করোনাকালে রপ্তানি আয় ১২ বিলিয়ন ডলার : আইসিএমএবিতে বাণিজ্য সচিব

0
155

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা ভাইরাসের প্রকোপের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রীর সাহসী সিদ্ধান্তের কারণে উৎপাদনমুখী কাজ অব্যহত থেকেছে। এতে করে সেই সময় থেকে এখন পর্যন্ত ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানি আয় হয়েছে আমাদের। আইসিএমএবি নবীন সিএমএ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে এসব কথা বলেন বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিন।

মঙ্গলবার ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএমএবি) ডিসেম্বর ২০১৯ এবং এপ্রিল ২০২০ সিএমএ পরীক্ষায় চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ ৬২ জন শিক্ষার্থীকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।

একইসাথে আয়োজনে ইনস্টিটিউটের ২০১৯ সালের ব্রাঞ্চ কাউন্সিলগুলোর বিদায়ী অফিস বেয়ারাদের সংবর্ধনা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাউথ এশিয়ান ফেডারেশন অব অ্যাকাউন্ট্যান্টসের (সাফা) ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ইনস্টিটিউটের সাবেক প্রেসিডেন্ট এ কে এম দেলোয়ার হোসেন, এফসিএমএ।

ড. মো. জাফর উদ্দিন বলেন, অর্থনৈতিকভাবে আমরা পিছিয়ে পড়িনি। এই সাফল্য আমাদের করোনা মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে। কাজের ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে, ফলাফল নিয়ে আসা গুরুত্বপূর্ণ। সেই সাথে ব্যবস্থাপনাও গুরুত্বপূর্ণ। জাপানের প্রাকৃতিক সম্পদ নেই বললেও চলে, তবুও তারা অনেক উন্নত।

অন্যদিকে নাইজেরিয়ায় অজস্র প্রাকৃতিক সম্পদ থাকলেও ব্যবস্থাপনার অভাবে দেশটি দরিদ্র। কাজেই পেশাগত উন্নয়নের সাথে দেশ জাতি ও রাষ্ট্রের সার্বিক প্রয়োজনেই যথার্থ ব্যবস্থাপনা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

নবীন উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করার পাশাপাশি তিনি ইনস্টিটিউট এবং সিএমএ পেশার সার্বিক উন্নয়নে পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত এবং উত্থাপিত বিভিন্ন প্রস্তাবনার বিষয়ে যথাযথ ভূমিকা রাখবেন বলে আশ্বাস দেন।

সভায় এ কে এম দেলোয়ার হোসেন বলেন, সিএমএ পেশাদাররা তাদের পেশাগত ভূমিকার মাধ্যমে অর্থনীতির বিভিন্ন খাতে স্বচ্ছতা আনতে পারবেন। তিনি প্রধান অতিথির কাছে সিএমএ পেশাদারদের জন্য আরও কাজের সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়ার অনুরোধ করেন, যাতে করে তারা দেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে সক্ষম হয়।

আইসিএমএবি প্রেসিডেন্ট মো. জসিম উদ্দিন আকন্দ এফসিএমএ দেশের সার্বিক উন্নয়ন এবং মানুষের কল্যাণে  সদ্য উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের আহবান করেন। তাদের সাফল্যে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, এই সাফল্যের পেছনে তাদের পরিবারের অনেক অবদান রয়েছে। আজকের সাফল্যের মাধ্যমে তাদের নতুন দায়িত্ব শুরু।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ইনস্টিটিউটের সেক্রেটারি মো. মুনিরুল ইসলাম, এফসিএমএ এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ট্রেজারার মো. আলী হায়দার চৌধুরী, এফসিএমএ। ভাইস প্রেসিডেন্ট আবু বকর সিদ্দিক, এফসিএমএ এবং মো. মামুনুর রশীদ, এফসিএমএ অনলাইনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here