সেরা ১৩টি কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন

0
7950

স্টাফ রিপোর্টার : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিভিন্ন খাতের ১৩টি কোম্পানি বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় প্রান্তিকের (জুলাই-ডিসেম্বর, ১৬) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানিগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত নিচে

অ্যাপেক্স ট্যানারি : চামড়া শিল্প খাতের কোম্পানি অ্যাপেক্স ট্যানারির দ্বিতীয় প্রান্তিকে (শেষ ৬ মাসে) ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৮৩ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ৮২ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ৭২ টাকা ৬৫ পয়সা।

শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৭৩ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৩ পয়সা।

এসিআই ফর্মুলেশন : দ্বিতীয় প্রান্তিকে (শেষ ৬ মাসে) সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ৩ টাকা ৮৩ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ৩ টাকা ৪৭ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি এনএভি হয়েছে ৫২ টাকা ৩৪ পয়সা।

শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ৩ টাকা ১৬ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৫৮ পয়সা।

এসিআই লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকের  (জুলাই-ডিসেম্বর’১৬) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে।

দ্বিতীয় প্রান্তিকে এসিআই লিমিটেডের শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১২.৮৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ১০.৯৪ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির ইপিএস বেড়েছে ১.৮৯ টাকা বা ১৭.২৭ শতাংশ। একই সময়ে (জুলাই-ডিসেম্বর ২০১৬) কোম্পানির নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো হয়েছে ১.০৮ টাকা, যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ২৪.৫০ টাকা (নেগেটিভ)।

এছাড়া আলোচিত সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাড়িয়ে ২২৯.৩০ টাকা। যা ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে ছিল ২২১.৫৬ টাকা।

এদিকে, গত তিন মাসে  (অক্টোবর-ডিসেম্বর‘১৬) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮.৭৪ টাকা। যা এর আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৭.৫২ টাকা।

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যাল : দ্বিতীয় প্রান্তিকে (শেষ ৬ মাসে) ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ৭৪ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৩৩ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ৫৯ টাকা ৭ পয়সা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ৫৮ টাকা ২০ পয়সা।

শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৪৭ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ২৯ পয়সা।

শাহজিবাজার পাওয়ার : কোম্পানির সর্বশেষ ৬ মাসে ইপিএস হয়েছে ৩ টাকা ৭৭ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৩৩ পয়সা। এ হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ১ টাকা ৪৪ পয়সা বা ৬১ দশমিক ৮০ শতাংশ। আলোচ্য সময়ে এনএভি হয়েছে ৩৫ টাকা ৮৪ পয়সা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ৩২ টাকা ৬ পয়সা।

শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৮৫ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ১৮ পয়সা। এ হিসেবে ইপিএস বেড়েছে ৬৭ পয়সা বা ৫৬ দশমিক ৭৭ শতাংশ।

আনোয়ার গ্যালভানাইজিং : দ্বিতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৫ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ৩৫ পয়সা।

এ সময়ে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ৮ টাকা ৮৮ পয়সা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ছিল ৮ টাকা ৪২ পয়সা। শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২৩ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৭ পয়সা।

বেক্সিমকো লিমিটেড : শেষ ৬ মাসে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৬ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ৪৪ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ৭৩ টাকা ৬২ পয়সা। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ৮৩ টাকা ৮৪ পয়সা। শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির  ইপিএস হয়েছে ২২ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৮ পয়সা।

বেক্সিমকো সিনথেটিকস : দ্বিতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৯৯ পয়সা। আগের বছরে একই সময়ে এই লোকসান ছিল ৩৮ পয়সা।

আলোচ্য সময়ে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ২২ টাকা ৩৪ পয়সা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ২৩ টাকা ৩৪ পয়সা। শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৫৭ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৩ পয়সা।

শাইনপুকুর সিরামিকস : দ্বিতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২৯ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ১১ পয়সা। এ সময়ে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ২৭ টাকা ৮০ পয়সা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ২৮ টাকা ৯ পয়সা।

শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১৩ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ পয়সা মুনাফায়।

বিএসআরএম স্টিলস : দ্বিতীয় প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে ৩ টাকা ২৬ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ৩ টাকা ৩৮ পয়সা। শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৩৮ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৫৫ পয়সা।

বিএসআরএম লিমিটেড : বিএসআরএম স্টিল রি-রোলিং মিলস দ্বিতীয় প্রান্তিকে পরিচালনা পর্ষদ শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ১০ শতাংশ অন্তর্বর্তীকালীন নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। শেষ ৬ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ১ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ৩ টাকা ২৯ পয়সা।

এ সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি এনএভি হয়েছে ৫৪ টাকা ৮৬ পয়সা। যা আগের বছর একইসময় ছিল ৫২ টাকা ৮৪ পয়সা। শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ২৬ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৫২ পয়সা।

ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টস : দ্বিতীয় প্রান্তিকের ইপিএস হয়েছে ৯৫ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ৯৩ পয়সা। এ সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৯০ টাকা ১৮ পয়সা।

শেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৬৯ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২১ পয়সা।

জিকিউ বলপেন ইন্ডাস্ট্রিজ : শেষ ৬ মাসে ইপিএস হয়েছে ১৭ পয়সা। যা আগের বছরে একই সময়ে ৩৫ পয়সা লোকসানে ছিল। এ সময়ে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ১৫৬ টাকা ৫ পয়সা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here