‘নতুন বুক বিল্ডিং তৈরির ফলে বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়বে’

0
992

মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান : পুঁজিবাজারে ভালো কোম্পানি তালিকাভুক্ত করার জন্য নতুন বুক বিল্ডিং সফটওয়্যার চালু করা হয়েছে। এই সফটওয়ারের মাধ্যমে ফিন্যান্সিয়াল অ্যানালিস্টরা ভালো কোম্পানির জন্য ভালো প্রাইস দিতে পারবেন। এর মাধ্যমে পুঁজিবাজারে স্বচ্ছতাও বাড়বে।

বৃহস্পতিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) আয়োজিত নতুন বুক বিল্ডিং সফটওয়্যারের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কমিশনার ড. স্বপন কুমার বালা এসব কথা বলেন।

স্বপন কুমার বালা বলেন, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) অক্লান্ত পরিশ্রমে এই সফটওয়্যারটি তৈরি হয়েছে। এটি তৈরির মাধ্যমে দুই এক্সচেঞ্জের বিশেষ করে আইটি বিভাগ সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে। তবে এর আরও ইম্প্রুভমেন্ট প্রয়োজন রয়েছে। আস্তে আস্তে সেগুলোও করা হবে।

সফটওয়্যারটি তৈরির ফলে পুঁজিবাজারের ওপর বিনিয়োগকারীদের আস্থা অতিতের যেকোন সময়ের তুলনায় কয়েকগুণ বৃদ্ধি পাবে। সচ্ছতা থাকবে বিনিয়োগে। সাধারণ বিনিয়োগকারীরা খুব সহজেই আইপিওতে আসা কোনটি ভালো কোম্পানি তা সহজেই বুঝতে পারবে বলে তিনি জানান।

চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) চেয়ারম্যান ড. আব্দুল মজিদ বলেন, বিদেশীদের ভাড়া করে নিয়ে এসে সফটওয়্যার তৈরি করা আমাদের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। আবার সফটওয়্যার নষ্ট হয়ে গেলে তা মেরামতের জন্য আবার বিদেশীদের আনতে হয়। এতে সময় ক্ষেপন হওয়ার পাশাপাশি বিপুল অংকের অর্থও চলে যায়।

আমার ভালো লাগছে এই ভেবে যে নতুন বুক বিল্ডিং সফটওয়্যার তৈরির জন্য বিদেশীদের কাছে ধন্যা দিতে হয়নি। ডিএসই ও সিএসই মিলে সফটওয়্যারটি তৈরি করেছে। আমরাও যে খুব সহজেই সফটওয়্যার তৈরি করতে পারি তা প্রমাণ করে দিয়েছে এই দুই এক্সচেঞ্জ।

ভবিষ্যতে সফটওয়্যারটি নষ্ট হয়ে গেলে বা ইম্প্রভমেন্টের প্রয়োজন হলে আমরাই তা করতে পারবো। বিদেশীদের কাছে যেতে হবে না। তবে একটা জিনিস লক্ষ্য রাখতে হবে, যাতে কেউ কোনভাবেই বাংলাদেশ ব্যাংকের মতো এই সফটওয়্যার ঢুকে অর্থ চুরি করতে না পারে।

ডিএসইর পরিচালক ওয়ালিউল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল মতিন পাটোয়ারি, পরিচালক ড. এম কায়কোবাদ প্রমূখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here