বৈঠকের পর পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়ানোর আভাস

0
402

স্টাফ রিপোর্টার : বুধবার লেনদেনের শুরুতে আগের দিনের যে হতাশার চাপ ছিল পুঁজিবাজারে তা কেটে যাওয়ার আভাস দেখা গেছে। লেনদেনের শুরুতে সূচকের উত্থান হয় ১১৫ পয়েন্ট। লেনদেন শুরুর ১০ মিনিটে সূচকের এমন উত্থান পুঁজিবাজারকে মন্দা থেকে ফেরাতে নিয়ন্ত্রক সংস্থার যে উদ্যোগ তাতে আস্থার প্রতিফলন দেখা গেছে।

এদিন লেনদেনের শুরুতে বিনিয়োগকারীদের বাজারমুখী হওয়ার যে প্রভাব দেখা গেছে, সেটি শেষ সময় পর্যন্ত থাকবে কি না তা নির্ভর করছে আস্থার ওপর।

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি মঙ্গলবার বৈঠক করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে। আলোচনা শেষে বৈঠকে নেতৃত্ব দেয়া বিএসইসির কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ জানান, ক্রয়মূল্যে এক্সপোজার লিমিট গণনার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক একমত হয়েছেন। দাপ্তরিক প্রক্রিয়া শেষে বিস্তারিত জানানো হবে।

এক্সপোজার লিমিট ক্রয়মূল্যের ভিত্তিতে নির্ধারণ করা হলে পুঁজিবাজারের উত্থান বা শেয়ারের দর বেড়ে গেলে নিয়মের মধ্যে থাকতে হঠাৎ শেয়ার বিক্রির চাপে পড়বে না আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো। বর্তমানে শেয়ারের ধারণকৃত মূল্য নির্ধারণ করা হয় বাজারমূল্যের ভিত্তিতে। আর এখানেই বিপত্তি।

ব্যাংক তার বিনিয়োগ সীমার মধ্যেই শেয়ার কিনলেও তার দাম বেড়ে গেলে বাজারমূল্যের ভিত্তিতে বিনিয়োগ গণনার কারণে বিনিয়োগসীমা অতিক্রম করে যাচ্ছে। ফলে ব্যাংকগুলো তাদের হাতে থাকা শেয়ার বিক্রি করে দিতে হয় আগেভাগেই। এতে পুঁজিবাজারে বিক্রয় চাপ তৈরি হচ্ছে। বাজারে হচ্ছে দরপতন।

মঙ্গলবারের বৈঠকের পর দ্রুত এ সমাধান হলে ব্যাংকের ওপর থেকে শেয়ারের দর বাড়লেও বিক্রির চাপ বাড়বে না।

বুধবার লেনদেনের ৪০ মিনিটে সূচকের অবস্থান ছিল ৬ হাজার ৮০৬ পয়েন্টে। আগের দিনের তুলনায় সূচক বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০৩ দশমিক ১৩ পয়েন্ট। প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এর পাশাপাশি বাকি দুই সূচকেরও ছিল উত্থান। লেনদেন হয়েছে ১৯০ কোটি টাকা। দর বৃদ্ধির খাতায় নাম লিখিয়েছে ৩১৫টি কোম্পানি। দর হারিয়েছে ১৪টির।

টানা ছয় দিন দরপতনের পর এক দিন সূচক বাড়লেও মঙ্গলবার আবার সেই হতাশার বৃত্তে ডুব দেয় পুঁজিবাজার। ফলে আট কর্মদিবসের মধ্যে সাত দিনই সূচকের পতন হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here