শাহীনুর ইসলাম : আরিয়ান ক্যামিকেল লিমিটেড আবারো প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে (আইপিও) পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার চেষ্টা করছে। নিয়ন্ত্রক সংস্থার ‘আইপিও শর্ত পূরণ না করায়’ একবার ছিটকে পড়লেও ফের আইপিওভুক্ত হতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ।

আইপিও সম্পর্কে আরিয়ান ক্যামিকেল লিমিটেডের (Arian Chemicals Limited) সেক্রেটারি আবদুল্লাহ ইয়ামিন বলেন, আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। একবার আইপিও থেকে বাদ পড়েছিল, কারণ কোম্পানির জমি এবং একাউন্টস নিয়ে কিছু সমস্যা ছিল। আমরা সেই সমস্য সমাধানেরও চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, আমরা চলতি বছরের মধ্যে আইপিও প্রসেসিংয়ের সব কাজ সম্পন্ন করবো। আগামী জানুয়ারি-ফেব্রয়ারি মাসে নতুনভাবে চেষ্টা করা হবে।

প্লেসমেন্ট শেয়ার বিক্রি সম্পর্কে আবদুল্লাহ ইয়ামিন বলেন, কোম্পানির মোট শেয়ার রয়েছে ৪ কোটি ৬৩ লাখ ৯৬ হাজার। এর মধ্যে বাইরের বিনিয়োগকারীদের মধ্যে রয়েছে ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার। বাকি সব শেয়ার কোম্পানির পরিচালকদের।

ARIAN CAMICALS
আরিয়ান কেমিক্যালস কোম্পানির তথ্য ও চিত্র

‘আরিয়ান ক্যামিকেল কোম্পানি দ্রুত আইপিওভুক্ত হচ্ছে’ -এমন কথা বলে অনেক বিনিয়োগকারীর কাছে প্লেসমেন্ট শেয়ার বিক্রি করা হয়েছে। এমন অভিযোগ সম্পর্কে আবদুল্লাহ ইয়ামিন বলেন, আমরা তো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমরা বাজারে ১ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ১৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করবো।

আমাদের একাউন্টস এবং জমি নিয়ে কিছু সমস্য থাকার কারণে বিএসইসি ফেরত দিয়েছে। এখন পর্যন্ত আমাদের ইস্যু মানেজার হিসেবে সোনালী ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তি আছে। সব কমপ্লিট করে দিলে তারা ব্যবস্থা নেবেন। তবে আগামী জানয়ারি-ফেব্রুয়ারির মধ্যে সব হবে বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, প্লেসমেন্ট শেয়ার নিয়ে কারো অভিযোগ থাকলে যোগাযোগ করতে পারেন। আমরা সব ধরণের ব্যবস্থা নেব।

ARIEAN CAME
আরিয়ানের অসম্পর্ণ ওয়েবসাইটের চিত্র

‘ইস্যু মানেজার হিসেবে সোনালী ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তি রয়েছে’ -এ সম্পর্কে  সোনালী ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের ব্যস্থাপক নিয়ামুল হাসান বলেন, আইপিও নিয়ে আমরা আগে কাজ করেছি, শর্ত পূরণ না করায় বিএসইসি তাদের আইপিও বাতিল করে। আরিয়ান ক্যামিকেল কোম্পানির জমি এবং একাউন্টস নিয়ে সমস্যা ছিল। তারা বিএসইসির শর্ত পূরণ করতে না পারায় আইপিওতে ব্যর্থ হয়েছে।

আইপিও চুক্তি তাদের সঙ্গে পূর্বে ছিল। তবে বিএসইসি বাতিল করার পরে আমাদের সঙ্গে তাদের চুক্তিও বাতিল হয়ে যায়। নতুন করে শর্ত পূরণ করে তবেই তাদের আইপিওতে আসতে হবে বলেন নিয়ামুল।

প্লেসমেন্ট শেয়ারের অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, তিন বছর আগে প্লেমেন্ট দেয়া হয়েছে। এখন কেউ যদি তার ব্যক্তিগত শেয়ার দিয়ে কাউকে আইপিওর কথা বলেন, সে দায়ভার তার।

আরিয়ান ক্যামিকেল লিমিটেড এলুমিনিয়াম সালফেট, ক্যালসিয়াম কার্বনেটসহ চার ধরণের কেমিক্যাল পণ্য উৎপাদন করে। উৎপাদিত পণ্য রঙের কাজে এবং পেপার মিলের কাগজ সাদা করার কাজে ব্যবহৃত হয়। গত বছরে এসব পণের বাৎসরিক লেনদেন হয়েছে প্রায় ৪০ কোটি টাকার।

Screenshot_2ঢাকা চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডস্ট্রিজের (ডিসিসিআই) ৫৯ নম্বরে তালিকাভুক্ত কোম্পানির কারখানা রয়েছে ঢাকার নওয়াবগঞ্জে। কোম্পানির জমির পরিমাণ ১০৬২ ডেসিমেল রয়েছে বলে দাবি করেন আবদুল্লাহ ইয়ামিন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, কোম্পানির কারখানা রয়েছে ২১০ ডেসিমেল জায়গার ওপর। অব্যবহৃত রয়েছে কোম্পানির আরো কিছু জমি। কোম্পানির উৎপাদিত পণ্যের বেশিরভাগ কাঁচামাল আসে ভিয়েতনাম এবং ভারত থেকে। কিছু মাল দেশের বিভিন্ন স্থান থেকেও কেনা হয়।

অনুসন্ধানে আরো জানা গেছে, কোম্পানির ব্যবসা বেশ ভালো এবং আইপিও নিয়ে ইতোমধ্যে কোম্পানির অডিট চলছে। নতুন ইস্যু ব্যবস্তাপক হিসেবে সালদা কেপিটেল ইনভেস্টমেন্ট নিয়ে গুঞ্জন শুরু হলেও এর কোন সত্যতা মেলেনি। তবে পেলে প্রকাশ করা হবে। ইতোমধ্যে কোম্পানির অসম্পূর্ণ একটি ওয়েবসাইট পাওয়া যায়। (চিত্র ওপরে)

ARIAN CAMICALS
ঢাকা চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডস্ট্রিজের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য

পেছনের খবর : আইপিও থেকে ছিটকে পড়ল আরিয়ান কেমিক্যাল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here