আইপিও অনুমোদনে আরো কঠোর হচ্ছে বিএসইসি

0
938

স্টাফ রিপোর্টার : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হতে আগ্রহী পাইপলাইনে থাকা কোম্পানির প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) অনুমোদনে আরো কঠোর হচ্ছে বাংলাদেশে সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। কোম্পানির প্রসপেক্টাসগুলো গভীরভাবে দেখার জন্য ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই) নতুন করে এক্সপার্ট প্যানেল গঠনের পরামর্শ দিয়েছে বিএসইসি। এক্সপার্টের প্যানেলের প্রতিবদেন দেখে সন্তুষ্ট হলেই নতুন করে আইপিওর অনুমোদন দেয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে কমিশন।

বৃহস্পতিবার ডিএসইর পরিচালনা পর্ষদ ও ডিএসই ব্রোকারস এসোসিয়েশনের (ডিবিএ) প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এক জরুরি বৈঠকে বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন এসব কথা বলেন।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএসইসির কমিশনার ড. স্বপন কুমার বালা এফসিএমএ, খোন্দকার কামালুজ্জামান, নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ আহমেদ, সাইফুর রহমান, মো. আনোয়ারুল ইসলামসহ ডিএসইর চার শেয়ারহোল্ডার পরিচালক মো. রকিবুর রহমান, শরীফ আতাউর রহমান, মিনহাজ মান্নান ইমন, মো. হানিফ ভূঁইয়া, স্বতন্ত্র পরিচালক অধ্যাপক মাসুদুর রহমান ও ডিবিএ প্রেসিডেন্ট মো. শাকিল রিজভী।

বৈঠকে ডিএসইর পরিচালকরা ও ডিবিএর প্রেসিডেন্ট বর্তমান বাজার পরিস্থিতি নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। এই পরিস্থিতিতে কমিশন বিনিয়োগকারীদের আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দেন। একই সঙ্গে বাজারে উন্নয়ন ও বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে বিএসইসি ও ডিএসই একযোগে পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন।

ডিএসই পরিচালক মিনহাজ মান্নান ইমন বলেন, কমিশনের সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। এই উদ্যোগগুলো বাস্তবায়ন হলে ভবিষ্যতে বাজারে আস্থা ফিরে পাবে। বাজারে এখন বিনিয়োগাকরীদের মধ্যে শুধু হাহাকার, অব্যাহত দর পতনে আস্থার সংকট তৈরি হয়েছে। সর্বোপরি বাজারে সার্বিক বিষয় সম্পর্কে বিএসইসিকে অবহিত করেছি। কমিশন এ বিষয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে।

সম্প্রতিক সময়ে যে সমস্ত আইপিও বাজারে এসেছে সেসব কোম্পানির প্রসপেক্টাস ও আর্থিক প্রতিবেদনের প্রতি বিনিয়োগকারীদের ন্যূনতম আস্থা নেই। গত ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত হাতে থাকা কোম্পানিগুলোর আইপিও অনুমোদনের ক্ষেত্রে কঠিন ও কঠোরতর সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য ডিএসইর পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়।

সভায় মো. রকিবুর রহমান, শরীফ আতাউর রহমান, অধ্যাপক মাসুদুর রহমান এবং মো. শাকিল রিজভী আইপিও এবং আর্থিক প্রতিবেদনে অনিয়মের বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরলে বিএসইসি জানায়, তারাও এসব অনিয়মের বিভিন্ন বিষয়ে পর্যালোচনা করেছে। কোম্পানিগুলোর আইপিও অনুমোদনের ক্ষেত্রে এখন থেকে আরো গভীর পর্যবেক্ষণ ও কঠোর পদক্ষেপ নেবে।

ডিএসইর পরিচালকদের অভিযোগের ভিত্তিতে কমিশন জানায়, আইপিওতে আসা কোম্পানিগুলোর উদ্যোক্তা ও প্লেসমেন্টধারী যদি একই ব্যক্তি হয়, সেক্ষেত্রে প্রমাণ সাপেক্ষে শেয়ার বিক্রির ক্ষেত্রে ১ বছরের পরিবর্তে ৩ বছর লক ইন আরোপ করা হবে। একই সঙ্গে বিগত দিনে যে সমস্ত কোম্পানি তালিকাভুক্ত হয়েছে তাদের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here