অ্যাপোলো হাসপাতালের আইপিও আবেদন বিএসইসিতে জমা

0
2539

সিনিয়র রিপোর্টার : বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজারে আসতে বিএসইসিতে প্রসপেক্টাস জমা দিয়েছে অ্যাপোলো হাসপাতাল। পুঁজিবাজার থেকে টাকা তুলতে সম্প্রতি বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) আবেদনপত্র জমা দিয়েছে এসটিএস হোল্ডিংস লিমিটেড ব‍া অ্যাপোলো হাসপাতাল কোম্পানির কর্তৃপক্ষ।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে সাড়ে ৭ কোটি শেয়ার ছাড়বে। প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য হবে ১০ টাকা। আইপিওর জন্য প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণে শেয়ার বিক্রির দর নির্ধারণ করা হবে। ইতোমধ্যে কোম্পানিটি ৫ এপ্রিল রাজধানীর রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেলে রোডশো সম্পন্ন করে।

প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে নিজেদের পরিচিতি, আর্থিক তথ্য ও ভবিষ্যত পরিকল্পনা তুলে ধরতে কোম্পানির পক্ষ থেকে রোড শো আয়োজন করা হয়। রোড শোতে ব্যাংকার, স্টক ব্রোকার, মার্চেন্ট ব্যাংকার, ইস্যু ম্যানেজারসহ বিভিন্ন শীর্ষ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের নির্বাহীরা অংশ নেন।

রোড শোতে জানানো হয়, এসটিএস হোল্ডিংস চট্টগ্রামে অ্যাপোলো হাসপাতালের একটি শাখা খুলবে। ইতোমধ্যে হাসপাতাল ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। আগামী দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে এটি চিকিৎসা সেবা দেওয়া শুরু হবে।

Apollo Roadshow
রোডশো অনুষ্ঠানে কোম্পানির পরিচালকরা

অনুষ্ঠানে কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আর বাসিল প্রতিষ্ঠানটির আর্থিক বিবরণীর ওপর বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত তুলে ধরেন।

তিনি কোম্পানির ব্যবস্থাপনা, ব্যবসায়িক পলিসি, মার্কেটে কোম্পানির অবস্থান, সুবিধা, সম্ভাবনা, চ্যালেঞ্জ ও রিক্স ম্যানেজমেন্টের নানা দিক তুলে ধরেন। এছাড়া আর্থিক বিবরণীর ওপর প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের করা প্রশ্নের জবাব দেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক টিপু মুন্সী। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক মানের সেবা দিতে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) আসছে এসটিএস হোল্ডিংস। আমাদের উদ্দেশ্য দেশের স্বাস্থ্য খাতকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। সেই লক্ষ্য নিয়ে উন্নত সেবার মান নিশ্চিত করতে চাই।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য খাতের উন্নতির জন্য কয়েক বন্ধু মিলে যাত্রা শুরু করেছিলাম বেশ আগে। যা এখনও চলমান রয়েছে। তাই স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা করি।

নিয়ম অনুসারে, কোম্পানিটির আইপিওর ইস্যু ম্যানেজার সংশ্লিষ্ট প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ‘নির্দেশক মূল্য’ আহ্বান করবে। প্রাপ্ত মূল্যের গড় করে চূড়ান্ত নির্দেশক মূল্য নির্ধারণ করা হবে।

পরবর্তীতে এর ভিত্তিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে নিলামের মাধ্যমে শেয়ার বিক্রি করা হবে। প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য সংরক্ষিত শেয়ার বিক্রি যে দামে শেষ হবে, সে দামে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে শেয়ার বিক্রির প্রস্তাব করা হবে।

কোম্পানিটিকে আইপিওতে আনতে যৌথভাবে ইস্যু ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট ও এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড। রেজিস্টার টু দি ইস্যুর দায়িত্বে রয়েছে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here