ফ্যামিলিটেক্স ও সিঅ্যান্ডএ কোম্পানির উদ্যোক্তারা ‘অসৎ’, মামলার প্রক্রিয়া

0
3124

সিনিয়র রিপোর্টার : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কয়েকটি কোম্পানির পর্ষদ পুনর্গঠন করে বাঁচানোর চেষ্টা চলছে, তার মধ্যে অন্তত দুটির ভবিষ্যৎ নিয়ে সন্দিহান নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম।

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি এক আদেশে ফ্যামিলিটেক্স ও সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলের পর্ষদ ভেঙে দিয়ে দুটি কোম্পানিকে টেনে তুলতে যাদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে, তাদের সঙ্গে কথাবার্তা বলে বিএসইসি চেয়ারম্যান এই সংশয় প্রকাশ করেছেন। এই দুটি কোম্পানির উদ্যোক্তাদের ‘অসৎ’ আখ্যা দিয়ে বলেছেন, তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করার প্রক্রিয়া চলছে।

এম খায়রুল হোসেন বিএসইসির চেয়ারম্যান থাকাকালে কোম্পানি দুটি তালিকাভুক্ত হয়েছিল কিন্তু প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে টাকা তোলার পর থেকেই সেগুলো ধীরে ধীরে রুগ্ণ, একপর্যায়ে বন্ধ হয়ে যায়। মালিকপক্ষ আর বিএসইসির সঙ্গে কোনো যোগাযোগ রাখছে না, বিনিয়োগকারীদেরও কোনো তথ্য দিচ্ছে না। এ অবস্থায় পুঁজি হারিয়ে দিশেহারা হাজার হাজার বিনিয়োগকারী।

শিবলী রুবাইয়াতের নেতৃত্বাধীন নতুন কমিশন দায়িত্ব নেয়ার পর প্রথমে আলহাজ ও পরে রিংশাইন টেক্সটাইলের পর্ষদ পুনর্গঠন করা হয়।

সিঅ্যান্ডএ, ফ্যামিলিটেক্স: আশা কম, মামলার চিন্তা
বিএসইসি চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম

আলহাজ টেক্সটাইল এরই মধ্যে উৎপাদন শুরুর তারিখ দিয়েছে। রিংশাইনও উৎপাদন শুরুর প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান।

তবে সিঅ্যান্ডএ ও ফ্যামিলিটেক্সের বিষয়ে সন্দিহান তিনি। বলেন, ‘বোর্ড পুনর্গঠন করার পর দেখা গেছে কয়েকটি কোম্পানি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছিল লুটপাটের জন্য। আমরা দেখছি কোম্পানিগুলোর কীভাবে কী করা যায়। যদি একেবারেই চালু করা সম্ভব না হয়, তাহলে সেসব কোম্পানির বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করে দেব।’

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ফ্যামিলিটেক্স ও সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলের পর্ষদ ভেঙে দিয়ে নতুন পর্ষদ গঠন করে বিএসইসি।

ফ্যামিলিটেক্সের জন্য বিএসইসির মনোনীত পরিচালক হলেন কাজী আমিনুল ইসলাম, ড. সামির কুমার শীল, ড. গাজী মোহাম্মদ হাসান জামিল, ড. মো. জামিল শরিফ, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শরিফ এহসান এবং ড. মো. ফরজ আলী। এই ছয়জন স্বতন্ত্র পরিচালকের মধ্যে কোম্পানিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন কাজী আমিনুল ইসলাম।

আর সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলের দায়িত্ব পেয়েছেন সাতজন। চেয়ারম্যান করা হয় অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব নারায়ণ চন্দ্র দেবনাথকে। অন্যরা হলেন ড. মোহাম্মদ শরিয়ত উল্লাহ, ড. এ বি এম শহীদুল ইসলাম, ড. রেজওয়ানুল হক খান, ড. এ বি এম আশরাফুজ্জামান, ড. তৌফিক ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শরীফ এহসান।

তিন মাসে কোম্পানি দুটির মূল্যায়ন রিপোর্ট অবশ্য এখনও জমা দেননি তারা। তবে বিএসইসিকে নানা সময় কোম্পানির অবস্থা সম্পর্কে তারা জানিয়েছেন।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের ম্যানপাওয়ার কম। মাত্র ৮০ জন এখানে কাজ করি। এতগুলো কাজ একসঙ্গে করা মুশকিল হয়ে যায়। এ জন্য আমরা একটি একটি করে ধরছি, করছি। নতুন বোর্ড করে দিচ্ছি। তারা প্রোগেস করছে। এখন পর্যন্ত আমরা যে বোর্ড গঠন করে দিয়েছি, তার প্রোগেস রিপোর্ট শিগগিরই চলে আসবে। তখন সব বোঝতে পারব কোথায় কী হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here