আইপিওতে এএফসি হেলথ, ৩টি শহরে দিচ্ছে বিশ্বমানের সেবা

0
1621

শাহীনুর ইসলাম : এএফসি হেলথ ফরটিস হার্ট ইনস্টিটিউট (অ্যাকটিভ ফাইন কেমিক্যাল) সম্প্রতি প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) অনুমোদন পেয়েছে। দেশের ৩টি বিভাগীয় শহর খুলনা, কুমিল্লা ও চট্টগ্রামে হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীদের হাসপাতালে সেবা দিচ্ছে বিশেষায়িত এ প্রতিষ্ঠানটি।

তবে চট্টগ্রামে হাসপাতালের একাংশ চালু থাকলেও চিকিৎসা সরঞ্জাম স্থাপন ও আধুনিকায়তনের কাজ চলছে। হৃদপিণ্ড সম্পর্কিত যে কোনো সমস্যায় হাসপাতালটি ওয়ান-স্টপ সেবাকেন্দ্র হিসেবে কাজ করছে।

এএফসি হেলথ ২০১২ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি ব্যবসায়িক নিবন্ধন পেয়ে ২০১৪ সালের ১৬ নভেম্বর কার্যক্রম শুরু করে। কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হলেন জুয়েল খান এবং চেয়ারম্যান এবিএম গোলাম মোস্তফা।

ভারতের বিখ্যাত ফরটিস এসকর্টস হার্ট ইনস্টিটিউট অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারের সহযোগিতায় বন্দর নগরী চট্টগ্রাম ও খুলনায় দুটি ইউনিট স্থাপন করা হয়। এরপরে কুমিল্লায় হার্ট ইনস্টিটিউট খুলেছে বাংলাদেশের এএফসি (অ্যাকটিভ ফাইন কেমিক্যাল) হেলথ লিমিটেড।

একই সঙ্গে এফসি হেলথ তাদের প্রোসপেক্টাসে ৪টি জেলায় ৪টি ফার্মেসি থাকার কথা উল্লেখ করেছে।

এএফসি হেলথের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠার পরে ২০১৪ সালে কোম্পানটি ৬০ লাখ টাকা মুনাফা করেছে। ২০১৫ সালে কোম্পানিটি ২ কোটি টাকা মুনাফা করে। ২০১৬ সালে ২ কোটি ২৪ লাখ, ২০১৭ সালে ৪ কোটি ৯৬ লাখ, ২০১৮ সালে ১৭ কোটি টাকা এবং ২০১৯ সালে ২১ কোটি ৩৪ লাখ টাকা মুনাফা করে।

২০১৯ সালের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির মোট সম্পদের পরিমাণ ৪৭১ কোটি টাকা।

খুলনার বিশেষায়িত এই হাসপাতালে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে হৃদরোগে আক্রান্ত ১০৬ বছর বয়সী এক নারীর প্রাইমারি পিসিআই (পারকুটেনিয়াস করোনারি ইন্টারভেনশন) সম্পন্ন করা হয়। সে সময়ে সংবাদ সম্মেলনে চিকিৎসকরা দাবি করেন, এত বেশি বয়সে কোনো রোগীর সফলভাবে প্রাইমারি পিসিআইয়ের ঘটনা দেশে এটাই প্রথম। এই সাফল্যের দাবিদার এএফসি হেলথ।

সেই সাফল্যের ধারা অব্যহত রাখার কথা বলেন খুলনা হাসপাতালের ফ্যাসিলিটি ডিরেক্টর রাকেশ কুমার জেসওয়াল। তিনি দাবি করেন, আমাদের হাসপাতালের শুরু থেকে অভিজ্ঞতা ও প্রযুক্তি বিনিময়ের মাধ্যমে চিকিৎসাসেবার মান বৃদ্ধিতে আমরা নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে আসছি এবং ভবিষ্যতেও এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

চট্টগ্রাম নগরে ২০১৭ সালের ২৬ মার্চ কার্ডিয়াক হাসপাতাল চালু করে এএফসি হেলথ লিমিটেড। ভারতের হৃদরোগ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ফরটিস এসকর্টস হার্ট ইনস্টিটিউটের সহযোগিতায় হাসপাতালটি চালু হয়।

