএল বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানায়, ইতোমধ্যে বিএসসিসিএল কুয়াকাটায় এসইএ-এমই-ডাবলুই-৫ (এসএমডাবলু-৫) সাবমেরিন ক্যাবল সিস্টেমের লাইট আপ# থ্রি (এলইউ#থ্রি) প্রোগ্রামের আওতায় সিঙ্গাপুর-কুয়াকাটা রুটে আরো ৯০০ জিবিপিএস ক্যাপাসিটি লাইট আপকরণের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, যা আগামী ২০২২ সালের জানুয়ারিতে চালু হবে।

ফলে (এসএমডাবলু-৫) সাবমেরিন ক্যাবল সিস্টেমের সিঙ্গাপুর-কুয়াকাটা রুটে বর্তমান লাইট আপকৃত ক্যাপাসিটি ১ হাজার ২০০ জিবিপিএস থেকে বাড়িয়ে ২ হাজার ১০০ জিবিপিএসে উন্নীত হবে এবং কুয়াকাটা-মার্সেই (ফ্রান্স) রুটে ইতোমধ্যে লাইট আপকৃত ১০০ জিবিপিএস ক্যাপাসিটিসহ (এসএমডাবলু-৫) সাবমেরিন ক্যাবল সিস্টেমে বিএসসিসিএলের মোট লাইট আপকৃত ক্যাপাসিটির পরিমাণ দাঁড়াবে ২ হাজার ২০০ জিবিপিএস।

একই সঙ্গে দেশের ক্রমবর্ধমান সাবমেরিন ক্যাবল ক্যাপাসিটির চাহিদা পূরণার্থে কক্সবাজারে স্থাপিত দেশের অন্য সাবমেরিন ক্যাবল এসএমডাবলু-৪ এর পরবর্তী আপগ্রেড ছয় প্রোগ্রামের আওতায় বিএসসিসিএল আরো ৭০০ জিবিপিএস ক্যাপাসিটি বৃদ্ধির প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের জন্য এসএমডাবলু-৪ কনসোর্টিয়ামকে অনুরোধ জানিয়েছে।

এ বিষয়ে এসএমডাবলু-৪ কনসোর্টিয়াম কাজ শুরু করেছে এবং আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে ক্যাপাসিটি চালু হবে। আপগ্রেড শেষে হলে এসএমডাবলু-৪ সাবমেরিন ক্যাবলে বিএসসিসিএলের বর্তমান ক্যাপাসিটি ৬০০ জিবিপিএস থেকে বেড়ে ১ হাজার ৩০০ জিবিপিএসে উন্নীত হবে।

জানানো হয়েছে, ২০২২ সালে এসএমডাবলু-৪ ও এসএমডাবলু-৫ ক্যাবলে আরো ১ হাজার ৬০০ জিবিপিএস ক্যাপাসিটি লাইট আপ হলে দেশের মোট লাইট আপকৃত সাবমেরিন ক্যাবল ক্যাপাসিটি প্রায় ৩ হাজার ৫০০ জিবিপিএসে উন্নীত হবে।

ব্যান্ডউইডথ ক্যাপাসিটি বৃদ্ধি পরিকল্পনা : এসএমডাবলু-৫ সাবমেরিন ক্যাবলে ভবিষ্যতে আরো ক্যাপাসিটি আপগ্রেডেশনের সুযোগ রয়েছে এবং প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় এ ক্যাবলের মাধ্যমে ভবিষ্যতে আরো বেশি ক্যাপাসিটি চালু করা সম্ভব হবে। এসএমডাবলু-৫ সাবমেরিন ক্যাবলের পশ্চিম প্রান্তে এবং বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা-সিঙ্গাপুর রুটেও যথেষ্ট পরিমাণ ক্যাপাসিটি লাইট আপের সুযোগ রয়েছে।

২০২২ সালে দেশের সিঙ্গাপুর অভিমুখী ব্যান্ডউইডথের চাহিদা ও চাহিদা বৃদ্ধির প্রবণতা পর্যালোচনা করে প্রয়োজন অনুভূত হলে অত্যন্ত কম সময়ের মধ্যেই বিএসসিসিএল এসএমডাবলু-৫ সাবমেরিন ক্যাবলে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা-সিঙ্গাপুর রুটে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ ক্যাপাসিটি লাইট আপ করতে সক্ষম হবে।

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল এসএমডাবলু-৬ কনসোর্টিয়ামে অগ্রগতি : সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার ২০১৮ এর আলোকে দেশের তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপনে ইতোমধ্যে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে নতুন একটি সাবমেরিন ক্যাবল কনসোর্টিয়াম South East Asia-Middle East-Western Europe-6 (SEA-ME-WE-6)-এ যোগদানে ২০১৯ সালে সমঝোতা স্মারক সই হয়। পরবর্তীতে ২০২০ সালে এ বিষয়ে একনেকে একটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে। প্রকল্পের বাস্তবায়নকাল চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন ২০২৪ সাল পর্যন্ত।

SEA-ME-WE-6 কনসোর্টিয়াম কর্তৃক সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপনে সরবরাহকারী নির্ধারণের কাজ কনসোর্টিয়ামের আওতায় করা হচ্ছে এবং ইতোমধ্যে দরপত্র প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কনসোর্টিয়াম কর্তৃক Preferred Supplier নির্ধারণ করা হয়েছে। Preferred Supplier-এর সঙ্গে কারিগরি ও আর্থিক বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করে চুক্তি চূড়ান্তকরণের কাজ চলমান রয়েছে।

আগামী জুলাইয়ের মধ্যে এসএমডাবলু-৬ সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপনের জন্য এসএমডাবলু-৬ কনসোর্টিয়ামের সব সদস্যদের মধ্যে Construction & Maintenance Agreement (C&MA) Pyw³mn Supplier চুক্তিসহ Supplier-এর সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর ও সাবমেরিন ক্যাবলটি স্থাপনের কাজ শুরু হবে।

বিএসসিসিএলের উদ্বৃত্ত ক্যাপাসিটি ট্রান্সফার : বর্তমানে দেশের অভ্যন্তরে বিএসসিসিএলের মোট ব্যান্ডউইডথ ব্যবহার প্রায় ১ হাজার ৫৬৪ জিবিপিএস, যার প্রায় ৯৫% পূর্ব দিক তথা সিঙ্গাপুর অভিমুখী।

এ পরিপ্রেক্ষিতে পশ্চিম প্রান্তে অর্থাৎ ইউরোপ অংশের অব্যবহৃত বিপুল পরিমাণ ব্যান্ডউইডথ ক্যাপাসিটি থেকে ভবিষ্যতে বাংলাদেশে ব্যবহারের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ সংরক্ষিত রেখে উদ্বৃত্ত ক্যাপাসিটি আন্তর্জাতিক বাজারে আগ্রহী রাষ্ট্র বা প্রতিষ্ঠানের কাছে দীর্ঘমেয়াদি লিজ প্রদান বা ট্রান্সফারের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ে বিএসসিসিএল সচেষ্ট রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here