নতুন পাওয়ার প্লান্ট পাচ্ছে ৩টি কোম্পানি

0
2634

স্টাফ রিপোর্টার : নতুন পাওয়ার প্লান্ট পাচ্ছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। তাদের মধ্যে রয়েছে কনফিডেন্স সিমেন্ট, শাশা ডেনিমস ও ডরিন পাওয়ার লিমিটেড। বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

আর্থিকভাবে যোগ্য প্রস্তাবগুলোর মধ্যে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত তিনটি কোম্পানির প্রস্তাবও রয়েছে। এসব সরকারের কাছে বিদ্যুৎ বিক্রির জন্য সর্বনিম্ন দর প্রস্তাব করেছে। এর আগে কারিগরি যোগ্যতার বাছাই হয়ে যাওয়ায়, কোম্পানিগুলোর বিদ্যুৎকেন্দ্র বরাদ্দ পেতে আর কোনো বাধা থাকছে না।

সূত্র মতে, নতুন পাওয়ার প্ল্যান্ট পাওয়া পুঁজিবাজারের কোম্পানিগুলোর মধ্যে কনফিডেন্স সিমেন্ট ও কনফিডেন্স স্টিল লিমিটেড বগুড়া ও রংপুরের বিদ্যুৎকেন্দ্র দুটি পেয়েছে, চাঁদপুরের বিদ্যুৎকেন্দ্রটি  পেয়েছে ডরিন পাওয়ার লিমিটেড। বাগেরহাটের কেন্দ্রটি পেয়েছে শাশা ডেনিমসের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এনার্জিস পাওয়ার।

কনফিডেন্স সিমেন্ট রঙপুর বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ বিক্রির দর প্রস্তাব করেছে ১০ দশমিক ৪৩ সেন্ট। স্থানীয় মুদ্রায় প্রায় ৮ টাকা ১৪ পয়সা। এ কেন্দ্রে সর্বোচ্চ ১০ দশমিক ৬৯ সেন্ট দর প্রস্তাব করে মোশাররফ হোসেন স্পিনিং মিলস।

চাঁদপুরে ডরিন পাওয়ার ১০ দশমিক ০৮ সেন্ট দর প্রস্তাব করে সর্বনিম্ন দরদাতা হয়েছে। এখানে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরদাতা প্রিসিশন্স, দর ১০ দশমিক ২৮ সেন্ট।

বাগেরহাটে এক্সসিএল-ইপিসিএল কনসোর্টিয়াম ৯ দশমিক ৯০ সেন্ট দর প্রস্তাব করে কেন্দ্রটি বরাদ্দ পেতে যাচ্ছে। এখানে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরদাতা হচ্ছে ডরিন পাওয়ার (৯ দশমিক ৯৮ সেন্ট)।এখানে তৃতীয় সর্বনিম্ন দর (১০ দশমিক ২৮ সেন্ট) প্রস্তাব করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত অপর কোম্পানি বারাকা পাওয়ার।  এখানে সামিট ১০ দশমিক ৩০ সেন্ট এবং ইউনাইটেড এন্টারপ্রাইজ ১১ দশমিক ১৯ সেন্ট প্রস্তাব করেছে।

বগুরায় ১০ দশমিক ৪৮ সেন্ট দর প্রস্তাব করে সর্বনিম্ন হয়েছে কনফিডেন্স স্টিল। এখানে মিডল্যান্ডের প্রস্তাব ১০ দশমিক ৫১ সেন্ট।

চৌমহনীর বিদ্যুৎ কেন্দ্র বরাদ্দ পেয়েছে এনার্জি প্রিমা। তাদের প্রস্তাবিত দর ১০ দশমিক ৬৯ সেন্ট। এখানে ম্যাক্স গ্রুপের প্রস্তাব ছিল ১০ দশমিক ৭৮ সেন্ট।

ঠাকুরগাঁওয়ে এনার্জিপ্যাক পাওয়ার ১০ দশমিক ৪৪ সেন্ট দর প্রস্তাব করে কেন্দ্রটির বরাদ্দ পেতে যাচ্ছে। এখানে ম্যাক্সের প্রস্তাব ১০ দশমিক ৭৬ সেন্ট।

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) নতুন ১০টি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মধ্য থেকে ছয়টির আর্থিক দর প্রস্তাব খুলেছে। বাকী চারটি কেন্দ্রের নিলামে অংশগ্রহণকারীদের পক্ষ থেকে কিছু অভিযোগ থাকায় সেগুলোর আর্থিক প্রস্তাব খোলা হয়নি।

বিপিডিবি সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন কেন্দ্রে যারা সর্বনিম্ন দরদাতা হয়েছে, তারাই কেন্দ্রের বরাদ্দ পাবে। কোম্পানিগুলোকে ২০১৮ সালের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদনে যেতে হবে। বিপিডিবি তাদের কাছ থেকে বিদ্যুৎ কিনে জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করবে। প্রতিটি বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন ক্ষমতা হবে ১০০ মেগাওয়াট।