চট্টগ্রাম নগরের ও আর নিজাম রোডে (পাঁচলাইশ থানার পাশে) এএফসি হেলথ ফরটিস হার্ট ইনস্টিটিউট চট্টগ্রাম নামের এই হাসপাতালের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনীতিবিষয়ক উপদেষ্টা মশিউর রহমান ও ফরটিস এসকর্টস হার্ট ইনস্টিটিউট, ভারতের চেয়ারম্যান অশোক শেঠ।

হৃদপিণ্ড সম্পর্কিত যে কোনো সমস্যায় হাসপাতালটি চট্টগ্রাম ও আশেপাশের জেলাগুলোর হৃদরোগীদের জন্য ওয়ান-স্টপ সেবাকেন্দ্র হিসেবে কাজ করছে। বিশ্বমানের কার্ডিওলজিস্ট এবং কার্ডিয়াক সার্জনদের সমন্বয়ে হাসপাতালটি দ্রুত হার্টের রোগ সনাক্তকরণ এবং সে অনুযায়ী মেডিক্যাল বা সার্জিক্যাল চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে।

বর্তমানে চট্টগ্রামে বিশেষায়িত এই হাসপাতালের একাংশ চালু থাকলেও নতুন করে হাসপাতালের পরিধি ও সেবা বাড়ানোর আরো কাজ চলছে। একই সঙ্গে হাসপাতালের অঙ্গসজ্জা ও আধুনিকায়নে বিভিন্ন চিকিৎসা সরঞ্জাম স্থাপন করা হচ্ছে, যা কোম্পানির প্রোসপেক্টাসে (২৮২ পৃষ্ঠা, নিচের ছবি) উল্লেখ করেছে কর্তৃপক্ষ।

কোম্পানির প্রোসপেক্টাস থেকে নেয়া ছবি

২০১৮ সালের নভেম্বরে এএফসি ফরটিস কুমিল্লা নামে আরেকটি হাসপাতালের যাত্রা শুরু হয়। কুমিল্লার আড়াইওরার আলেখারচরের হার্ট ইনস্টিটিউটটির অবস্থান। বর্তমানে এটি বেশ ভালো চলছে বলে দাবি করেন কর্তৃপক্ষ।

দেশে হৃদরোগ চিকিৎসার প্রসার ঘটেছে প্রায় ৪ দশকেরও বেশি। বাংলাদেশের হৃদরোগে আক্রান্ত অনেক রোগী সেবা নিতে ভারতে যেতেন। অন্যদিকে অসচ্ছল হৃদরোগীরা চিকিৎসার্থে ভারতে পাড়ি জমাতে পারতেন না। তাই হৃদরোগীদের সেবা দিতে দেশে প্রথম চাল করা হয় বিশ্বমানের হৃদরোগ হাসপাতাল।

এ রোগে যাদের সামর্থ্য ছিল না, তারা নিজেদের অদৃষ্টের হাতে তুলে দিতেন। সেই পরিস্থিতি এখন আর নেই। চিকিৎসার জন্য হৃদরোগীদের এখন ভারতে যেতে হয় না। চিকিৎসার অভাবে মরতে হয় না দরিদ্র রোগীদের। হৃদরোগ চিকিৎসায় এ পরিবর্তনে ভূমিকা রেখেছে এএফসি হেলথ ফোর্টিস হার্ট ইন্সটিটিউট।

দেশের ৩টি বিভাগীয় শহর খুলনা, কুমিল্লা ও চট্টগ্রামে হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীদের হাসপাতালে সেবা দিচ্ছে বিশেষায়িত এ প্রতিষ্ঠানটি।

এএফসি হেলথ ফরটিস হার্ট ইনস্টিটিউট পুঁজিবাজার থেকে উত্তোলিত ১৭ কোটি টাকায় হাসপাতালের যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম ক্রয় এবং আইপিও বাবদ খরচ করবে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১.৪৭ টাকা। আর শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) রয়েছে ১৩.১৩ টাকা।

উল্লেখ্য, ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে সিএপিএম এডভাইজরি ও ইমপেরিয়াল ক্যাপিটাল। আরো জানতে দেখুন কোম্পানির ওয়েবসাইট

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here