ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী হিসেবে আমাদের প্রধান দুর্বলতা হল তিনটি। কারণগুলো তুলো ধরা হল- ক. বাজারে প্রভাব বিস্তার করার মত বড় পুঁজির অভাব। খ. প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মত জোটবদ্ধ না হতে পারা এবং গ. অল্পতেই পেনিকড হয়ে পড়া।

ফলে শেয়ার বাজারে, কালে-ভদ্রে লাভের মুখ দেখলেও ক্ষতির ভাগীদার সব সময়ই আমরা। যারা এই কৃত্রিম পতনে বিপর্যস্থ হয়ে পড়ি। তাদের জন্য কিছু পূর্ব অভিজ্ঞতা সংক্ষেপে শেয়ার করছি। আশা করি এখান থেকে আপনারা ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার উপায় খুঁজে পাবেন।

সরাসরি না পারলে মধ্যবৃত্তরা মুনাফা করেন অন্যভাবে। তাদের লক্ষ্য তখন থাকে তখন অন্যদিকে। তাদের লক্ষ্য ক্যাপিটাল গেইন নয় বরং ভাল কোম্পানিগুলর দেয়া ক্যাশ/স্টক টার্গেট। খারাপ মার্কেটে যখন ক্যাপিটাল গেইন (লাভ) করা কষ্টসাধ্য তখন মুনাফার বিকল্প উপায় হল ডিভিডেন্ড।

ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য শিক্ষণীয়-

  • শেয়ার বাজার কখনই আপনার আয়ের প্রধান উৎস না। চাকরী-ব্যবসার পাশাপাশি ২য় আয়ের মাধ্যম হল পুঁজি বাজার।
  • আপনার ছোট ছোট সঞ্চয়গুল ধীরে ধীরে পূঁজি বাজারে বিনিয়োগ করুন। অনেকটা ব্যাংক ডিপিএস এর মত। ৩/৪ মাস পর পর নিয়মিত ভাবে ছোট ছোট এমাউন্ট বাজারে বিনিয়োগ করুন।
  • শুধুমাত্র নিজের পুঁজি বিনিয়োগ করুন। ঋণের টাকা কখনই শেয়ার বাজারে আনবেন না।
  • নিয়মিত ডিভিডেন্ড দেয়া ভাল কোম্পানিতে ধীর্ঘ সময় ধরে বিনিয়োগ করুন।
  • বাজার থেকে ক্যাপিটাল গেইন অর্জন সম্ভব না হলে ডিভিডেন্ড টার্গেট করুন। পতনশীল বাজারে ডিভিডেন্ডই আপনার মুনাফার প্রধান অবলম্বন।

1 COMMENT

Shayek Ahmed শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন Cancel reply

Please enter your comment!
Please enter your name here