বৃহস্পতিবার পাস হচ্ছে নতুন বাজেট

0
366

সংসদ প্রতিবেদক : জাতীয় সংসদে বৃহস্পতিবার পাস হচ্ছে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেট। কিছু সংশোধনীসহ অর্থবিল ২০১৬ বুধবার পাস হয়েছে। অর্থবিলে কিছু পরিবর্তন হলেও খরচের লক্ষ্য ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকাই বহাল থাকছে। একই সঙ্গে মোট দেশজ উত্পাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধিসহ অন্যান্য যেসব প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল, অপরিবর্তিত থাকছে সেগুলোও।

গত ২ জুন ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেট সংসদে পেশ করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বুধবার বাজেট আলোচনার ওপর সমাপনী বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৭ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সাময়িক হিসাবে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ। অর্থাত্ এ অর্থবছর আমরা জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যেতে সক্ষম হয়েছি।

তিনি বলেন, বর্তমানে ব্যক্তিখাতে বিনিয়োগ-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূচকে যে ইতিবাচক পরিবর্তনের ধারা পরিলক্ষিত হচ্ছে, তা আগামী অর্থবছরের প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পূর্বাভাস দিচ্ছে। বিশেষ করে ব্যক্তিখাতে ঋণ সরবরাহ, আমদানি-রফতানি, মূলধনি যন্ত্রপাতি ও শিল্পের কাঁচামাল আমদানির ঋণপত্র খোলা ও নিষ্পত্তি, সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ, প্রবাস নিয়োগ, কৃষি ও শিল্পোত্পাদন ইত্যাদি ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।

এপ্রিলে ব্যক্তিখাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি ছিল ১৫ দশমিক ৬ শতাংশ, যা লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় বেশি। চলতি অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে রফতানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে প্রায় ৯ শতাংশ। অন্যদিকে অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারি বিনিয়োগ ও নতুন বেতন স্কেলের পূর্ণ বাস্তবায়নের ফলে ভোগ-ব্যয় বৃদ্ধি পাবে।

এছাড়া প্রবাস নিয়োগের সংখ্যা বৃদ্ধির কারণে প্রবাস আয়ের প্রত্যাশিত প্রবৃদ্ধি ও ক্রমহ্রাসমান মূল্যস্ফীতির সঙ্গে প্রকৃত মজুরি বৃদ্ধি ব্যক্তিখাতে ভোগ ও বিনিয়োগ উভয় ব্যয়ই বাড়াবে। এসব বিবেচনায় ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৭ দশমিক ২ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব বলে আমি বিশ্বাস করি।

বহাল থাকছে রূপকল্প অনুযায়ী ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্য। আর বিভিন্ন ধরনের প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও আগামী অর্থবছরে দেশে মোট বিনিয়োগের পরিমাণ ৪ লাখ ৫৯ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হবে বলে মনে করে সরকার। বর্তমানে এর পরিমাণ ৩ লাখ ৭৭ হাজার কোটি টাকা।

এদিকে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সামাজিক নিরাপত্তা ও পরিবহন খাতসহ অন্যান্য খাতে প্রস্তাবিত বাজেটে যে ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে, তা বহাল থাকছে। এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে সার্বিক শিক্ষা খাতে বরাদ্দ ছিল ৩১ হাজার ৬০৪ কোটি টাকা, যা ২০১৬-১৭ অর্থবছরে দাঁড়িয়েছে ৪৯ হাজার ৯ কোটি টাকায়। জিডিপির অনুপাতেও এ বরাদ্দ উল্লেখযোগ্য বেড়েছে।

স্বাস্থ্য খাতের বিষয়ে তিনি বলেন, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১৭ হাজার ৪৮৭ কোটি টাকা, যা ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ছিল ১২ হাজার ৭২৬ কোটি টাকা। অর্থাত্ এক বছরে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বেড়েছে ৩৮ শতাংশ।

কৃষিতে বরাদ্দের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে কৃষি খাতে কৃষি মন্ত্রণালয়ের চাহিদার আলোকে আমরা প্রস্তাবিত বাজেটে মোট বরাদ্দ রেখেছি ১৩ হাজার ৬৭৮ কোটি টাকা, যা চলমান অর্থবছরে ছিল ১১ হাজার ১৪২ কোটি টাকা। সার ও সেচকাজে ব্যবহূত বিদ্যুত্ ও অন্যান্য কৃষি উপকরণে প্রণোদনা বাবদ ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেটে আমরা ৯ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করেছি।

এর বাইরে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও শিল্প-কারখানায় নতুন গ্যাস সংযোগ দেয়ার বিষয়ে যে লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছিল, তাও বহাল থাকছে। কর্মদক্ষতা বাড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণে যে বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করা হয়েছিল, বহাল থাকছে তাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here