মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান : গত এক বছরের মধ্যে বর্তমানে সবচেয়ে ভালো অবস্থনে রয়েছে মার্কেট। বাজারে নতুন নতুন বিনিয়োগ আসতে শুরু করেছে। বিনিয়োগকারীদের মনে হতাশা কেটে যাচ্ছে দ্রুতই। তবে বর্তমান পুঁজিবাজার যে উর্দ্ধোগতিতে রয়েছে তা ধরে রাখতে পারলে আরও নতুন নতুন বিনিয়োগ আসবে। সোমবার পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী জামাল হোসেন একান্ত সাক্ষাতকারে স্টক বাংলাদেশকে এসব কথা বলেন।

জামাল হোসেন বলেন, কয়েক মাস আগেও ক্যাপিটাল মার্কেটে দেড়শ কোটি থেকে দুইশ কোটি টাকার লেনদেন হতো। কিন্তু এখন ৫শ’ থেকে ৬শ’ কোটি টাকার লেনদেন হয়। ভলিউম বেড়েছে। বেড়েছে সূচকও। মূলত সরকারের নানামুখী পদক্ষেপ ও পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টদের সহযোগীতার কারণেই বাজার ভালোর দিকে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক স্থিরতা ও ডিএসই, সিএসইর একে অপরের সহযোগীতার কারণেও ক্যাপিটাল মার্কেট অনেকটা ভালো হয়েছে। এদিকে বাজার ভালো হওয়ার কারণে ইতোমধ্যেই নতুন নতুন বিনিয়োগ আসতে শুরু করেছে।

তবে বাজারের এই ভালো অবস্থার সুযোগ নিতে পারে অসৎ কোম্পানিগুলো। অসৎ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানসহ অসৎ ব্যক্তিরা বাজার থেকে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের টাকা হাতিয়ে নিতে বাজারে শেয়ার ছাড়তে পারে। তারা যাতে বাজারে কোনভাবেই শেয়ার ছাড়তে না পারে সে বিষয়টি সরকারকে সবসময় তদারকি করতে হবে বলে জানান এই ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী।

জামাল হোসেন আরও বলেন, এক্সপোজার লিমিটকে সুনির্দিষ্টভাবে সমাধানের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরকে ধন্যবাদ জানাই। তিনি ইতোমধ্যেই বিনিয়োগকারীদের মনে জায়গা করে নিয়েছেন।

তবে মার্কেটকে আরও ভালো করতে হলে সরকার ক্যাপিটাল মার্কেটের জন্য যে প্রণোদনা দিয়েছে তা বাস্তবায়ন করতে হবে। আর ওভার দ্যা কাউন্টার মার্কেটে (ওটিসি) যেসব শেয়ার রয়েছে সেগুলোর ব্যাপারে বিনিয়োগকারীদের স্বার্থের দিক চিন্তা করে সংশ্লিষ্টদের পদক্ষেপ নিতে হবে। তবেই মার্কেট আরও ভালো হবে বলে জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here