মার্কেটওয়াচ : টানা আটদিন নিম্নমুখী প্রবণতা পার করছে স্বর্ণের আন্তর্জাতিক বাজার। এরই ধারায় বৃহস্পতিবার ধাতুটির দাম কমেছে দশমিক ৫ শতাংশ, যা ধাতুটির দরকে গত ৩০ জানুয়ারির পর সর্বনিম্নে নামিয়ে এনেছে। শক্তিশালী ডলার আর যুক্তরাষ্ট্রে সুদহার বাড়ানোর সম্ভাবনা ধাতুটির বাজারে নিম্নমুখী চাপ অব্যাহত রেখেছে।

নিউইয়র্ক মার্কেন্টাইল এক্সচেঞ্জের (নিমেক্স) কোমেক্স বিভাগে বৃহস্পতিবার আউন্সে ৬ ডলার ২০ সেন্ট দাম কমেছে স্বর্ণের। এপ্রিলে সরবরাহ চুক্তিতে দশমিক ৫ শতাংশ কমে এদিন প্রতি আউন্স স্বর্ণ লেনদেন হয় ১ হাজার ২০৩ ডলার ২০ সেন্টে। ফ্যাক্টসেটের তথ্যমতে, গত ৩০ জানুয়ারির পর এটিই ধাতুটির সর্বনিম্ন দাম। আর ডাও জোনসের হিসাব অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার দরপতনের মধ্য দিয়ে টানা আটদিন নিম্নমুখী প্রবণতা পার করল ধাতুটির বাজার।

কোমেক্সে স্বর্ণের সঙ্গে মিল রেখে দাম কমেছে রুপারও। এদিন আউন্সপ্রতি ২৬ সেন্ট দাম কমেছে ধাতুটির। আগামী মে মাসে সরবরাহ চুক্তিতে ১ দশমিক ৫ শতাংশ কমে প্রতি আউন্স রুপা বিক্রি হয়েছে ১৭ ডলার ৪ সেন্টে।

স্বর্ণের টানা দরপতনের পেছনে ভূমিকা রয়েছে শক্তিশালী ডলারের। ডলারের মান যখন শক্তিশালী হয়ে ওঠে, তখন স্বর্ণসহ ডলার দিয়ে নির্ধারিত বিভিন্ন ধাতু ও পণ্যের দাম কমতে শুরু করে। এবারো ঠিক তাই ঘটছে।

বৃহস্পতিবার ডলারের মান সামান্য কমলেও তা স্বর্ণের দরের নিম্নমুখী ধারাকে একটুও টলাতে পারেনি। কারণ অবনমন হওয়া সত্ত্বেও ডলার বেশ শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে এখনো। এদিন আইসিই ইউএস ডলার সূচক কমেছে দশমিক ২ শতাংশ। তবে বিশ্বের বহুল ব্যবহূত মুদ্রাটির সূচক মান এখনো ১০১ দশমিক ৮৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে, যাকে মোটামুটি শক্তিশালী বলা যায়। এই শক্তিশালী ডলারে ভর করেই কমছে স্বর্ণের দাম।

শক্তিশালী ডলারের পাশাপাশি স্বর্ণের বাজারকে নিম্নমুখী করতে ভূমিকা রাখছে সুদহার বৃদ্ধির সম্ভাবনা। গত বছরের ডিসেম্বরে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ (ফেড) সুদহার দশমিক ৫ শতাংশ থেকে ৭৫ শতাংশে উন্নীত করেছিল। ওই সময় ফেডপ্রধান ঘোষণা দিয়ে রেখেছিলেন, সামনের দিনগুলোয় সুদহার আরো অন্তত তিন দফায় বাড়ানো হতে পারে।

এরই মধ্যে বাজারে ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের মধ্যে গুজব ছড়িয়েছে, ১৪-১৫ মার্চ অনুষ্ঠেয় ফেডের বৈঠকে ফের সুহদার বাড়ানো হবে। ফেডও এমন ইঙ্গিত দিচ্ছে। এর প্রভাবে স্বর্ণের বাজারটি আরো চাপের মুখে পড়েছে সম্প্রতি।

স্বর্ণ ও রুপার পাশাপাশি বৃহস্পতিবার কোমেক্সে অন্য মূল্যবান ও শিল্প ধাতুরও দাম কমেছে। এর মধ্যে শিল্প ধাতু তামার দাম কমেছে পাউন্ডে ২ সেন্ট। মে মাসে সরবরাহ চুক্তিতে দশমিক ৮ শতাংশ কমে প্রতি পাউন্ড তামা বিক্রি হয়েছে ২ ডলার ৫৮ সেন্টে। একই প্রবণতা বিরাজ করছে মূল্যবান ধাতু প্লাটিনামের বাজারেও। বৃহস্পতিবার ধাতুটির দাম কমেছে আউন্সে ১২ ডলার ৩০ সেন্ট। এপ্রিলে সরবরাহ চুক্তিতে ১ দশমিক ৩ শতাংশ কমে প্রতি আউন্স প্লাটিনাম বিক্রি হয়েছে ৯৩৭ ডলার ২০ সেন্টে।

অন্যদিকে আগামী জুনে সরবরাহ চুক্তিতে আউন্সে ২২ ডলার ৩৫ সেন্ট দাম কমেছে প্যালাডিয়ামের। ২ দশমিক দশমিক ৯ শতাংশ কমে বৃহস্পতিবার কোমেক্সে প্রতি আউন্স প্যালাডিয়াম বিক্রি হয় ৭৪৮ ডলার ৫ সেন্টে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here