শেয়ারবাজারের ‘গতি এখন গঙ্গায়’

0
1732

সিনিয়র রিপোর্টার : ‘গঙ্গার জল দিলে হয়তো বাঁচতো দাদা। বাঁচলে আমাদের কিছু দেবে আর না বাঁচলে তো…। তাই বলি কি- একটু গঙ্গর জল ছোঁয়ালে হয়তো বাঁচতো।’

কলকাতায় এখন থাকেন ভূদেব বাবু। কয়েকদিন আগে একলা ঢাকায় এসেছেন। সোমবার দুপুরে রাজধানীর পল্টনে কথা হয় এ প্রতিবেদকের সঙ্গে। রাজধানীর সব দূঃখ এবং অধিকার যেন তার মাথার ভেতরে ঘুরপাক খাচ্ছে। সব অধিকার চর্চার ক্ষেত্র রাজধানীর রাস্তা। এখানেই সবার ক্ষোভ এবং বিক্ষোভ প্রকাশ পায় বলেন ভুদেব বাবু।

তবে পুঁজিবাজার নিয়ে অধিকারের চর্চা হয়না। অনধিকার নিয়ে এখানে যতো কথা।

ভূদেব বাবু বলেন, কেবল হাঁটতে শেখা শিশুর আশা কি দাদা? আমাদের যে বাজার হয়েছে, তার বয়স কতো? হাঁটতে শেখা শিশু কখন পড়ে আর কখন মরে বলা মুশকিল। শুনছি, ঈদের আগে বিনিয়োগকারী নগদ টাকা তোলায় বাজার পড়ছে। এও কি বিশ্বাস হয়! তাই বলি কি- একটু গঙ্গার জল মুখে দিতে। তখন হয়তো বাঁচতো।

দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলেন, ৮ বছর ধরে শুনছি এই গান। আর কতো দাদা, এখন দূরে আছি ভালো আছি। যে দেশে শেয়ারবাজার ভালো নাই, সেখানে কোন ব্যবসাই ভালো নাই। কেউ ভালো নাই দাদা। … কিন্তু এ দাগাও তুলবে মানুষ।

দেশের নামকরা একটি সিকিউরিটজি হাউসে তিনি ব্যবসা করতেন। শেষ সব টাকাও তিনি তুলে নিয়েছেন। পুরান ঢাকার মানুষ ভূদেব বাবু প্রায় ৭ বছর ধরে কলকাতায় সংসার পেতেছেন। প্রায় ৫০ বয়স তার। পুরান ঢাকায় তার ব্যবসা থাকলেও অনেকে আগে তা গুটিয়ে নিয়ে বড়ভাইয়ের সঙ্গে এখন নিজ দেশের মতোই কলকাতায় ব্যবসা করছেন।

অনেক দিন আগে ফান্ডামেন্টাল কোম্পানির কিছু শেয়ার তার কেনা ছিল। তার বিও একাউন্টেও কিছু টাকা রেখেছেন। ঈদের আগে তিনি সব টাকা তুলে নিয়েছেন ভুদেব।

নানান প্রকার পণ্যের ব্যবসা করেন। এবারের টাকা দিয়ে তিনি একটা দোকান খুলে বসবেন। এতোদিন ভাড়ায় দোকান চালাতেন। এবারে নিজের ঘরে বসে ব্যবসা করবেন। তবে নিজের দেশের মতো সুখী নন। সব সময় বুকের ভেতরে হালকা লাগে। আর পুঁজিবাজারের সেই দিনগুলোর কথা মনে পড়ে।

তাই মর-মর পুঁজিবাজারকে ‘গঙ্গর জল ছোঁয়ালে হয়তো বাঁচতো’ বলে মন্তব্য করেন তিনি। এরপরে আক্ষেপ করে শেয়ারবাজারের ‘গতি এখন গঙ্গায়’ বলে মন্তব্য করেন। ভূদেব বাবু আর যাই করেন শেয়ার ব্যবসায় তিনি আর আসবেন না, এটা তার পণ।

কারণ তিনি যতোটা দিয়েছেন, পেয়েছেন তার চেয়ে অনেক কম। ঈদের আগেই ফিরে যাবেন কলকাতায়। সেখানেই তার আগামী। পুঁজিবাজার এখন তার অতীত। ভেঙে ফেলা স্বপ্ন। বিস্ময়কর হতাশা। তার বন্ধুর আত্মহত্যা।

আগামী নির্বোধ বালকের কল্প বাসনা।

বাজারে এমন দৈন্যদশার জন্য দায়ী নিয়ন্ত্রক সংস্থা। ‘জংধরা শেয়ার’ বাজারে ছেড়ে দেয়ায়ে এই আস্থাহীনতা। এখন তাকেই ফেরাতে হবে বলেন ভূদেব বাবু। তবে কিভাবে ফিরবে সে ব্যাখ্যা করতে চাননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here