সিনিয়র রিপোর্টার : ঘোষিত ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটকে পুঁজিবাজারবান্ধব মনে করছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপনের পর ডিএসইর বিজ্ঞপ্তিতে এ মতামত জানানো হয়েছে।

ডিএসই মনে করে, বাজেট ব্যবসাবান্ধব ও বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের উন্নয়নমুখী। দেশের অর্থনীতিকে গতিশীল করতে প্রস্তাবিত বাজেটে সরকারের অর্জন ও উদ্ভুত বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে টেকসই ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে উন্নয়নমূলক ও ব্যবসাবান্ধব বাজেট।

বাজেটে সু-পরিকল্পিত কর্মপন্থা ও ব্যবস্থাপনাের যে কৌশল প্রস্তাব করা হয়েছে, সে জন্য ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ অর্থমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ।

পুঁজিবাজারের উন্নয়ন এবং বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে কর্পোরেট করহার আরও কমিয়ে তালিকাভুক্ত কোম্পানির জন্য ২৫% এর স্থলে ২২.৫০% করায় ডিএসই অভিনন্দন জানাচ্ছে।

কর্পোরেট করহার কমানোর ফলে বাংলাদেশের বৃহৎ এবং স্বনামধন্য কোম্পানিগুলো পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হতে আগ্রহী হবে। এছাড়াও সরকার পুঁজিবাজারকে আন্তর্জাতিককরণের লক্ষ্যে নানাবিধ সংস্কারমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে।

বিনিয়োগকারীদের প্রত্যাশা অনুযায়ী প্রস্তাবিত বাজেটে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিতে ভূমিকা রাখবে। ‘জীবন-জীবিকায় প্রাধান্য দিয়ে সুদৃঢ় আগামীর পথে বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রস্তাবিত বাজেটে দেশের পুঁজিবাজার সরকারের কাঙ্খিত লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে বলে জানায় ডিএসই।

বাজেটে আগামী অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে পরিচালন ব্যয়ের আকার ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৬৬ হাজার ৬০৩ কোটি টাকা। অর্থাৎ ৬ লাখ কোটি টাকার জাতীয় বাজেটের ৬০ দশমিক ৭২ শতাংশই ব্যয় হবে পরিচালন খাতে। আর খাতভিত্তিক হিসাবে পরিচালন ব্যয়ের এক-চতুর্থাংশের বেশি ব্যয় হবে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও পেনশন পরিশোধে।

পরিচালন ব্যয়ের খাত বিশ্লেষণে দেখা যায়, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বাবদ বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৬৯ হাজার ৭৫৫ কোটি টাকা, যা মোট পরিচালন বাজেটের ১৯ শতাংশ। আর পরিচালন বাজেটের ৭ দশমিক ৭ শতাংশ বরাদ্দ রাখা হয়েছে পেনশন পরিশোধে। সে হিসেবে বেতন-ভাতা ও পেনশন পরিশোধেই পরিচালন বাজেটের ২৬ দশমিক ৭ শতাংশ অর্থ ব্যয় হবে।

এছাড়া পরিচালন ব্যয়ের অন্য খাতগুলোর মধ্যে সাহায্য মঞ্জুরি বাবদ ১৯ দশমিক ১, সুদ পরিশোধে ১৮ দশমিক ৭, ভর্তুকি ও প্রণোদনা বাবদ ১২ দশমিক ৬, পণ্য ও সেবা খাতে ৯ দশমিক ৯, সম্পদ সংগ্রহে ৫ দশমিক ৯, শেয়ার ও ইকুইটিতে ৩, অপ্রত্যাশিত ও অন্যান্য থোক বাবদ ২ দশমিক ৮ এবং বিবিধ ব্যয় বরাদ্দ রাখা হয়েছে বাকি ১ দশমিক ৩ শতাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here