পিপলস লিজিংয়ের সাবেক চেয়ারম্যানসহ ২জন গ্রেফতার

0
261
পিপলস লিজিংয়ের সাবেক চেয়ারম্যান উজ্জ্বল কুমার নন্দী (বাঁয়ে) ও ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক এমডি রাশেদুল হক

স্টাফ রিপোর্টার : অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারে পি কে হালদারকে সহযোগিতার অভিযোগে দুই সহযোগীকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে রোববার (২৪ জানুয়ারি) বিকালে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে গণমাধ্যমকে কমিশনের পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য জানিয়েছেন।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডের (পিএলএফসিএল) চেয়ারম্যান উজ্জ্বল কুমার নন্দী ও ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রাশেদুল হক।

অভিযোগ অনুসন্ধান কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক মো. গুলশান আনোয়ার প্রধান তাদের গ্রেপ্তার করেন।

দুদক কর্মকর্তা আরো জানান, পিপলস লিজিংয়ের সাবেক কর্ণধার কানাডায় পলাতক পি কে হালদারকে অর্থ আত্মসাৎ বা পাচারে সহযোগিতা করেছেন উজ্জ্বল নন্দী ও রাশেদুল হক। তাদের আদালতে হাজির করে রিমান্ড চাওয়া হবে।

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের পরিচালক প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদারকে তিন হাজার ৬০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠে।

এছাড়া বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, পি কে হালদার বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে থেকে লোপাট করেছেন অন্তত তিন হাজার ৬০০ কোটি টাকা।

পি কে হালদার প্রথমে রিলায়েন্স ফিন্যান্স এবং পরে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (এমডি) বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এমন আরো কিছু প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, এফএএস ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড ও বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফিন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি) ইত্যাদি।

অভিযোগ রয়েছে, ওই সব প্রতিষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন এবং নতুন আরো কিছু কাগুজে প্রতিষ্ঠান তৈরির মাধ্যমে প্রায় তিন হাজার ৬০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ ও বিদেশে পাচার করেছেন পি কে হালদার। নিজেও পাড়ি জমিয়েছেন বিদেশে। দুদকের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। তবে মামলা করার আগেই লাপাত্তা হন পি কে হালদার।

এদিকে অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারে সহযোগিতা করেছে, এমন ৮৩ জনের নাম জানতে পেরেছে দুদক। পি কে হালদারকে অর্থ আত্মসাতে সহযোগিতার অভিযোগে তার বান্ধবী অবন্তিকা বড়াল, একজন আইনজীবী ও তার মেয়েসহ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে দুদক।

অপরদিকে পি কে হালদার বিদেশে পলাতক থাকায় বাংলাদেশ পুলিশের অনুরোধে তার বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করেছে পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থা ইন্টারপোল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here