ইডিএফ ফান্ডের ঋণের সুযোগ ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত

0
278

সিনিয়র রিপোর্টার : বাংলাদেশ ব্যাংকের এক্সপোর্ট ডেভলপমেন্ট ফান্ড (রপ্তানি উন্নয়ন তহবিল বা ইডিএফ) থেকে ঋণ নেয়ার সীমা ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এখন থেকে এ ফান্ড থেকে ৩০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ নিতে পারবেন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) এবং বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিল অ্যাসোসিয়েশনের (বিটিএমইএ) গ্রাহকরা।

করোনাভাইরাসের কারণে স্তবির শিল্প ও বাণিজ্যিক কার্যক্রমে চলতি মূলধনের ঘাটতি মেটাতে বাংলাদেশ ব্যাংক ইডিএফ ঋণের সীমা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রবিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা ও নীতি বিভাগ এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করেছে।

সার্কুলার বলা হয়, ইডিএফ ফান্ড থেকে ঋণ নেয়ার সর্বোচ্চ সীমা ৩০ মিলিয়ন বা তিন কোটি ডলারে উন্নিত করা হল। চলতি বছরের (২০২০) শেষ সময় পর্যন্ত (৩১ ডিসেম্বর) এ সুবিধা দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বর্তমানে একজন গ্রাহক এ তহবিল থেকে সর্বোচ্চ ২৫ মিলিয়ন বা ২ কোটি ৫০ লাখ ডলার ঋণ নিতে পারেন।

সম্প্রতি বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএমএ) বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের কাছে এক আবেদনে ইডিএফের ঋণ সীমা বাড়িয়ে সাড়ে ৩ কোটি ডলার করার প্রস্তাব করে।

বিটিএমএ সভাপতি মোহাম্মাদ আলী খোকন এ বিষয়ে জানান, সাম্প্রতিক সময়ে করোনা পরিস্তিতির কারণে রপ্তানি সব আটকে গেছে। কোনোটা স্থগিত, কোনোটা রেফার্ড হয়ে গেছে। আবার ব্যাক টু ব্যাক পেমেন্ট সময়মতো আসছে না। হিসেব করে দেখা গেছে প্রায় সব ফান্ড এক বছরের জন্য আটকে গেছে। এখন উদ্যোক্তাদের একটা সুযোগ দরকার, যাতে আগামীতে রপ্তানিগুলো সময়মতো করতে পারে।

এর আগে করোনা ভাইরাসের কারণে ইডিএফ ফান্ডের আকার ও সুদহারে পরিবর্তন এনেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ৭ এপ্রিল প্রকাশিত কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সার্কুলার অনুযায়ী ইডিএফের আকার ৩ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার থেকে বাড়িয়ে ৫ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করা হয়েছে। পাশাপাশি কমানো হয়েছে সুদের হার।

পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত ইডিএফের ঋণের বিপরীতে লাইবর + ১ শতাংশ সুদ রাখবে বাংলাদেশ ব্যাংক। পাশাপাশি আমদানি-রফতানির সঙ্গে যুক্ত ব্যাংকের এডি শাখাগুলো গ্রাহক পর্যায় থেকে ২ শতাংশ মুনাফা করতে পারবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here