২৫টি কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ

0
3691

স্টাফ রিপোর্টার : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ২৫টি কোম্পানির দ্বিতীয় প্রান্তিক আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। সোমবার কোম্পানিগুলোর আর্থিক প্রতিবেদনের চিত্র তুলে ধরা হলো-

হামিদ ফেব্রিক্স লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানিটির সর্বশেষ ৬ মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০১৬) শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬০ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৫৮ পয়সা।

আলোচ্য সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৩৮ টাকা ৬০ পয়সা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ৩৮ টাকা ১ পয়সা। শেষ ৩ মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর, ১৬) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৩ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৩ পয়সা।

কোহিনুর কেমিক্যাল লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানিটির সর্বশেষ ৬ মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০১৬) শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ টাকা ৫৯ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪ টাকা ১৫ পয়সা।

কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, আলোচ্য সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৩৯ টাকা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ৩০ টাকা ১৩ পয়সা।

সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানিটির সর্বশেষ ৬ মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০১৬) শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১৫ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৯৫ পয়সা।

কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, আলোচ্য সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২২ টাকা ৫০ পয়সা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ২৩ টাকা ২৯ পয়সা।

ডোরিন পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড সিস্টেমস লিমিটেড : প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৩.৬৬ টাকা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.৬৬ টাকা।

যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.৪১ টাকা। এছাড়া শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.২৭ টাকা  এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩২.০৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে এনওসিএফপিএস ছিল ১.৩৬ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিল ৩৪.৩৪ টাকা।

এদিকে, গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৮১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.১৮ টাকা।

ফারইস্ট নিটিং অ্যান্ড ডাইং ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড : কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে। দ্বিতীয় প্রান্তিকে ফারইস্ট নিটিংয়ের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৯৮ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.১৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস)  হয়েছে ১৯.৯৬ টাকা।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৭৭ টাকা,  এনওসিএফপিএস ছিল ১.৩৯ টাকা (নেগেটিভ) এবং ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২১.৩৭ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.২১ টাকা।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস)  হয়েছে ০.৬১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.৪৩ টাকা।

কাশেম ড্রাইসেল : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৪৮ টাকা। আগের বছর একই সময় ছিল ১.৪৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.০২ টাকা।

এছাড়া শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.৫৯ টাকা  এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪৪.১৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে এনওসিএফপিএস ছিল ২.৯৯ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিল ৪৭.৭৬ টাকা।

গ্লোবাল হেভি কেবিক্যালস লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫০ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.২৭ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.০৩ টাকা।

এছাড়া শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.২৫ টাকা  এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৫৩.২৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে এনওসিএফপিএস ছিল ০.৮৫ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিল ৫৩.২০ টাকা।

এদিকে, গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.৩৫ টাকা (নেগেটিভ)।

বিডি কম্পউটার্স : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭১ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.০৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৬.১৭ টাকা।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৭৯ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.৫৩ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৫.০৫ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০৮ টাকা বা ১০.১৩ শতাংশ।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.৪০ টাকা।

আরামিট সিমেন্ট : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৬৬ টাকা। আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি আয় ছিল ০.০৪ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির লোকসানে রয়েছে।

এছাড়া শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.২৯ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩.৪৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে এনওসিএফপিএস ছিল ৩.৭৩ টাকা (নেগেটিভ) এবং এনএভিপিএস ছিল ১৪.৩৩ টাকা।

বঙ্গজ লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৩০ টাকা। যা আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি আয় ছিল ০.৯৬ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটি লোকসানে রয়েছে।

এছাড়া শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.২৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২২.৪৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে এনওসিএফপিএস ছিল ০.৯৪ টাকা (নেগেটিভ) এবং এনএভিপিএস ছিল ২২.৭৬ টাকা।

এদিকে, গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.১৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.১৯ টাকা।

আরামিট লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.০২ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১১.৪৪ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৪৯.০৪ টাকা।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৪.৯০ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৫.২০ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৪৩.১০ টাকা।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৫৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ২.৩৭ টাকা।

জুট স্পিনার্স : দ্বিতীয় প্রান্তিকে জুট স্পিনার্সের শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ২৩.৪৩ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৭.৫৪ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৭০.৮৭ টাকা (নেগেটিভ)।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১৭.২৪ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১০.৮৯ টাকা এবং ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১২২.৪২ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির লোকসান ৬.১৯ টাকা।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ১৩.২৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে লোকসান ছিল ৭.৫৪ টাকা।

জাহিন স্পিনিং মিলস লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৮৮ টাকা। আগের বছর একই সময় ছিল ০.৪০ টাকা ।

এছাড়া শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৪৭ টাকা  এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩.৫৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে এনওসিএফপিএস ছিল ১.৪২ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিল ১৪.৫৮০ টাকা।

এদিকে, গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪২ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.১০ (নেগেটিভ) টাকা ।

অলিম্পিক ইন্ডা: লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪.১৯ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.৮১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৩ টাকা।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৩.৮০ টাকা,  এনওসিএফপিএস ছিল ৬.৫৯ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৯.২৪ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.৩৯ টাকা বা ১০.২৬ শতাংশ।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.১১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ২.০৭ টাকা।

জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৮৯ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৯৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৬.২৭ টাকা।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.২৬ টাকা,  এনওসিএফপিএস ছিল ২.৫৮ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৫.৪৫ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.৪৪ টাকা বা ৩৫ শতাংশ।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.৬১ টাকা।

প্রাইম টেক্সটাইল : দ্বিতীয় প্রান্তিকে প্রাইম টেক্সটাইল শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৭ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.৭৮ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৫০.৬৯ টাকা।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৪৮ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৬৬ টাকা এবং ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৫১.০৭ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০১ টাকা।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.২৬ টাকা।

