সম্ভাবনার বাতাসে দুলছে জেনেক্স ইনফোসিস

0
790
স্টক বাংলাদেশ -এর গ্রাফ।

সিনিয়র রিপোর্টার : নতুন বছরের শুরুতে জেনেক্স ইনফোসিস লিমেটেডের ব্যবসা বেড়েছে। বাংলালিংক ডিজিটাল কিমিউনিকেশন লিমিটেডের সঙ্গে সমঝোতা অনুসারে বছরে ১২ কোটি টাকা আয় করবে জেনেক্স। একই সঙ্গে গত বছরে দেশের সেরা মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানির রবি ও গ্রামীণফোনসহ বেশ কয়েকটি কোম্পানির সঙ্গে সঙ্গে কলসার্ভিস সেন্টারের সমঝোতা চুক্তি করেছে।

কোম্পানির ব্যবসা বর্ধনের আসছে আরো নতুন ঘোষণা। যে কারণে সম্ভাবনার বাতাসে দুলছে কোম্পানিটি।

প্রতিদিনই বাড়েছে কোম্পানির আয়। তবে শেয়ার হোল্ডারদের কোম্পানির কর্তৃপক্ষ নিরাশ করবে না বলেন কোম্পানি সেক্রেটারি জুয়েল রশিদ সরকার। কোম্পানির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা হলে সম্প্রতি তিনি বলেন, আমরা পুঁজিবাজার থেকে মাত্র ২০ কোটি টাকা তুলেছি। মূলত সুনামের জন্য কোম্পানিটির পুঁজিবাজারে আসা। চট্টগ্রাম এবং ঢাকার অফিস মিলে এখন কোম্পানিতে প্রায় ৬হাজারের অধিক লোক কাজ করছে।

২০১২ সালে কোম্পানি ব্যবসা শুরু করে কোম্পানিতে বর্তমানে প্রায় ৬ হাজার কর্মী কাজ করছেন। আয়ের মূল উৎস কলসার্ভিস সেন্টার। এ ছাড়া এইচআর সার্ভিস ও সফটওয়্যার সার্ভিস সেবাসহ বিভিন্ন ধরণের সেবা তৃতীয়পক্ষ হিসেবে বিভিন্ন কোম্পানিকে দিচ্ছে কোম্পনিটি।

ইতোমধ্যে রবি, গ্রামীণফোন, বাংলালিংক, উবার, স্যামস্যাং, ব্রিট্রিশ আমেরিকান টোব্যাকো (বিএটিবিসি) ও ইসলামী ব্যাংককে সেবা দিচ্ছে জেনেক্স ইনফোসিস। তবে আরো সেবা দিতে নতুন পলিসি গ্রহণ করেছে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ।

গত এক বছরের শেয়ার দরের চিত্রটি ডিএসই থেকে শনিবার নেয়া।

জুয়েল রশিদ সরকার বলেন, লক্ষ্য ভালো হওয়ায় কোম্পানি এতোদুর আসতে পেরেছে। আরো এগিয়ে যাবে, যতোদিন যাবে ভালো ব্যবসার কথা শুনবেন। বিনিয়োগকারীরা এখান থেকে নিরাশ হবেন না। এটা আইটি কোম্পানি- গোটা পৃথিবী এর বাজার। সম্ভাবনা অনেক বেশি, তেমনি খারাপ দিকও আছে।

এই খাতে খুব দ্রুত প্রতিযোগী জন্মায়। কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই ক্ষতের  সৃষ্টি হয়। তবে এখনো আমাদের হয়নি। ব্যবসা আরো বাড়ছে। আশা করছি, নতুন বছরে ব্যবসা বৃদ্ধির সুখবর দিয়ে শুরু হয়েছে এবং বছরজুড়েই নতুন সব খবর পাবেন।

তিনি বলেন, নতুন পলিসি নিয়ে আমরা কাজ করছি। লক্ষ্য অনেক দুর, তাই এখানে কোন বিনিয়োগকারী ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না।

স্টক বাংলাদেশের গ্রাফ।। সোমবার শেয়ার লেনদেনের প্রতি মিনিটের চিত্র।।

জেনেক্সে ইনফোসিস লিমিটেড ২০ শতাংশ (১৫ শতাংশ বোনাস এবং ৫ শতাংশ নগদ) লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। বাজার পরিসংখ্যানে গত বছরের চিত্রে দেখা গেছে, গত সপ্তাহে শেয়ারপ্রতি সবোচ্চ দর ছিল ৬৮টাকা। প্রচণ্ড খরার মৌসুমেও সেই দর পড়েনি।

শেয়ার লেদেনের সোমবারের চিত্রে দেখা গেছে, ভল্লুক এবং ষাড়ের বেজায় যুদ্ধ চলছে। তবে দুদিনে সামান্য দর কমলেও সম্ভাবনা বেশ জোরালো। আসছে ব্যবসা বৃদ্ধির আরো নতুন খবর বলেন কোম্পানি সেক্রেটারি জুয়েল রশিদ সরকার।

পেছনের খবর-

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here