এজেন্ট ব্যাংকিং : সাত বছরে গ্রাহক সংখ্যা ৬৫ লাখ

0
86

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে কার্যক্রম শুরুর মাত্র ৭ বছরেই এজেন্ট ব্যাংকিংসেবার গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৬৫ লাখ। এসব গ্রাহক এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের আওতায় জমা করেছেন সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকার বেশি আমানত। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে আছে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের প্রায় ১২ হাজার আউটলেট।

মানুষকে এখন টাকা জমা, তোলা, স্থানান্তর, পরিষেবা বিল পরিশোধ ও প্রবাসী আয় তুলতে ব্যাংকের শাখায় দৌড়াতে হচ্ছে না। নিজ বাড়ির পাশের হাটবাজার বা ইউনিয়ন ডিজিটাল কেন্দ্রে থাকা এজেন্ট বা আউটলেট থেকে সব ধরনের ব্যাংকিংসেবা মিলছে।

গত এক বছরের ব্যবধানে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে রেমিট্যান্স বেড়েছে প্রায় ১৭২ শতাংশ, আমানত বেড়েছে ১২৮ দশমিক ৫৫ শতাংশ, ঋণ বিতরণ বেড়েছে ২২০ দশমিক ৩৩ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিং সম্পর্কিত ২০২০ সালের মার্চ প্রান্তিকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

এজেন্ট ব্যাংকিংসেবা নিয়ে ইনস্টিটিউট অব মাইক্রোফিন্যান্সের (আইএনএম) নির্বাহী পরিচালক মুস্তফা কে মুজেরী বলেন, এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের ফলে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা জনগোষ্ঠী সেবার আওতায় এসেছে। এটা অনেক ভালো উদ্যোগ। সারাদেশ আর্থিক অন্তর্ভুক্তির আওতায় আনতে হলে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের প্রতি আরো জোর দিতে হবে।

পাশাপাশি কোনো এজেন্ট যাতে প্রতারণা করতে না পারে, সেজন্যও তদারকি জোরদার করতে হবে। আর গ্রাম থেকে এনে পুরো টাকা শহরে বিতরণ করা যাবে না। এতে আঞ্চলিক বৈষম্য আরো প্রকট হবে।

তথ্যে দেখা গেছে, চলতি বছরের মার্চ শেষে এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটের মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যাংকের ৬৪ লাখ ৯৭ হাজার ৪৫১ জন গ্রাহক হিসাব খুলেছেন। এসব হিসাবে জমাকৃত অর্থের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৫৩৫ কোটি ৪ লাখ টাকা। বছরের ব্যবধানে গ্রাহক বেড়েছে ১২৩ দশমিক ৫৪ শতাংশ এবং আমানত বেড়েছে ১২৮ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

২০১৯ সালের মার্চ শেষে গ্রাহক ছিল ২৯ লাখ ৬ হাজার ৬৫৫ জন এবং জমাকৃত অর্থের স্থিতি ছিল ৩ হাজার ৭৩৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা। চলতি বছরের মার্চ শেষে এজেন্টের সংখ্যা দাঁড়ায় ৮ হাজার ২৬০টি এবং আউটলেট সংখ্যা ১১ হাজার ৮৭৫টিতে। মার্চ পর্যন্ত এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ঋণ বিতরণ হয়েছে ৬৭৩ কোটি ৯১ লাখ টাকা।

প্রবাসীদের পাঠানো অর্থ সহজে গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে যাওয়ায় এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন প্রবাসীরা। আলোচিত সময়ে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে রেমিট্যান্স এসেছে ১৯ হাজার ৫৩৫ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, গ্রামীণ সুবিধাবঞ্চিত পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠীর কাছে ব্যাংকিং সুবিধা পৌঁছে দিতে এজেন্ট ব্যাংকিং চালুর উদ্যোগ নেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর ও ব্যয়সাশ্রয়ী এ সেবায় গ্রাহক এজেন্ট আউটলেটে সহজেই তার বায়োমেট্রিক বা হাতের আঙুলের স্পর্শে হিসাব পরিচালনা করতে পারেন। ফলে কম খরচে সহজে ব্যাংকিংসেবা পাওয়ায় গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কাছে এটি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ব্যাংকগুলোও এ সেবা প্রদানে আশানুরূপ আগ্রহ দেখাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২০ সালের মার্চ পর্যন্ত মোট ২৬টি বাণিজ্যিক ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছ থেকে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের লাইসেন্স পেয়েছে। এর মধ্যে ২২টি ব্যাংক কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here