ইউনাইটেড এয়ারের ষোলকলা পূর্ণ

0
7158

শাহীনুর ইসলাম : ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেড ৬২০ কোটি টাকার অনুমোদন পাওয়ায় ষোলকলা পূর্ণ হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ কমিশন কোম্পানিটিকে বন্ড ও প্লেসমেন্ট শেয়ারের মাধ্যমে সম্প্রতি অনুমোদন দেয়ায় ইউনাইটেড এয়ারের ডানা আকাশে মেলতে আর আশঙ্কা নেই।

ইতোমধ্যে টাকা উত্তোলনের জন্য ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে। বিপুল পরিমাণ টাকা নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদনের পরই কোম্পানির শেয়ারপ্রতি দরেও অনেকটা স্থিরতা এসেছে।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) চলতি মাসের ১ জুন ৪০০ কোটি ৮০ লাখ টাকার অনুমোদন দেয়। প্রাইভেট প্লেসমেন্ট শেয়ারের মাধ্যমে কোম্পানি এই বিপুল পরিমাণ টাকা সংগ্রহ করবে।

এরপরে ১৬ জুন আবারো ২২৪ কোটি টাকার বন্ড ছাড়ার অনুমোদন দিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিএসইসি)। এ বন্ডের মেয়াদ হবে ৬ বছর। কমিশনের দুটি অন‍ুমোদনের মাধ্যমে ইউনাইটেড এয়ায় মোট ৬২০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে।

চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় ধাপে ইউনাইটেড এয়ারের সব বিমান উড্ডয়ন বন্ধ করে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। পুরনো বিমান ও অর্থ সংকটের কারণে নানান প্রদক্ষেপ গ্রহণ করলেও ইউনাইটেড এয়ার আর ডানা মেলতে পারেনি। যে কারণে দেশ ও বিদেশের খ্যাতি অর্জনক‍ারী ভ্রমণ খাতের কোম্পানিটি সুনাম অনেকটা ক্ষুণ্ন হয়। আয়ের পথ বন্ধ হওয়ায় ধস নামে শেয়ারপ্রতি দরে।

পতনের মুখে বিমান ওড়তে ব্যস্ত হয়ে পড়েন কোম্পানির কর্তৃপক্ষ। এ প্রসঙ্গে কথা হলে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ক্যাপ্টেন তাসবিরুল আহমেদ চৌধুরী বলেন, ফ্লাইট চালু করতে ব্যস্ত আছি। আমার ভিষণ ব্যস্ততায় সময় কাটছে। এখন মতিঝিল আর কমিশন (বিএসইসি) নিয়ে ব্যস্থ আছি।

বিমান উড্ডয়নের বিষয়ে সম্প্রতি পূর্বাভাস প্রদান করেন ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেডের পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার শাহাবুদ্দিন। তিনি স্টক বাংলাদেশকে বলেন, ফ্লাইট চালুর ব্যবস্থা চলছে। কমিশন ৬২৪ কোটি উত্তোলনের অনুমোদন দিয়েছে। টাকা উত্তোলনের প্রক্রিয়াও চলমান রয়েছে। বিনিয়োগকারীদের নিরাশ হওয়ার কিছু নেই, বিমান আবারো আকাশে উড়বে।

এখন ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ (বিডি) লিমিটেডের বহরে পুরনো ১১টির সঙ্গে যুক্ত হবে নতুন আরো দুটি বিমান। এর মধ্যে প্রাইভেট প্লেসম্নেট শেয়ারের মাধ্যমে ৪০০ কোটি টাকায় সিঙ্গাপুর থেকে নেয়‍া হবে নতুন দুটি বিমান।

‘সিঙ্গাপুরের দুটি কোম্পানির সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তারা কোম্পানির ৪০০ কোটি টাকার অভিহিত মূল্যের শেয়ারের বিনিময়ে একটি বোয়িং-৭৭৭ ও একটি এটিআর-৭২-৫০০ নতুন প্রজন্মের উড়োজাহাজ দেবে।’

United Air Tasbirসম্প্রতি এসব কথা বলেন ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যাপ্টেন তাসবিরুল আহমেদ চৌধুরী।

বহরে নতুন দুটি বিমান সংযোজন ও পুরনো বিমান রক্ষণাবেক্ষণ করতে প্রাইভেট প্লেসমেন্টে শেয়ার বিক্রি করে ৪০০ কোটি ৮০ লাখ টাকা এবং বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে ২২৪ কোটি টাকা মূলধন সংগ্রহ করতে অনুমোদন পায় ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ।

মূলধন সংগ্রহের বিষয়ে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যাপ্টেন তাসবিরুল আহমেদ চৌধুরী বলেন, ব্যবসা সম্প্রসারণের জন্য মূলধন সংগ্রহ করা হচ্ছে। মূলধনের উল্লেখযোগ্য অংশই আসবে বিদেশী বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে।

তিনি বলেন, সিঙ্গাপুরের দুটি কোম্পানির সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তারা কোম্পানির ৪০০ কোটি টাকার ১০ অভিহিত মূল্যের শেয়ারের বিনিময়ে একটি বোয়িং-৭৭৭ ও একটি এটিআর-৭২-৫০০ নতুন প্রজন্মের উড়োজাহাজ সরবরাহ করবে।

এছাড়া মূলধন ২২৪ কোটি টাকা দিয়ে পুরনো বিমানগুলো রক্ষণাবেক্ষণ করা হবে। ফলে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক রুটগুলোতে ফ্লাইট সম্প্রসারণের পাশাপাশি নতুন গন্তব্যে ফ্লাইট চালু করার কথাও বলেন এমডি।

শিগগিরই টাকা উত্তোলনের প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে আইসিবি সূত্রে জানা গেছে। ফলে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের বিমান উড্ডয়নে আর বাধা থাকছে না।

‘শেয়ারের বিনিময়ে’ দুটি বিমান পাবে ইউনাইটেড এয়ার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here