‘আশানুরুপ ডিভিডেন্ড না পাওয়ার কারণে বাজার নিম্নমুখী’

0
834

মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান : কোম্পানিগুলোর কাছ থেকে আশানুরুপ ডিভিডেন্ড না পাওয়ার কারণে পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারীদের মনে হতাশা বিরাজ করছে। ইতোমধ্যে এর প্রভাব বাজারে পড়তে শুরু করেছে। কিছুদিন পূর্বে বাজার কিছুটা উর্দ্ধোমুখি হলেও গত দুই/তিন ধরে বাজার পূর্বের ন্যায় নিম্নমুখী হতে শুরু করেছে।

পটেনশিয়াল সিকিউরিটিজের মতিঝিল ব্রাঞ্চের ইনচার্জ মোহাম্মদ সোহেল মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) তার কার্যালয়ে স্টক বাংলাদেশকে এসব কথা বলেন।

মোহাম্মদ সোহেল বলেন, এবারে অধিকাংশ কোম্পানি প্রায় কাছাকাছি সময়ে ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। অনেক কোম্পানির ডিভিডেন্ডে সচ্ছতা ছিল না। আর এন স্পিনিং ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেও শেয়ারহোল্ডারদের ডিভিডেন্ড দেয়নি। শুধু আর এন স্পিনিং যে এই ধরনের কাজ করেছে তাই নয়; বিএসআরএম স্টিলসহ অসংখ্য কোম্পানি চলতি বছরে শেয়ারহোল্ডারদের ডিভিডেন্ড দিতে চেয়েও দেয়নি। এসব কোম্পানির শেয়ারের দাম অর্ধেকে নেমে এসেছে। যে কারণে অনেকে হতাশ হয়ে শেয়ার সেল করতে বাধ্য হচ্ছে। ফলে বাজারে বাই এর থেকে সেল প্রেশার বেশি পড়েছে। বর্তমানে পুঁজিবাজারে লেনদেন কমে যাওয়ার এসবই মুল কারণ বলে উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ডিভিডেন্ড পাওয়ার আশায় ছোট-বড় অসংখ্য বিনিয়োগকারী সম্প্রতি বাজারে বিনিয়োগ করতে শুরু করেছিল। কিন্তু কোম্পানিগুলোর ডিভিডেন্ড নিয়ে ছলচাতুরির কারণে বাজার আবার পূর্বাবস্থায় ফিরে যাচ্ছে।

এই ব্রাঞ্চ ইনচার্জ বলেন,  সরকার, বিএসইসিসহ পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রকসংস্থাগুলোর নানামুখি উদ্যোগের কারণে সম্প্রতি বাজার কিছুটা উর্দ্ধোমুখী হতে শুরু করেছিল। সবাই ভেবেছিল প্রতি বছরের ন্যায় এবছর ডিভিডেন্ড পরবর্তী বাজার পরিস্থিতি খারাপ হবে না। কিন্তু তাদের সে ধারণা ধুলোয় মিশে গেছে। সরকারসহ নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর কোন পদক্ষেপেই বাজারের উন্নতি ঘটাতে পারেনি।

তবে তিনি বলেন, বাজারকে উর্দ্ধোমুখী করতে হলে শুধু পদক্ষেপ নিলেই হবে না; সেগুলো মনিটরিং এর ব্যবস্থা থাকতে হবে। বাজার উন্নয়নে যাকে যে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তা সঠিকভাবে করছে কিনা তার দেখভাল করতে হবে। তবেই হয়তো ভবিষ্যতে বাজারের উন্নতি ঘটতি পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here