‘৫ লাখ কোটি টাকা’ টাকা বিনিয়োগ সম্ভাবনা দেখালেন বিএসইসির চেয়ারম্যান

0
1515

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক এম খায়রুল হোসেন বলেছেন, অর্থমন্ত্রী আগামী ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য ৫ লাখ কোটি টাকার বাজেট করতে চান। আর এ বাজেট বাস্তবায়নের সিঁড়ি হতে পারে পুঁজিবাজার।

বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টায় রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ) আয়োজিত এক সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
বক্তব্য রাখছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন

পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি ও ভবিষ্যত সম্ভাবনা নিয়ে এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়। বিএমবিএ সভাপতি  মো. ছায়েদুর রহমান এতে সভাপতিত্ব করেন।

সম্প্রতি কয়েকটি অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী জানান, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে তিনি ৩ লাখ ৪০ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছেন। অথচ তার প্রথম বাজেট ছিল ৮৯ হাজার কোটি টাকা। আগামী ২০১৮-১৯ অর্থবছরে তিনি ৫ লাখ কোটি টাকার বাজেট করতে চান। অর্থমন্ত্রীর এ বক্তব্যের সূত্র ধরেই বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক এম খায়রুল হোসেন পুঁজিবাজার নিয়ে এ মন্তব্য করেন।

আজ বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টায় রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ) পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি ও ভবিষ্যত সম্ভাবনা নিয়ে এক সেমিনারের আয়োজন করে

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। আর বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান।

আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিএসইর এমডি সাইফুর রহমান মজুমদার, প্রাইম ফাইন্যান্স ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্টের এমডি ও সিইও মোশারফ হোসেন এবং বিএমবিএ মহাসচিব খায়রুল বাশার আবু তাহের মোহাম্মদ।

খায়রুল হোসেন বলেন, আমাদের ৬ বছরের সাধনায় একটি স্থিতিশীল পুঁজিবাজার উপহার দিতে পেরেছি।অনেক আইনের পরিবর্তন হয়েছে।বাজারে বিনিয়োগ সচেতনতা বাড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণ কর্মসূচি করেছি।

তিনি বলেন, আইন পরিবর্তন ও গঠন করে বাজারে আস্থার অভাব কিছুটা দূর করেছি।এখন যে আস্থার অভাব রয়েছে; সেটা সাধারন বিনিয়োগকারীদের না জানার কারণে।তবে দেশব্যাপী আর্থিক জ্ঞান কর্মসূচির আওতায় আনতে পারলে সেটাও কেটে যাবে।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, হাইকোর্টের অনুমতি নিয়ে অনেকে মার্জার করছে। তাতে বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আমরা সঠিক মার্জার রুলস করেছি।শিগগিরই তা গেজেট আকারে প্রকাশ করা হবে।

তিনি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বিনিয়োগের ওপর ধার্য করা কর কর্তনের বিষয়ে মন্ত্রীর আকর্ষণ করেন। এছাড়া পুঁজিবাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বৃদ্ধি, মার্কেট মেকার রুলস, এক্সচেঞ্জ ট্রেড ফান্ড, পোর্টফোলিও ইনভেস্টমেন্টসহ পুঁজিবাজারের উন্নয়নের বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here