দর সংশোধন হলেও ব্যাংকের প্রভাবে ভাসছে বাজার

0
1473

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের পুরো শেয়ারবাজার ক্রমে ব্যাংকনির্ভর হয়ে পড়ছে। বিনিয়োগকারীদের বড় অংশ ঝুঁকে পড়েছেন ব্যাংকের শেয়ার কেনাকাটায়। যাদের হাতে নগদ অর্থ নেই, তারা অন্য শেয়ার বিক্রি করে কিনছেন ব্যাংকের শেয়ার। এমন তথ্য দিয়েছেন বিভিন্ন ব্রোকারেজ হাউস ও মার্চেন্ট ব্যাংকের কর্মকর্তারা।

এতে প্রতিদিনই বাড়ছে ব্যাংকের শেয়ার দর ও লেনদেন। এ কারণে বেশিরভাগ শেয়ারের দর কমার পরও সূচকে তার প্রভাব নেই। মঙ্গলবারও ঘুরেফিরে ব্যাংকের শেয়ারের দাপটের চিত্র দেখা গেছে বাজারে।

ক্লোজিং প্রাইসের হিসাবে বুধবার ডিএসইতে ব্যাংক খাতের ৩০ কোম্পানির সবক’টির দর বেড়েছে। এছাড়া এ খাতেই ৫৬৫ কোটি ৮২ লাখ টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে, যা মোট লেনদেনের ২৮ শতাংশেরও বেশি। বুধবার ডিএসইতে ২ হাজার ১৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা প্রকৌশল খাতের ৩৩ কোম্পানির ২১১ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। অপর শেয়ারবাজার সিএসইতে ২৭২ শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের প্রায় ১২০ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরমধ্যে ব্যাংক খাতেরই ২৯ কোম্পানির ৪০ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা মোট লেনদেনের সোয়া ৩৪ শতাংশ।

ব্যাংক খাতের প্রভাবে অন্য সব খাতে শেয়ার দর ও লেনদেন কমছে। বুধবার ডিএসইতে ৩২৮ কোম্পানির শেয়ার ও ফান্ডের মধ্যে ৬১ শতাংশের বাজার দর কমেছে। তারপরও ব্যাংক খাতের শেয়ার দর বৃদ্ধির ওপর ভর করে ডিএসইএক্স সূচক আরও ৩৮ পয়েন্ট বেড়ে নতুন রেকর্ড অবস্থান ৫৭০৮ পয়েন্টে উঠেছে।

বাজার-সংশ্লিষ্টরা জানান, গত দেড় মাস ধরে উল্লেখযোগ্য দরবৃদ্ধির পর অনেক শেয়ারের দর সংশোধন (অনেকটা বৃদ্ধির পর শেয়ার দর কিছুটা হ্রাস) অত্যাবশ্যক হয়ে পড়েছে। তবে ব্যাংক খাতের শেয়ারদর বৃদ্ধির কারণে তা হচ্ছে না।

আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টের এমডি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, সব সূচকের ওঠানামা দিয়েই বাজারের উত্থান-পতন মূল্যায়ন করে। বাজার সূচক বৃদ্ধি পাওয়ায় সকলেই বাজারকে ঊর্ধ্বমুখী বলে ধরে নিচ্ছেন। ব্যাংক খাতের কোম্পানিগুলোর বাজার মূলধন বেশি হওয়ায় সূচকে এর ইতিবাচক প্রভাব বেশি। যদিও কয়েকদিন ধরে অন্য খাতের অনেক শেয়ারের দর কমছে।

ব্যাংক খাতের শেয়ারে বিনিয়োগকারীদের এতো আগ্রহের বিষয়ে জানতে চাইলে বাজার-সংশ্লিষ্টরা জানান, আর্থিক হিসাব বছর শেষে ব্যাংক খাতের কোম্পানিগুলোর আসন্ন লভ্যাংশ ঘোষণাকে কেন্দ্র করে এ খাতে আগ্রহ বাড়ছে।

জানতে চাইলে ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ব্যবসায় অনুষদ বিভাগের ডিন ও শেয়ারবাজার বিশ্লেষক মোহাম্মদ মুসা মনে করেন ক্রমাগত বৃদ্ধির পর অনেকে মনে করছেন বাজার দর খানিকটা সংশোধন হওয়া প্রয়োজন। তিনি বলেন, আমি মনে করি মঙ্গলবার এমন সংশোধন হয়েছে। কেননা ৬১ শতাংশ শেয়ারের দর কমেছে।

গত এক মাসে ব্যাংক খাতের সার্বিক শেয়ার দর ৩০ শতাংশেরও বেশি বেড়েছে। শুধু গতকালই এ খাতের সার্বিক দর বেড়েছে প্রায় ৫ শতাংশ। এরপরও ব্যাংকের শেয়ারগুলোর দর এখনও অতিমূল্যায়িত হয়নি বলে মনে করেন মোহাম্মদ মুসা।

তিনি বলেন, কয়েক বছরে কয়েকটি ব্যাংকের বড় ঋণ কেলেঙ্কারি এবং খেলাপির নেতিবাচক প্রভাব ছিল পুরো ব্যাংক খাতে। এ কারণে ব্যাংকগুলোর শেয়ার দর অনেকটাই কমেছিল। সেখান থেকে ব্যাংকগুলো কিছুটা দর ফিরে পাচ্ছে। তবে টানা বৃদ্ধির পর এ খাতের শেয়ার দরেও কিছু সংশোধন আসন্ন বলেও মত দেন তিনি।

সার্বিকভাবে বুধবার ডিএসইতে ১১৪ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের দর বেড়েছে, কমেছে ১৯৯টির। অপরিবর্তিত ছিল ১৫টির দর। এছাড়া সিএসইতে ৯৫টির দর বৃদ্ধির বিপরীতে ১৬৫টিরই দর কমেছে। ডিএসইতে ব্যাংক খাতের বাইরে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক খাতের ৬ কোম্পানির দর বৃদ্ধির বিপরীতে ১৪টির দর কমেছে।

জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের দুটির দর বৃদ্ধির বিপরীতে ১৬টির, প্রকৌশল খাতের ৩টির দর বৃদ্ধির বিপরীতে ২৯টির, ওষুধ ও রসায়ন খাতের ৬টির দর বৃদ্ধির বিপরীতে ২২টির, বস্ত্র খাতের ৮টির দর বৃদ্ধির বিপরীতে ৩৩টির দর কমেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here