বেয়ারিশ ক্যান্ডেলে মার্কেটে আতংক, ডাউন ট্রেন্ডে যাচ্ছে বাজার

0
1831
স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ইনডেক্সে রোববার, ১৪ মে ট্রেড শেষে বেয়ারিশ ক্যান্ডেল দেখা গেছে। বাজারে বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম হ্রাস পেয়েছে। সেল পেশার শুরু থেকেই বেশি থাকায়, শেষ পর্যন্ত মার্কেট নেগেটিভ অবস্থায় শেষ হয়েছে। আগের দিনের চেয়ে প্রায় ৩৭ পয়েন্ট নিচে অবস্থান করছে মার্কেট।
টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস অনুযায়ী রোববার, মার্কেট দিন শুরু করেছে নেগেটিভ অবস্থান থেকে। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাজারে সেল পেশার বাড়তে থাকে। সেই সাথে কমতে থাকে শেয়ারের দাম। শেষ পর্যন্ত মার্কেট বেয়ারিশ সিগনাল দিয়েই শেষ হয়েছে। ভাল বড় লাল ক্যান্ডেলের কারণে আজ মার্কেটে কিছুটা আতংকের সৃষ্টি হয়। আগের দিনের চেয়ে অনেক কোম্পানির দাম কমেছে। গত কএকদিনের দিনের বেয়ারিশ ক্যান্ডেলের পর আবারও বেয়ারিশ ক্যান্ডেল হওয়ায় বাজারে ডাউন ট্রেন্ডের নিশ্চিত সম্ভাবনার কথাই বলছে।তবে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বাইয়ার পরের দিন মার্কেটে চলে আসলে, দিক পরিবর্তন  হতে পারে।
ডিএসই সাধারন সূচক দিনের শুরু থেকেই নেগেটিভ ট্রেন্ডে থাকে। ট্রেড শেষে এই ধারা অব্যাহত রেখে বেয়ারিশ ক্যান্ডেল তৈরি করেছে মার্কেট। ইনডেক্স গত দিনের চেয়ে ৩৬.১৪ পয়েন্ট নিচে অবস্থান করছে।রোববার ইন্ডেক্স বিগত দিনের ৫৪৯৬.২১ পয়েন্ট থেকে শুরু করে ৫৪৬০.০৭ পয়েন্টে শেষ হয় যা আগের দিনের তুলনায় ০.৬৬% কম।
বাজারে সর্বমোট ৩২৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার লেনদেন হয়েছে যার মধ্যে দাম বৃদ্ধি পেয়েছে ৮৬ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার এর, হ্রাস পেয়েছে ২০৫টির আর অপরিবর্তিত ছিল ৩৭টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। আজকের মোট লেনদেনের মূল্য দাঁড়িয়েছে ৫৫০.১০কোটি টাকায় আর মোট লেনদেন হয়েছে ১ লাখ ৫ হাজার ১৬০টি শেয়ার।
পরিশোধিত মূলধনের দিক থেকে দেখা যায়, বেশির ভাগ কোম্পানির ট্রেড আগের চেয়ে কমেছে। দেখা যাচ্ছে ৫০ থেকে ১০০ কোটি টাকার শেয়ার এবং ১০০ থেকে ৩০০ কোটি মূলধনী প্রতিষ্ঠানের লেনদেন কমেছে ১২.৮৯% এবং ১০.২৩%। সেই সাথে ৩০০ কোটি টাকা কোটি টাকার ওপরে পরিশোধিত মূলধনী প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কমেছে ২৯.০৮%। তবে ২০ থেকে ৫০ টাকা কোটি পরিশোধিত মূলধনী প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের ট্রেড বেড়েছে ১৮.৮৩%।
পিই রেশিওর ভিত্তিতে দেখলে দেখা যায় সব কোম্পানির শেয়ারের লেনদেন কমেছে। ০-২০ পিই রেশিওর শেয়ারের ট্রেড কমেছে ১৫.৯৪% । সেই সাথে ২০-৪০ পিই রেশিওর শেয়ারের লেনদেন কমেছে ১৩.৩১% এবং ৪০ এর বেশী পিই রেশিওর শেয়ারের লেনদেন কমেছে ৪৫.৬২%।
ক্যাটাগরির দিক থেকে দেখা যায় একই চিত্র। এ ক্যাটাগরি এবং বি ক্যাটাগরি কমেছে ১১.৮৩ শতাংশ এবং ১৩.৫৯ শতাংশ। জেড ক্যাটাগরির লেনদেন কমেছে ১৮.০৬ শতাংশ। তবে এন ক্যাটাগরি বেড়েছে  ২৯.৫৪ শতাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here