মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান : প্রতি বছরেই কমতে শুরু করেছে সাউথ ইষ্ট ব্যাংকের শেয়ারহোল্ডারের সংখ্যা। ব্যাংকটির ২০১৩ সালে যেখানে শেয়ারহোল্ডারের সংখ্যা ছিল ৬৫ হাজার, সেখানে ২০১৪ সালে শেয়ারহোল্ডারের সংখ্যা হয়েছে ৫৭ হাজার। আর সর্বশেষ গত বছর অর্থাৎ ২০১৫ সালে ব্যাংকটির শেয়ারহোল্ডারের সংখ্যা এসে দাঁড়িয়েছে ৪২ হাজারে।

সোমবার রাজধানীর বেইলী রোডের অফিসার্স ক্লাবে সাউথ ইষ্ট ব্যাংকের ২১ তম বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠানে এসব তথ্য  উঠে এসেছে।

DSC03386

পুঁজিবাজারের তালিকাভূক্ত ব্যাংকটি ২০১৪ সালে শেয়ারহোল্ডারদের ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ সমাপ্ত হিসাব বছরেও ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। ব্যাংকটির শেয়ার দর ও ইপিএস কম হওয়ায় লভ্যাংশ বেশি দেয়া সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন ব্যাংকটির চেয়ারম্যান আলমগীর কবির এফসিএ।

তিনি এজিএম অনুষ্ঠানে বলেন, এক সময় সাউথ ইষ্ট ব্যাংকের শেয়ারহোল্ডার সংখ্যা ছিল ৬৯ হাজার। সেই সংখ্যা এখন ৪২ হাজারে এসে দাঁড়িয়েছে। সাউথ ইষ্ট ব্যাংক শেয়ারহোল্ডারদের জন্য নতুন নতুন উদ্যোগ হাতে নিয়েছে। এসব উদ্যোগ বাস্তবায়ন হলে শেয়ারহোল্ডাররা অনেক লাভবান হবেন।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে যেসব প্রাইভেট ব্যাংক রয়েছে তাদের থেকে মানের দিক দিয়ে সাউথ ইষ্ট ব্যাংক এগিয়ে আছে। বর্তমানে  প্রাইভেট ব্যাংকগুলোর মধ্যে সাউথ ইষ্ট ব্যাংক ২ নাম্বার পজিশনে রয়েছে। আগামীতে ১ নাম্বার পজিশনটি হবে সাউথ ইষ্ট ব্যাংকের এবং সেদিনটি বেশি দুরে নয়।

DSC03385

শেয়ারহোল্ডাররা বলেন, ২০১৪ সালে ব্যাংকটির ইপিএস ছিল ৪.১৮। আর গত বছর ইপিএস হয়েছে ৩.৩৫। এভাবে ইপিএস কমতে থাকলে আগামীতে শেয়ারহোল্ডারের সংখ্যা কমে যাবে। কমে যাবে বিনিয়োগের পরিমাণও। আগামী বছর যাতে লভ্যাংশের পরিমাণ বেশি করে দেয়া হয় সেই কামণাই করেন তারা।

শেয়ারহোল্ডার কামরুজ্জামান বলেন, সাউথ ইষ্ট ব্যাংকের শেয়ার ৩৮ দরে কিনেছিলাম। সেই শেয়ারের দর এখন ১৫ টাকা। বিক্রিও করতে পাচ্ছি না আবার মার্কেটে থাকতেও পাচ্ছি না।

DSC03391তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমরা যারা সাধারণ বিনিয়োগকারী রয়েছি তাদেরকে এজিএম অনুষ্ঠানে কথা বলতে দেয়া হয় না। যারা ব্যাংকটির দালাল ও নামধারী শেয়ারহোল্ডার তাদেরকে মাইক্রোফোন দেয়া হয় কথা বলার জন্য। এসব নামধারী শেয়ারহোল্ডারদের ব্যাংকটি বিভিন্ন সময় মাশোয়ারা দেয়। ফলে তারা ব্যাংকের সুনাম করতে করতে মুখে ফ্যানা তুলে ফেলে।

শেয়ারহোল্ডার কামরুজ্জামান ব্যক্তিগতভাবে ব্যাংকটির বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ স্টক বাংলাদেশের এই প্রতিবেদকের কাছে করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here