খেলাপি ঋণে অন্যতম বাংলাদেশ

0
385

স্টাফ রিপোর্টার : ব্যাংকের অন্যতম কাজ হলো অর্থনীতি ও ব্যবসার চাকা সচল রাখতে ঋণ দেয়া এবং সে ঋণ আদায় করা। ব্যাংকের প্রধান সম্পদই হলো এ ঋণ। যেকোনো দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে শক্তিশালী ব্যাংকিং ব্যবস্থা অপরিহার্য।

২০০৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রে একের পর এক ব্যাংকের পতনের মধ্য দিয়ে যে আর্থিক সংকট বিশ্ব অর্থনীতিকে নাড়া দেয়, তা থেকেই ব্যাংকিং শিল্পকে ঝুঁকিমুক্ত রাখার জন্য নিরন্তরভাবে কাজ করে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও নিজ নিজ দেশের সরকার।

যদিও উন্নয়নশীল বিশ্বের অনেক দেশই আবার নতুন করে ব্যাংকিং খাতে নিয়ন্ত্রণহীন ঋণ প্রদান এবং তা আদায়ে ব্যর্থতার মধ্য দিয়ে অর্থনীতিতে ঝুঁকি তৈরি করেছে।

এশিয়ার উদীয়মান অর্থনীতির দেশগুলোর মধ্যে খেলাপি ঋণের চালচিত্র অনুসন্ধানে জানা যায়, বর্তমানে এ অঞ্চলে খেলাপি ঋণের অন্যতম শীর্ষ দেশ বাংলাদেশ। অর্থনীতির আকার ১ হাজার কোটি (১০ বিলিয়ন) ডলারের বেশি, এশিয়ার এমন দেশগুলোর মধ্যে উচ্চখেলাপি ঋণের হারে বাংলাদেশ রয়েছে তৃতীয় অবস্থানে। খেলাপি ঋণের হারে বাংলাদেশের উপরে রয়েছে কেবল যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান ও পাকিস্তান। ২০১৬ সালের তথ্যের ভিত্তিতে বিশ্বব্যাংক এ তথ্য দিয়েছে।

গত বছরের সেপ্টেম্বর শেষে দেশের ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের হার ছিল ১০ দশমিক ৩৪ শতাংশ। এর সঙ্গে অবলোপনকৃত ঋণ যোগ করলে খেলাপি ঋণের হার দাঁড়ায় ১৫ শতাংশের বেশি। খেলাপি ঋণের এ উচ্চহারকে সুদহার কমিয়ে আনা ও বিনিয়োগের প্রধান বাধা হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। পরিস্থিতির উন্নয়নে তাই এখনই এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলছেন তারা।

বিশ্বব্যাংকের তথ্যমতে, ২০১৬ সাল শেষে এশিয়ার উন্নত ও স্বল্পোন্নত দেশগুলোর মধ্যে খেলাপি ঋণের হার ১ শতাংশের নিচে রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া ও হংকংয়ের। দক্ষিণ কোরিয়ার খেলাপি ঋণের হার মাত্র দশমিক ৬ ও হংকংয়ের দশমিক ৯ শতাংশ।

খেলাপি ঋণের হার ১ শতাংশের উপরে ও ২ শতাংশের নিচে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর, জাপান, মালয়েশিয়া, চীন ও ফিলিপাইনের। ২০১৬ সাল শেষে অস্ট্রেলিয়ার খেলাপি ঋণের হার ছিল ১ দশমিক শূন্য ১, সিঙ্গাপুরের ১ দশমিক শূন্য ৬, জাপানের ১ দশমিক ৪৭, মালয়েশিয়ার ১ দশমিক ৬৫, চীনের ১ দশমিক ৭৪ ও ফিলিপাইনের ১ দশমিক ৯৫ শতাংশ। ২ শতাংশের উপরে ও ৩ শতাংশের নিচে খেলাপি ঋণ রয়েছে, এশিয়ার এমন দেশগুলোর মধ্যে কম্বোডিয়ার খেলাপি ঋণের হার ২ দশমিক ৫৯, থাইল্যান্ডের ২ দশমিক ৮৮, ভিয়েতনামের ২ দশমিক ৯০ ও শ্রীলংকার ২ দশমিক ৯৮ শতাংশ।

