মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান : পুঁজিবাজার থেকে এবারের রমজান শুধু নয়, কোন রমজানেই কিছু পাওয়া যায় না। ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা রমজানের আগেও যেমন কষ্টে থাকে, ঠিক তেমনি রমজানেও কষ্টে থাকে। বরং রমজানে আরও বেশি কষ্টে থাকে। কারণ রমজান এলেই ট্রেড কমে যায়। কমে যায়। বিনিয়োগও।

আনোয়ার সিকিউরিটিজের ক্ষুদ্র, নি:স্ব বিনিয়োগকারী জামাল হোসেন ক্ষোভের সুরে স্টক বাংলাদেশকে এসব  কথা বলেন।

জামাল হোসেন বলেন, আসন্ন ঈদ উপলক্ষে অসংখ্য বিনিয়োগকারী পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করছে না। কারণ তারা কষ্টের টাকা বাজারে ফেলে রাখতে রাজী নয়। তবে হ্যা, যদি বাজারে অর্থ ফেলে রেখে লাভবান হতেন, বিনিয়োগকারীরা তবে অবশ্যই সেটাই করতেন।

তিনি বলেন, রমজানে যেমন ব্যবসায়ীরা নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়ে সাধারণ মানুষের সমস্যার সৃষ্টি করে ঠিক তেমনি পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোও রমজানে, রমজানের আগে-পরে অবাঞ্চিত আইপিও দিয়ে বাজারকে অস্থির করে তোলে। মূলত নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো মাসোয়ারার বিনিময়েই এই কাজটি সহজে রমজানের মধ্যে করে, আগেও করে। তাদের মধ্যে আল্লাহর ভয়ভীতি নেই।

তিনি আরও বলেন, রমজান বলে নয়, সরকারের কাছে অনেক কিছুই চাওয়ার রয়েছে। সেসব আর নাই বলি। শুধু এই মূহুর্তে একটা জিনিস চাই আর তা হলো কোম্পানিগুলো যেন সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কোঠা বাড়িয়ে দেয়। তাহলে বিনিয়োগ বাড়বে। ট্রেড বেশি হবে। এতে সরকারের পাশাপাশি সাধারণ বিনিয়োগকারীরাও লাভবান হবেন।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY