৮টি কোম্পানির সরকারি শেয়ার উধাও!

0
6022

বিশেষ প্রতিনিধি : বেসরকারি বীমা কোম্পানি সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্সসহ আট কোম্পানিতে সরকারের ধারণ করা শেয়ারের হিসাবে গরমিল পাওয়া গেছে। এসব কোম্পানিতে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিনিয়োগ সংস্থা আইসিবির বিনিয়োগকে সরকারের বিনিয়োগ হিসেবে দেখাচ্ছে কোম্পানিগুলো। ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জকেও (ডিএসই ও সিএসই) এমন তথ্য দেওয়া হয়েছে।

স্টক এক্সচেঞ্জ দুটির ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এমন তথ্যে বিভ্রান্ত হচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা। এরআগে গত বছরের ডিসেম্বরে আইএফআইসি ব্যাংক এমন তথ্য প্রকাশ করেছিল। ব্যাংক উদ্যোক্তারা সরকারের সব শেয়ার রাতারাতি কিনে ব্যাংকের মোট শেয়ারের ৪১.২৩ শতাংশের মালিক হন। এমন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পরে কর্তৃপক্ষ রাইট শেয়ারের অনুমোদন পায়। (দেখুন সেই প্রতিবেদন)

তালিকাভুক্ত কোনো কোম্পানির সমুদয় শেয়ারে উদ্যোক্তা-পরিচালক, সরকারি, প্রাতিষ্ঠানিক, বিদেশি ও ব্যক্তি বিনিয়োগ কত, তা পৃথক পাঁচ ক্যাটাগরিতে নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রদর্শন করে স্টক এক্সচেঞ্জ দুটি। মাসভিত্তিক এ তথ্য প্রকাশ করা হয়।

আলহাজ্ব-টেক্সটাইলের চিত্র

গত মার্চ শেষে যেসব কোম্পানি আইসিবির শেয়ারকে সরকারের শেয়ার হিসেবে গণ্য করে তথ্য দিচ্ছে সেগুলো হলো- সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স, সোনারগাঁও টেক্সটাইল, আলহাজ টেক্সটাইল ও ঢাকা ডাইং। এ ছাড়া জীবন বীমা ও সাধারণ বীমার ধারণ করা শেয়ারকে সরকারের শেয়ার হিসাবে দেখাচ্ছে- ন্যাশনাল হাউজিং।

এর আগে গত ডিসেম্বরে ঢাকা ইন্স্যুরেন্সও আইসিবির ধারণ করা শেয়ারকে সরকারের শেয়ার হিসেবে তথ্য প্রকাশ করে। এ ছাড়া আইএফআইসি ব্যাংকও সরকারের শেয়ারকে উদ্যোক্তা-পরিচালক শেয়ার হিসেবে তথ্য দেয়।

ঢাকা ডাইংয়ের চিত্র

এ বিষয়ে আইসিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ইফতেখার-উজ-জামান জানান, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত প্রায় কোম্পানিতেই আইসিবির বিনিয়োগ রয়েছে। তাদের প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগকে সরকারের বিনিয়োগ হিসেবে দেখাতে হলে সব কোম্পানির ক্ষেত্রেই তা দেখাতে হবে। তিনি বলেন, এটা ভুল। এটি সংশোধনে স্টক এক্সচেঞ্জকেই উদ্যোগ নিতে হবে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জও এ গরমিলের বিষয়টি স্বীকার করেছে। শীর্ষ কর্মকর্তারা বলেন, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোনো কোম্পানির ধারণ করা শেয়ারকে সরকারের শেয়ার হিসাবে বিবেচনা করা হবে, আর কোনোটির ক্ষেত্রে করা হবে না; সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা নেই। এ কারণে একেক কোম্পানি একেকভাবে তথ্য উপস্থাপন করছে।

এমন তথ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বিভ্রান্ত হওয়ার সুযোগ আছে- স্বীকার করে ডিএসইর সংশ্লিষ্ট শীর্ষ এক কর্মকর্তা বলেন, তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলো যে তথ্য দেয়, সেটাই হুবহু ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে ডিএসই। জনবল সংকটের কারণে সব তথ্য পরীক্ষা করা সম্ভব হয় না।

ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাজেদুর রহমান বলেন, আইসিবির কেনা শেয়ার সরকারের শেয়ার হলে সোনালি, রূপালী, জনতা, অগ্রণী ব্যাংক বা বিডিবিএলের কেনা শেয়ারকেও সরকারের শেয়ার হিসেবে বিবেচনা করতে হবে। তালিকাভুক্ত কোম্পানিতে এসব সরকারি ব্যাংকের কয়েক হাজার কোটি টাকার শেয়ার রয়েছে। কোনো কোম্পানি ওই শেয়ারকে সরকারি শেয়ার হিসাবে দেখাচ্ছে কি-না, তাও পরীক্ষা করা প্রয়োজন। এ বিভ্রান্তি দূর করার উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

সর্বশেষ প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, ডিএসইতে তালিকাভুক্ত ২৯৬ কোম্পানির মধ্যে ৩৪টিতে সরকারের শেয়ার রয়েছে। যদিও এর মধ্যে ১৯টি সরকারের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত বা স্বাধীনতার পর সরকার অধিগ্রহণ করে মালিকানা লাভ করেছে।

এগুলো হলো- বিডি সার্ভিসেস, রূপালী ব্যাংক, পাওয়ার গ্রিড, তিতাস গ্যাস, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল, ডেসকো, যমুনা অয়েল, মেঘনা পেট্রোলিয়াম, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন, ঝিলবাংলা সুগার মিলস, এটলাস বাংলাদেশ, ন্যাশনাল টিউবস, ইস্টার্ন ক্যাবল, শ্যামপুর সুগার, রেনউইক যজ্ঞেশ্বর, উসমানিয়া গ্গ্নাস, ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টস, আইসিবি ও ন্যাশনাল টি। এগুলোই প্রকৃতপক্ষে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি।

এ ছাড়া স্বাধীনতার পর বেসরকারি উদ্যোগকে সহায়তা করতে মূলধন দিয়ে অনেক কোম্পানির শেয়ার নিয়েছে সরকার। এর মধ্যে তালিকাভুক্ত কোম্পানি হলো- আইএফআইসি, এবি, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক, ইউসিবিএল, আইপিডিসি, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো।

বাকি আট কোম্পানির যে শেয়ার সরকারের হিসাবে তথ্য দিচ্ছে, তার সাতটির সব শেয়ার কিনেছে বিনিয়োগ সংস্থা আইসিবি। বাকি একটির শেয়ার জীবন বীমা ও সাধারণ বীমার। ডিএসইর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, গত মার্চ শেষে সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্সের মোট শেয়ারে সরকারের অংশ ১০ দশমিক ৬৩ শতাংশ। গত ফেব্রুয়ারি শেষে যা ছিল ৬ দশমিক ৪৩ শতাংশ। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে কোম্পানিতে সরকারের অংশ ৪ দশমিক ২০ শতাংশ বেড়েছে।

এ ছাড়া ন্যাশনাল হাউজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সে সরকারের শেয়ার ৯ দশমিক ৩৩ শতাংশ দেখানো হচ্ছে। বস্ত্র খাতের কোম্পানি সোনারগাঁও টেক্সটাইল, আলহাজ টেক্সটাইল ও ঢাকা ডাইংও আইসিবির ধারণ করা শেয়ারকে সরকারের শেয়ার হিসাবে তথ্য দিয়েছে।

ন্যাশনাল হাউজিংয়ের কর্মকর্তারা জানান, প্রতিষ্ঠাকালেই উদ্যোক্তা হিসেবে জীবন বীমা ও সাধারণ বীমা কোম্পানি এ শেয়ার ধারণ করছে। কোম্পানি সচিব সারোয়ার কামাল বলেন, উভয় বীমা কোম্পানি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন হওয়ায় এ শেয়ারকে সরকারের শেয়ার হিসাবে দেখানো হয়েছে।

সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার বিভাগের কর্মকর্তা শফিকুর রশীদ জানান, বীমা কোম্পানিতে সরকারের শেয়ার হিসাবে দেখানো শেয়ার মূলত আইসিবির। প্রতিষ্ঠানটি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন হওয়ায় একে সরকারের অংশ হিসেবে দেখানো হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here