সিনিয়র রিপোর্টার : ব্যাংকারদের ঝুঁকি ভাতা প্রদানের নির্দেশ দেয়ার পর এবার সশরীরে কর্মরত ব্যাংকারদের স্বাস্থ্যবীমার আওতায় আনার নির্দেশনা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে জারিকৃত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, সাধারণ ছুটি চলাকালীন কোনো ব্যাংকার করোনায় আক্রান্ত হলে পদমর্যাদা অনুযায়ী, সর্বনিম্ন ৫ লাখ এবং সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকার বীমা সুবিধা প্রাপ্য হবেন। করোনা আক্রান্ত হওয়ার সর্বোচ্চ ১৫ দিনের মধ্যে এ পরিমান অর্থ সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে দিতে হবে। একই সঙ্গে আক্রান্ত ব্যাংকারের সব চিকিৎসার ভারও সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে নিতে হবে।

কোনো ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মারা গেলে তার পরিবারকে স্বাস্থ্যবীমার পাঁচগুণ অর্থ সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে পরিশোধ করতে হবে। অর্থাৎ, কোনো ব্যাংক কর্মকর্তার স্বাস্থ্যবীমা যদি ৭ লাখ টাকা হয়, তিনি করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলে তার পরিবারকে ৩৫ লাখ টাকা অনুদান দিতে হবে।

অনুদানের অর্থ সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের সঙ্গে ওই ব্যাংকারের কোনো দায় দেনার সমন্বয় করা যাবে না। ব্যাংকের বিদ্যমান নীতিমালা অনুযায়ী মারা যাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রদেয় ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিয়মে অনুযায়ী পাবেন।

প্রজ্ঞাপনে আরো বলা হয়েছে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা সাধারণ ছুটি শুরু হওয়ার দিন থেকে কার্যকর হবে। একই সঙ্গে এ নির্দেশনা শেষ হবে, সাধারণ ছুটি শেষ হওয়ার ৩০ দিন পর।

প্রসঙ্গত, সাধারণ ছুটি চলাকালে কোনো ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারী সশরীরে কর্মরত থাকলে প্রণোদনা হিসেবে প্রতি ১০ দিনের জন্য এক মাসের মূল বেতন দেয়ার নির্দেশ দিয়ে এর আগে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সর্বনিম্ন ৩০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারীকে পরিশোধ করার জন্য ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here