সালভো কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪১ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.১৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১১.৫৩ টাকা।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.২৯ টাকা,  এনওসিএফপিএস ছিল ০.৯৮ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১১.১২ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.১২ টাকা বা ৪১.৩৮ শতাংশ।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.১০ টাকা।

রংপুর ডেইরী এন্ড ফুড প্রোডাক্টস লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২২ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৪৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৬.৩৯ টাকা।

যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.২৪ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৫১ টাকা এবং ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৭.৭৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.০২ টাকা বা ৮.৩৩ শতাংশ।

গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৬) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.০৮ টাকা।

ফার্মা এইডস লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪.৯০ টাকা। আগের বছর একই সময় ছিল ৪.০১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ০.৮৯ টাকা।

এছাড়া শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.০৩ টাকা (নেগেটিভ)  এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪৪.৩৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে এনওসিএফপিএস ছিল ১.৩৩ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিল ৪২.৪৫ টাকা।

এক্সিম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: দ্বিতীয় প্রান্তিকে ফান্ডের ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.১৯ টাকা এবং ইউনিট প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিইউ) হয়েছে ০.০১ টাকা (নেগেটিভ)। যা আগের বছর একই সময় ইপিইউ ছিল ০.১৫ টাকা এবং এনওসিএফপিইউ ছিল ০.১৬ টাকা।

আর বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত ইউনিট প্রতি সম্পদ হয়েছে ১১.২২ টাকা যা ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১১ টাকা এবং ক্রয়মূল্য অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি হয়েছে ১০.৪৭ টাকা যা ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১০.৭৫ টাকা।

এছাড়া গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’১৫) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.০৫ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.০৬ টাকা।

ফার্স্ট বাংলাদেশ ফিক্সড ইনকাম মিউচ্যুয়াল ফান্ড: দ্বিতীয় প্রান্তিকে ফান্ডের ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.০৪ টাকা এবং ইউনিট প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিইউ) হয়েছে ০.০৬ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ইপিইউ ছিল ০.১৮ টাকা এবং এনওসিএফপিইউ ছিল ০.২২ টাকা।

আর বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত ইউনিট প্রতি সম্পদ হয়েছে ১১.২৯ টাকা যা ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১১.২৩ টাকা এবং ক্রয়মূল্য অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি হয়েছে ১০.৪৮ টাকা যা ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১০.৯৯ টাকা।

এছাড়া গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’১৫) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.০২ টাকা (নেগেটিভ)। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.০৯ টাকা।

ফার্স্ট জনতা মিউচ্যুয়াল ফান্ড: দ্বিতীয় প্রান্তিকে ফান্ডের ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.৩৫ টাকা এবং ইউনিট প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিইউ) হয়েছে ০.৩০ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ইপিইউ ছিল ০.৩১ টাকা এবং এনওসিএফপিইউ ছিল ০.২৮ টাকা।

আর বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত ইউনিট প্রতি সম্পদ হয়েছে ১১.০২ টাকা যা ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১১.১৯ টাকা এবং ক্রয়মূল্য অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি হয়েছে ১০.৭৩ টাকা যা ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১০.৮৪ টাকা।

এছাড়া গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’১৫) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.০৭ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.০৯ টাকা।

আইএফআইসি ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: দ্বিতীয় প্রান্তিকে ফান্ডের ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.৩৪ টাকা এবং ইউনিট প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিইউ) হয়েছে ০.১০ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ইপিইউ ছিল ০.২৭ টাকা এবং এনওসিএফপিইউ ছিল ০.১৭ টাকা।

আর বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত ইউনিট প্রতি সম্পদ হয়েছে ১০.৯১ টাকা যা ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১০.৯৩ টাকা এবং ক্রয়মূল্য অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি হয়েছে ১০.৭০ টাকা যা ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১১.১০ টাকা।

এছাড়া গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’১৫) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.২৮ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.০৫ টাকা।

ট্রাস্ট ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড: দ্বিতীয় প্রান্তিকে ফান্ডের ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.১১ টাকা এবং ইউনিট প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিইউ) হয়েছে ০.০৯ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ইপিইউ ছিল ০.২২ টাকা এবং এনওসিএফপিইউ ছিল ০.২৩ টাকা।

আর বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত ইউনিট প্রতি সম্পদ হয়েছে ১১.২৬ টাকা যা ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১১.২৯ টাকা এবং ক্রয়মূল্য অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি হয়েছে ১০.৪৭ টাকা যা ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১০.৮২ টাকা।

এছাড়া গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’১৫) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.০৭ টাকা (নেগেটিভ)। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.০৬ টাকা।

ইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে এ ফান্ডের ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.৩৭ টাকা এবং ইউনিট প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিইউ) হয়েছে ০.১৭ টাকা (নেগেটিভ)। যা আগের বছর একই সময় ইপিইউ ছিল ০.৩৮ টাকা এবং এনওসিএফপিইউ ছিল ০.১৮ টাকা।

আর বাজার মূল্য অনুযায়ী ফান্ডটির ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত ইউনিট প্রতি সম্পদ হয়েছে ১০.৮০ টাকা যা ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১১.০৯ টাকা এবং ক্রয়মূল্য অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি হয়েছে ১০.৬২ টাকা যা ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত ছিলো ১১.৪৬ টাকা।

এছাড়া গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’১৫) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি আয় (ইপিইউ) হয়েছে ০.২৩ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.১০ টাকা (নেগেটিভ)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here