সিনিয়র রিপোর্টার : কৌশলগত ও অন্যান্য পরিবর্তনে এ বছরে বাজার আরো অনেক ভালো হবে। সে লক্ষে অনেক কৌশলগত পরিকল্পনা নির্ধারণ করা হয়েছে। বাস্তবায়ন হলে দৈনিক লেনদেন হবে আড়াই হাজার কোটি টাকা। তবে তা ২০১৮ সাল থেকে নিয়মিত। তা ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জেই হবে দৈনিক ২৫০০ কোটি টাকার লেনদেন।

এসব কথা বলেন ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কেএএম মাজেদুর রহমান। বতমান বাজার সম্পর্কে অনেকের সঙ্গে কথা হলে তারা কৌশলগত পরিবর্তনের হাওয়ার সঙ্গে পরিচালনা করতে পারলে লক্ষ্য অর্জন সম্ভব বলে মন্তব্য করেন।

বর্তমান বাজার সম্পর্কে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের কথা বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান। তিনি বৃদ্ধির আভাস দিয়ে বলেন, ব্যাংকের সুদ হার কমায় পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে গত মাস থেকে ক্রমাগতভাবে বিনিয়োগ এবং লেনদেন বেড়েছে। নতুন করে বাজারে বিদেশি ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা আসছে।

তিনি বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশে ইক্যুইটি মার্কেটের চেয়ে বন্ড মার্কেটে লেনদেন বেশি। বন্ড মার্কেট চালুর বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে ডিএসই। পরিকল্পনা অনুসারে কাজ করলে লেনদেন দ্বিগুণ হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

ডিএসইর পরিচালক ও সাবেক সভাপতি শাকিল রিজভী বলেন, বর্তমানে বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম ভাল হচ্ছে। এতোদিন নেগেটিভ ইক্যুইটিতে থাকা বিনিয়োগকারীরা লেনদেনে ফিরছেন। বন্ড মার্কেট, স্বল্প মূলধনি কোম্পানির জন্য আলাদা লেনদেন ব্যবস্থা চালুসহ ডিএসইর পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারলে আড়াই হাজার কোটি টাকা লেনদেন হতে পারে।

তিনি বলেন, চলতি বছরের প্রথম দিক থেকেই ডিএসইতে ক্রমাগতভাবে লেনদেন বাড়ছে। ফলে ২০১০ সালের পর থেকে ২শ’-৩শ’ কোটি টাকা লেনদেনে থেকে বেড়ে ১ হাজার থেকে দেড় হাজার কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। পাশাপাশি বাড়ছে সূচক, বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম ও বাজার মূলধন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here