আর প্রতিবেশী ভারতে ২০১৬ সাল শেষে খেলাপি ঋণের হার দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

৩ হাজার ৫৩৯ কোটি ডলার অর্থনীতির দেশ মধ্য এশিয়ার তুর্কমেনিস্তান। মাথাপিছু ৬ হাজার ৪৭৯ ডলার আয়ের দেশটির ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের হার মাত্র দশমিক শূন্য ১ শতাংশ।

এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে এটিই খেলাপি ঋণের সর্বনিম্ন হার। অন্যদিকে ২২ হাজার কোটি ডলার অর্থনীতির বাংলাদেশে খেলাপি ঋণের হার ১০ শতাংশের বেশি। এ উচ্চহার বাংলাদেশকে তুলে এনেছে খেলাপি ঋণের হারে এশিয়ার অন্যতম শীর্ষ দেশের তালিকায়।

খেলাপি ঋণের উচ্চহারে বাংলাদেশের উপরে থাকা পাকিস্তানে এ হার ১১ দশমিক ১২ ও আফগানিস্তানে ১২ দশমিক ৩ শতাংশ। এর বাইরে এশিয়ার কয়েকটি দেশে খেলাপি ঋণের হার ১০ শতাংশের বেশি থাকলেও সেগুলোর অর্থনীতির আকার ১ হাজার কোটি ডলারের অনেক কম হওয়ায় এক্ষেত্রে বিবেচনায় নেয়া হয়নি। এমন দুটি দেশ হলো ভুটান ও মালদ্বীপ।

বিগত পাঁচ বছরে ব্যাংকিং খাত, বিশেষ করে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোয় সংঘটিত নানা অনিয়মের কারণে খেলাপি ঋণের হার অস্বাভাবিক বেড়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। ২০১১ থেকে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬৫ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা।

একই সময়ে অবলোপন করা হয়েছে প্রায় ৪৩ হাজার কোটি টাকার ঋণ। সব মিলিয়ে দেশের ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ১ লাখ ৮ হাজার কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০১১ সালে দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের খেলাপি ঋণ ছিল ৯ হাজার ১৭০ কোটি টাকা, ওই সময় পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর বিতরণকৃত ঋণের যা ১১ দশমিক ২৭ শতাংশ। একই সময়ে রাষ্ট্রায়ত্ত বিডিবিএল, বেসিক, কৃষি ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৫ হাজার ৬৪৫ কোটি টাকা, যা ছিল ব্যাংকগুলোর বিতরণকৃত ঋণের ২৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। অথচ ২০১১ সালের ডিসেম্বর শেষে দেশের বেসরকারি ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণ ছিল ৭ হাজার ২০২ কোটি ও বিদেশী ব্যাংকগুলোর ৬২৬ কোটি টাকা। সবমিলিয়ে ২০১১ সাল শেষে দেশের ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ২২ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকা, যা ওই সময় পর্যন্ত বিতরণকৃত ঋণের ৬ দশমিক ১২ শতাংশ।

পাঁচ বছরের ব্যবধানে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী, অগ্রণী, জনতা, রূপালী, বিডিবিএল ও বেসিক ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার ৯৫৬ কোটি টাকা। একই সময়ে বিশেষায়িত কৃষি ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৮১৬ কোটি টাকা। অর্থাৎ দেশের মোট খেলাপি ঋণের অর্ধেকেরও বেশি সৃষ্টি করেছে রাষ্ট্রায়ত্ত আট ব্যাংক।

বিগত পাঁচ বছরে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণ বৃদ্ধির প্রভাব পড়েছে দেশের বেসরকারি ও বিদেশী খাতের ব্যাংকগুলোর ওপর। গত সেপ্টেম্বর শেষে দেশের বেসরকারি খাতের ৩৯টি ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৭ হাজার ৬৮৮ কোটি টাকা। একই সময়ে বিদেশী খাতের নয়টি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ রয়েছে ২ হাজার ২৬৯ কোটি টাকা।