ব্যাংক খাত দরপতনে, ঘুরে দাঁড়ানোর আভাস বিমার

0
732
খাত ভিত্তিক লেনদেনের চিত্রটি বৃহস্পতিবার স্টক বাংলাদেশ থেকে নেয়া

সিনিয়র রিপোর্টার : লেনদেন শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে আগের দিনের তুলনায় ১৮ পয়েন্ট সূচক বাড়লেও শেষ সময়ের সমন্বয়ে এখান থেকে ১০ পয়েন্ট কমে শেষ হয় লেনদেন। তবে এই উত্থানের ফলে গত সোম ও মঙ্গলবার সূচক যতটুকু পড়েছিল তার পুরোটাই উদ্ধার হলো পরের দুই দিনে।

আর সপ্তাহের হিসাব করলে ২০ পয়েন্ট যোগ হয়ে শেষ হলো লেনদেন। সপ্তাহ শুরু হয়েছিল ৬ হাজার ৪০৫ পয়েন্ট নিয়ে, শেষ হয়েছে ৬ হাজার ৫২৫ পয়েন্টে।

তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর একের পর এক আয় বৃদ্ধির তথ্য আসলেও ব্যাংক খাত দরপতনের বৃত্তে। ঘুরে দাঁড়ানোর আভাস দিয়েও স্থিতিশীল হতে পারছে না বিমা খাত। প্রকৌশল আর ওষুধ খাতও কিছুদিন ধরে দর বৃদ্ধির মধ্যেই আছে। এর মধ্যে দর সংশোধন শেষ করে ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিল বস্ত্র খাত।

খাত ভিত্তিক লেনদেনের চিত্রটি বৃহস্পতিবার স্টক বাংলাদেশ থেকে নেয়া

সপ্তাহের শেষ কর্মদিবস বৃহস্পতিবার বলার মতো উত্থান ঘটেছে লভ্যাংশ ঘোষণার অপেক্ষায় থাকা এই খাতটি। প্রকৌশল খাতেও বেড়েছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। ওষুধ রসায়নেও নামিদামি বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে।

শাটডাউন চলাকালে বুধবার আদেশ আসে, আগামী সপ্তাহে রোব ও বুধবার ব্যাংক বন্ধ থাকবে। ফলে সেই দুই দিন চলবে না পুঁজিবাজারও।

এই আদেশের পর লেনদেন চালু হলে আধা ঘণ্টায় সূচক পড়ে যায়। এরপর উঠানামা করতে করতে শেষ বেলায় ঘটে উত্থান। তবে একেবারে শেষ বেলায় উত্থান হওয়ার কারণে সমন্বয়ের সময় আবার সেটির প্রভাব পড়েনি খুব একটা।

লেনদেন শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে আগের দিনের তুলনায় ১৮ পয়েন্ট সূচক বাড়লেও শেষ সময়ের সমন্বয়ে এখান থেকে ১০ পয়েন্ট কমে শেষ হয় লেনদেন।

তবে এই উত্থানের ফলে গত সোম ও মঙ্গলবার সূচক যতটুকু পড়েছিল তার পুরোটাই উদ্ধার হলো পরের দুই দিনে। আর সপ্তাহের হিসাব করলে ২০ পয়েন্ট যোগ হয়ে শেষ হলো লেনদেন।সপ্তাহ শুরু হয়েছিল ৬ হাজার ৪০৫ পয়েন্ট নিয়ে, শেষ হয়েছে ৬ হাজার ৫২৫ পয়েন্টে।

লেনদেনের এক তৃতীয়াংশই হয়েছে শেষ আধা ঘণ্টায়। আর এর মধ্য দিয়ে ছয় কর্মদিবস পর তা আবার উঠে দেড় হাজার কোটি টাকার ঘরে।

’দিন শেষে খাতওয়ারী সবচেয়ে বেশি চঙা বস্ত্রের ৫৮টির কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ৪৭টি কোম্পানির। দাম কমেছে কেবল ৭টির।প্রকৌশল খাতও ছিল বেশ উজ্জ্বল। এই খাতের ৪২টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ২৭টি কোম্পানির। আর ওষুধ ও রসায়নের ৩০টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ১৬টির।
অন্যদিকে ব্যাংকের ৩১টি কোম্পানির মধ্যে কেবল ৭টির শেয়ারদর বেড়েছে ১০ থেকে ৩০ পয়সা। আর আগের দিন চাঙা থাকা বিমা খাতের ৫১টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে কেবল ১০টির।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here