মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান : সামগ্রিকভাবে দেশের পুঁজিবাজার বর্তমানে কিছুটা গতিশীল রয়েছে। গেলো সপ্তাহে বাজার পরিস্থিতি তুলনামুলক ভালো ছিল। যদিও সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার (৭ আগস্ট) বাজার আপ-ডাউনের মধ্যে রয়েছে। তবে বাজারকে আরও গতিশীল করে তুলতে হবে। আর এরজন্য সরকার, পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট নিয়ন্ত্রক সংস্থা ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের একযোগে কাজ করতে হবে। জানিয়েছেন রোববার সাকো সিকিউরিটিজের কারওয়ানবাজার ব্রাঞ্চের ইনচার্জ মো: নিজাম উদ্দিন।

রাজধানীর কারওয়ানবাজারে রোববার সাকো সিকিউরিটিজের কার্যালয়ে একান্ত সাক্ষতকারে স্টক বাংলাদেশকে তিনি এসব কথা বলেন।

নিজাম উদ্দিন বলেন, ঈদ পরবর্তী বাজার তেমন গতিশীল না হলেও এখন মোটামুটি গতিশীল রয়েছে। স্বল্পমুলধনী কোম্পানিসহ ফান্ডামেন্টাল শেয়ারগুলোর দিকে সাধারণ বিনিয়োগকারী ঝুকে পড়ছে। জেমিনি সি ফুড, ইস্টার্ণ কেবলস ও ওসমানিয়া গ্লাসসহ বিভিন্ন স্বল্পমুলধনী কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দিকে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা বিশেষভাবে আকৃষ্ট হচ্ছে। পাশাপাশি আকৃষ্ট হচ্ছে তিতাস, ডেসকোসহ বিভিন্ন ফান্ডামেন্টাল শেয়ারগুলোর দিকেও।

DSC03841
সাকো সিকিউরিটিজের কারওয়ানবাজার ব্রাঞ্চের ইনচার্জ নিজাম উদ্দিন

তিনি বলেন, বর্তমানে রাজনৈতিক অঙ্গনসহ সকল ক্ষেত্রে স্থিরতা বিরাজ করছে। সম্প্রতি জঙ্গি হামলার কারণে পুঁজিবাজারে যে অস্থিরতা বিরাজ করেছিল তা এখন আর নেই। সরকার জঙ্গিদের শক্ত হাতে দমন করেছে।

তিনি আরও বলেন, বাজারকে চাঙ্গা করতে হলে মানি পলো বাড়াতে হবে। নতুন নতুন বিনিয়োগকারীকে নিয়ে আসতে হবে। অনেকেই দুর্নিতি দমন কমিশন (দুদক) ও জাতীয় রাজস্ববোর্ডের (এনবিআর) ভয়ে বাজারে বেশি টাকা বিনিয়োগ করতে চায় না।
কারণ বড় বিনিয়োগকারীদের প্রতিষ্ঠান দুটির কাছে জবাবাদিহী করতে হয়। তাই বড় বিনিয়োগকারীদেরকে সরকারের তরফ থেকে নিশ্চিত করতে হবে যে বেশি বিনিয়োগ করলেও দুদক ও এনবিআরের কাছে তাদেরকে জবাবদিহী করতে হবে না।

সাকো সিকিউরিটিজের এই ইনচার্জ আরও বলেন, পুঁজিবাজারের উন্নয়ন করতে হলে দেশের সামগ্রিক চিত্র ভালো হওয়া দরকার। কারণ দেশে যেকোন অস্থিরতার প্রভাব প্রথমত পড়ে পুঁজিবাজারের ওপর। তবে বর্তমান সরকার দেশের সকল অস্থিরতা শক্ত হাতে দমন করছে। সরকারের এই ধারা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here