স্টাফ রিপোর্টার : একমি ল্যাবরেটরিজের আইপিওতে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীর জন্য ‘২০ শতাংশ শেয়ার বরাদ্দ সঠিকভাবে হয়েছে। বরাদ্দ শেয়ার নিয়ে অভিযোগের কোন অবকাশ নেই।’ এসব কথা বলেন একমি ল্যাবরেটরিজের কোম্পানি সেক্রেটারি মি. রফিক।

Screenshot_2
আসাদ-উদ জামানের অভিযোগপত্র

স্টক বাংলাদেশকে আসাদ-উজ জামান নামে ক্ষতিগ্রস্ত এক বিনিয়োগকারী সাম্প্রতি অভিযোগ করেন, একমির আইপিওতে বরাদ্দ শেয়ারে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য ২০ শতাংশ রাখা হয়নি। কোটা বরাদ্দ থাকলেও (৬ শতাংশ) কোম্পানি সে কোটা মানেনি। (অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রকাশ করা হয়)

আইপিওতে বরাদ্দ শেয়ার সম্পর্কে কোম্পানির সেক্রেটারি মি. রফিক বলেন, ২০১৫ সালের পাবলিক রুলস অনুসারে আইপিওতে শেয়ার বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য ২০ শতাংশ কোটা অনুসারে শেয়ার বরাদ্দ। শেয়ার বরাদ্দ নিয়ে কোন প্রশ্নই উঠতে পারেনা।

কারণ হিসেবে তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন, আইপিও নিয়ে কাজ করছে চারটি প্রতিষ্ঠান। প্রত্যেকে যথাযথভাবে দেখে তবেই অনুমোদন দিয়েছে।

Screenshot_3
আইপিও প্রসপেক্টাস

তিনি বলেন, কোম্পানি ৫ কোটি শেয়ার বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে বাজারে ছাড়তে পারবে। এর মধ্যে ৫০ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী পাবে অর্থাৎ ২ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার। মিউচ্যুয়াল ১০ এবং এআরবি ১০ শতাংশ অর্থাৎ ১ লাখ শেয়ার বরাদ্দ। বাকি দেড় লাখ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য এর মধ্যে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ২০ শতাংশ শেয়ার বরাদ্দ রয়েছে।

সুতরাং যারা প্রশ্ন তুলেছেন তারা বুক বিলডিং পদ্ধতি সম্পর্কে অজ্ঞাত। এখানে বরাদ্দ শেয়ার সম্পর্কে প্রশ্ন তোলার কোন অবকাশ নেই।

Screenshot_4
আইপিও প্রসপেক্টাস

কোম্পানির দর অতি মূল্যায়িত হয়েছে কী না -এমন প্রশ্নত্তোরে প্রশ্ন রেখে রফিক বলেন, কীভাবে সম্ভব, শতাধিক কোম্পানি কি প্রভাবিত হয়েছে? না কেউ প্রভাবিত করেছে? এসব প্রশ্ন যারা করেন…। দর অতি মূল্যায়িত নয়, বরং যথার্থ হয়েছে। acme (1) লোকে যদি এমন করে ভাবে, তবে ভালো কোম্পানি বাজারে আসবে কিভাবে -প্রশ্ন রাখেন রফিক!

এদিকে, একমি ল্যাবরেটরিজের আইপিও আবেদন ৩ এপ্রিল, রোববার থেকে শুরু হয়েছে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের আবেদনের টাকা জমা গ্রহণ করা হবে ১০ এপ্রিল পর্যন্ত।

আইপিও আবেদনের মাধ্যমে কোম্পানিটি ৪০৯ কোটি ৬০ লাখ টাকা উত্তোলন করে ৩টি নতুন প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং প্রাথমিক গণ প্রস্তাবে খরচ করবে।

প্রসপেক্টাস অনুযায়ী, কোম্পানিটির বিগত ৫ বছরের নিরীক্ষিত বিররণী অনুযায়ী শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪ টাকা ০৭ পয়সা। আর ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছর অনুযায়ী ইপিএস হয়েছে ৫ টাকা ৭০ পয়সা। কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য ৭০ টাকা ৩৭ পয়সা।

পেছনের খবর : একমির আইপিও আবেদন ৩ এপ্রিল থেকে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here