‘আগামীতে বাজার আরও স্থিতিশীল হবে’

0
1792

স্টাফ রিপোর্টার : পুঁজিবাজারের উন্নয়ন ও বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে যে কোনো পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি)।

রাজধানীর পূর্বানী হোটেলে সোমবার বিকেলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ট্রেকহোল্ডারদের নিয়ে আয়োজিত এক সিম্পোজিয়ামে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এম খায়রুল হোসেন।

অধ্যাপক ড. এম খায়রুল হোসেন বলেন, দেশের পুঁজিবাজার উন্নয়নে একটা দৃশ্যমান পরিবর্তন আসুক এটা সবাই চায়। তবে অনুঘটক হিসেবে কেউ এগিয়ে আসে না।

তিনি বলেন, পুঁজিবাজার উন্নয়নে ৫টি জিনিসের উপস্থিতি থাকতে হবে। এগুলো হলো- শক্তিশালী আইন কানুনের উপস্থিতি, দক্ষ জনবল, স্টেকহোল্ডার, তথ্য-প্রযুক্তি ও আস্থা। বিএসইসি এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে পরিবর্তন সাধনের চেষ্টা করছে বলে জানান তিনি।

তিনি ট্রেক হোল্ডারদের উদ্দেশে বলেন, পুঁজিবাজারে ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন এতো সহজে আসেনি। এটা সম্ভব হয়েছে সবাই মিলে কাজ করার কারণে। বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নিয়ে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের এখন ইতিবাচক ধারণা তৈরি হয়েছে। তারা এখন এই বাজারে বিনিয়োগে আগ্রহী হচ্ছে। বিএসইসি প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে যে বিদেশিরা বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নিয়ে আরও আস্থাশীল হোক।

পুঁজিবাজারে নতুন নতুন পণ্যের বিষয়ে তিনি বলেন, বাজারে নতুন কোনো প্রোডাক্ট চালু করার আগে সচেতনতার জন্য অন্তত ৬ মাস প্রচারণা চালানো হবে। নতুন প্রোডাক্ট চালু হলে আগামীতে বাজার আরও স্থিতিশীল হবে বলে মনে করেন তিনি।

বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক হেলাল উদ্দিন নিজামী বলেন, পুঁজিবাজারে আস্থার সংকট আছে বলে মনে হয় না। তবে যেটুকু সংকট রয়েছে তা বিনিয়োগকারীদের নিজস্ব সৃষ্টি বলে মনে করেন তিনি।

তিনি বলেন, এই বাজারে কার ভুমিকা কতটুকু তা পরিস্কার থাকা উচিত। বিশেষ করে ট্রেকহোল্ডারদের দায়িত্ব পরিস্কার থাকতে হবে। সেটা না থাকলে আস্থার সংকট বেড়ে যাবে। যত বেশি সচেতনতামূলক প্রোগ্রাম হাতে নেওয়া যাবে; তত আস্থার সংকট দুর হবে।

নিজামী বলেন, এক সময় গুজবকে কাজে লাগিয়ে পুঁজিবাজারে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করা হত। তবে বিএসইসির এনফোর্সমেন্ট বিভাগ শক্তিশালী হওয়ার কারণে তার আর সুযোগ নেই বলে জানান তিনি।

ডিএসই চেয়ারম্যান ও সাবেক বিচারপতি সিদ্দিকুর রহমান মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সিম্পোজিয়ামে বিএসইসির মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান ও ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্বপন কুমার বালা পৃথক পৃথক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। এসময় ডিএসইর পরিচালকবৃন্দ, ব্রোকারেজ অ্যাসোসিয়েশন ও ট্রেকহোল্ডাররা উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here