মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান : গত কয়েক বছরের তুলনায় বর্তমানে মার্কেট ভালো অবস্থায় রয়েছে। ক্ষুদ্র, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ করছে। অতিতে মার্কেট থেকে যারা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল তারাও এখন বিনিয়োগ করছে। এভাবে চলতে থাকলে খুব শিগগিরই ক্যাপিটাল মার্কেটে এক হাজার কোটি টাকার লেনদেন হবে।

সম্প্রতি পুঁজিবাজারের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী এএসএম জাকারিয়া স্টক বাংলাদেশকে এসব কথা বলেন।

জাকারিয়া বলেন, বর্তমানে মার্কেটে ৫শ’ কোটি টাকার লেনদেন হচ্ছে। এই লেনদেন খুব তাড়াতাড়ি ১ হাজার কোটি টাকায় পৌঁছাবে। বাজার নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মনে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

তিনি বলেন, ২০০৯ সালে আমি প্রথম পুঁজিবাজারের সাথে সম্পৃক্ত হই। সে সময় না বুঝে বিনিয়োগ করার কারণে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলাম। তবে বর্তমানে কিছুটা লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছি। এভাবে চলতে থাকলে যেসব বিনিয়োগকারীরা বাজার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল তারাও কামব্যাক করবে। আসবে নতুন নতুন বিনিয়োগ। আরও গতিশীল হবে ক্যাপিটাল মার্কেট।

তিনি আরও বলেন, পুঁজিবাজার ও দেশের অর্থনীতি অতপ্রতভাবে জরিত। সে বিষয়টি দেড়িতে হলেও বুঝতে পেরেছে সরকার ও পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো। যে কারণে বাজার উন্নয়নে নানামুখি পদক্ষেপ নিয়েছে তারা। যার পজেটিভ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে বাজারে।

এই ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী বলেন, সরকারের দুটো মন্ত্রণালয় পুঁজিবাজারের সাথে জড়িত। মার্কেট ভালো করনে তারাও যথেষ্ট চেষ্টা করছে। আশা করি তাদের এই চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। তবে এই মূহুর্তে না বুঝে মার্কেট নিয়ে অযাচিত কথা বলা থেকে বিরত থাকতে হবে নীতিনির্ধারকদের। কারণ তাদের কথার যথেষ্ট প্রভাব পড়ে মার্কেটে।