মার্চেন্ট ব্যাংকের ‘আইপিও অনুমোদন’ এখনি নয়

0
1302

বিশেষ প্রতিনিধি : প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর দূর্দশা কাটাতে আইপিও অনুমোদন প্রক্রিয়া থেকে সরে দাঁড়িয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। তাই শিগগিরই আর আইপিওতে আসছে না মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো।

কোম্পানি আইন অনুযায়ী, ১০ কোটি টাকার অধিক পরিশোধিত মূলধনী কোম্পানির মূলধন বাড়াতে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমোদনর প্রয়োজন হয়। এর কম পরিশোধিত মূলধনী কোম্পানির জন্য রেজিস্ট্রার অফ জয়েন স্টক কোম্পানির (আরজেএসসি) অনুমোদন প্রয়োজন হয়।

আইপিও অনুমোদন সম্পর্কে বিএসইসির মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান বলেন, বিদ্যমান আইনের মধ্যে থেকে কোম্পানিগুলোর উদ্যোক্তাদের মূলধন বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। তবে কোম্পানিগুলোর বর্তমান ব্যবসায়িক পরিস্থিতিতে আইপিও অনুমোদন দেয়ার সুযোগ নেই।

তবে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে কোম্পানিগুলোকে মূলধারায় ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।

কারণ উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, বাজারের অচলাবস্থা কাটানোর জন্য আইসিবি এবং বিএসইসির যৌথ উদ্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারী ও প্রতিষ্ঠানগুলোকে সল্পসুদে ঋণ দেয়া হয়েছে। মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোকে নেগেটিভ ইক্যুইটি থেকে বের করে আনতে বিভিন্ন উদ্যোগও হাতে নেয়া হয়েছে। এসব উদ্যোগ ফলপ্রসূ হলে মূলধন বাড়ানোর বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

পুঁজিবাজারে ২০১০ সালে ধ্বসের পর ২০১১ সালের শেষার্ধে বিএসইসি বাজার ঢেলে সাজানোর সিদ্ধান্ত নেয়। এর অংশ হিসেবে সল্প, মধ্য এবং দীর্ঘ মেয়াদে ২১ দফা কর্মপরিধি নির্ধারণ করা হয়। দীর্ঘকালীন কর্মপরিধির মধ্যে চার থেকে ছয় মাসের মধ্যে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর মূলধন বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়।

সে সময় নেগেটিভ ইক্যুইটিতে জর্জরিত মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর ভবিষ্যৎ নির্ধারনে বিষয়টিকে গুরুত্বেও সাথে নেওয়া হয়। মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর ইস্যু ম্যানেজমেন্ট ও আন্ডার-রাইটিং করার পর পোর্টফোলিওতে বিনিয়োগের ইক্যুইটি সল্পতা ছিল। পরিশোধিত মূলধনের ৫১ শতাংশ প্যারেন্ট কোম্পানির এবং ৪৯ শতাংশ অন্য যেকোনো উৎস থেকে সংগ্রহ করার অনুমতি দেওয়া হয়।

ঘটনায় মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো আইপিওর মাধ্যমে মূলধন উত্তোলন করতে পারবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করে। এরপরে ৫টি মার্চেন্ট ব্যাংক যথাযথ নিয়মের মধ্যে আইপিও অনুমোদন পেতে প্রোসপেক্টাস জমা দেয়। কিন্তু হঠাৎ করে ব্যাংকগুলোকে আইপিও অনুমোদন দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়িয়েছে বিএসইসি।

আইপিও অনুমোদন সম্পর্কে মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) প্রেসিডেন্ট মো. ছায়েদুর রহমান বলেন, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো এখনো পর্যন্ত প্রি-ম্যাচিউরড। অধিকাংশ কোম্পানি এখনো নেগেটিভ ইক্যুইটির। এখনো সেই চাপ থেকে বের হয়ে আসতে পারেনি। তাই আমরা আশা করি- নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইপিও অনুমোদনের বিষয়টি বিবেচনা করবে।

পেছনের খবর : লোকসানে অনেক মার্চেন্ট ব্যাংক!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here