লাইসেন্সবিহীন কুরিয়ার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ডাক আদান-প্রদান করা যাবে না

0
65

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ ব্যাংক লাইসেন্সবিহীন কুরিয়ার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ডাক আদান-প্রদান করা যাবে না বলে জানিয়েছে। মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে ব্যাংটি।

সরাসরি এবং বিভিন্ন অনলাইন প্লাটফর্মে লাইসেন্সবিহীন সহস্রাধিক প্রতিষ্ঠান কুরিয়ারের সেবা দিচ্ছে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ রয়েছে।

দেশের সব আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর পাঠানো সার্কুলারে বলা হয়েছে, দি পোস্ট অফিস অ্যাক্ট ১৮৯৮ এর ধারা ৪ বি ও ৪ সি এবং মেইলিং অপারেটর ও কুরিয়ার সার্ভিস বিধিমালা ২০১৩ এর নির্দেশনা অনুযায়ী লাইসেন্সবিহীন মেইলিং অপারেটর ও কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ডাক দ্রব্য গ্রহণ, পরিবহন ও বিলি বিতরণ বেআইনি ও সম্পূর্ণভাবে বিধিবহির্ভূত।

৩০ জুনও ব্যাংকগুলোকে একই নির্দেশনা দিয়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইন ১৯৯৩ এর ১৮ (ছ) ধারার প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ নির্দেশনা জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

প্রতিষ্ঠানটি বলেছিল, কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান লাইসেন্স গ্রহণ না করেই কুরিয়ার ব্যবসা পরিচালনা করছে, আবার কিছু প্রতিষ্ঠান মেয়াদোত্তীর্ণ লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করছে।

এমনকি লাইসেন্সবিহীন কিছু প্রতিষ্ঠান পত্র-পত্রিকায় ও অনলাইনে কুরিয়ার ব্যবসার বিজ্ঞপ্তি ও এজেন্ট নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রচার করছে। এ ধরনের কর্মকাণ্ড সরকারি নিয়মনীতির সম্পূর্ণ পরিপন্থী ও বেআইনি। তখন সরকারি নিয়মনীতি বহির্ভূত এমন অবৈধ কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকতে সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করেছিল সংস্থাটি।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের বার্ষিক প্রতিবেদন ২০১৯-২০ বলছে, ২০১৩ সালে ডাক বিভাগের অধীনস্থ মেইলিং অপারেটর ও কুরিয়ার সার্ভিস লাইসেন্সিং কর্তৃপক্ষ গঠনের পর প্রতিবেদন তৈরি পর্যন্ত দেশে লাইসেন্স প্রাপ্ত কুরিয়ারের সংখ্যা ছিল ১৯০টি।

এর মধ্যে অভ্যন্তরীণ মেইলিং অপারেটর কুরিয়ার প্রতিষ্ঠান ৭৫টি। আর্ন্তজাতিক মেইলিং অপারেটর কুরিয়ার সার্ভিস প্রতিষ্ঠান ৮৫টি এবং অন-বোর্ড মেইলিং অপারেটর কুরিয়ার প্রতিষ্ঠান আছে ৩০টি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here