রবির আর্থিক দুর্বলতার কারণ খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত

0
132

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) আর্থিক দুর্বলতার কারণ খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের। তিন সদস্যের একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিটি গঠন করা হয়েছে। রবি আজিয়াটার আর্থিক দুর্বলতার বিষয়গুলো চিহ্নিত করে সেগুলোর সমাধানে কমিটির পক্ষ থেকে সুপারিশ করা হবে।

গঠিত কমিটির সদস্যরা হলেন বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ ও অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান এবং সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান। তালিকাভুক্তির পরেই রবির আর্থিক দুর্বলতার বিষয়টি কমিশনের নজরে এসেছে।

বিশেষ করে টেলিযোগাযোগ খাতের তালিকাভুক্ত আরেক কোম্পানি গ্রামীণফোনের সঙ্গে তুলনা করলে রবি বেশ পিছিয়ে রয়েছে। এক্ষেত্রে বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে কমিশন রবির আর্থিক দুর্বলতার মূল কারণগুলো চিহ্নিত করে সেগুলোর সমাধানে কোম্পানিটিকে পরামর্শ দেবে।

বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, রবির আর্থিক দুর্বলতার কারণগুলো আমরা জানতে চাই। কোম্পানিটির মুনাফা এত কম কেন, কোম্পানিটি ট্রান্সফার প্রাইসিং করছে কিনা, প্রশাসনিক খাতে বেশি ব্যয় করছে কিনা এগুলো আমরা খতিয়ে দেখব। রবির আর্থিক পারফরম্যান্সে উন্নতির জন্য কমিশনের পক্ষ থেকে যদি কোনো সহযোগিতার প্রয়োজন হয় তাহলে সেটি করা হবে।

রবি আজিয়াটা লিমিটেডের এনটিটি সার্ভিল্যান্স রেটিং ‘ডাবল এ’। ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত ২০২০ হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন, আলোচ্য সময় পর্যন্ত ব্যাংকের কাছে প্রতিষ্ঠানটির দায়সহ হালনাগাদ প্রাসঙ্গিক অন্যান্য তথ্যের ভিত্তিতে এ প্রত্যয়ন করেছে ক্রেডিট রেটিং এজেন্সি অব বাংলাদেশ লিমিটেড (সিআরএবি)।

দেশের পুঁজিবাজারে গত ২৪ ডিসেম্বর রবির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৭৪১তম কমিশন সভায় রবিকে ১০ টাকা ইস্যুমূল্যে ৫২ কোটি ৩৭ লাখ ৯৩ হাজার ৩৩৪টি সাধারণ শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন দেয়া হয়। এর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ৫২৩ কোটি ৭৯ লাখ ৩৩ হাজার ৩৪০ টাকা সংগ্রহ করছে রবি।

আইপিওর মাধ্যমে উত্তোলিত তহবিল থেকে প্রতিষ্ঠানটি ৫১৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও বাকি ৮ কোটি ২ লাখ টাকা আইপিওর ব্যয় নির্বাহ খাতে খরচ করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here