৭ টাকার শেয়ার ১৫০০ টাকা!

0
2020

ডেস্ক রিপোর্ট : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বাংলাদেশ (বিডি) সার্ভিস লিমিটেডের শেয়ার দর ১৭ হাজার শতাংশ বা তীর বেগে বাড়ে। বুধবার যে কোম্পানির শেয়ার দর ছিল ৭ দশমিক ৩০ টাকা। বৃহস্পতিবার দুপুর ১১টায় শেয়ারপ্রতি দর হয় ৬১০ টাকা।

 বিডি সার্ভিসের শেয়ার প্রতিদর এরপরেই সাড়ে ১১ টায় দর হয় ১হাজার ১ টাকা। এর ২ মিনিট পরেই দর বেড়ে হয়েছে ১ হাজার ৫০০ টাকা। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েব সাইটে এই চিত্র দেখা গেছে।

তবে শেয়ার দর ১৭ হাজার শতাংশ বাড়লেও বৃহস্পতিবার বিডি সার্ভিসেসের শেয়ার বিত্রেতা ছিল না। দেশের পুঁজিবাজারের ইতিহাসে ৭.৩ টাকা দরের শেয়ার ১৭ হাজার ২৩ শতাংশ বেশি দরে কিনতে চাওয়ার এটিই প্রথম ঘটনা।

BD Serviceজানা গেছে, বাংলাদেশ (বিডি) সার্ভিসেস লিমিটেড ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। বুধবার কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের সভায় ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হওয়া অর্থবছরের জন্য এ লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়।

অন্যদিকে, আগামী ১৪ জুলাই রেকর্ড ডেট ঘোষণা করা হয়েছে। এ ছাড়া ঘোষিত লভ্যাংশে বিনিয়োগকারীদের সম্মতি নিতে আগামী ২৫ আগস্ট সন্ধ্যা ৬টায় রূপসী বাংলা হোটেলে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আহ্বান করা হয়। শেষ হওয়া অর্থবছরে এ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ০.৩৩ টাকা, শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য ১৯.৫২ টাকা ও শেয়ারপ্রতি নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো হয়েছে ০.৮৪ টাকা।

রাষ্ট্রায়ত্ত এ কোম্পানিটির শতভাগের শেয়ারের মধ্যে ৯৯ দশমিক ৬৮ শতাংশ সরকারের। সাধারণ বিনিয়োগকারীর শুন্য দশমিক ২৩ শতাংশ বা ৬৬ হাজার ৫৪৮টি এবং অন্যদের কোন শেয়ার নেই। যে কারণে প্রতিষ্ঠানটির কোন শেয়ারের বিত্রেতা নেই। ফলে শেয়ার দর বেড়েছে তীর বেগে বলে অনেকে মনে করছেন।

বাজার বিশ্লেষণে জানা গেছে, বিডি সার্ভিসেসের শেয়ার লেনদেন হয় না বললেই চলে। ২০১২ সালের ২০ মার্চ শেয়ারটি ৯.৭০ টাকা থেকে বেড়ে ১০.৬০ টাকায় উন্নীত হয়। ওই দিন মোট ২ হাজার শেয়ার লেনদেন হয়।

এরপর থিওরিটিক্যাল অ্যাডজাস্টমেন্টে শেয়ারটি দর স্থির হয় ৮.৮ টাকায়। আর ২০১৩ সালের ১৩ এপ্রিল শেয়ারটি সর্বশেষ লেনদেন হয়। ওই দিন এর দর ৮.৮ টাকা থেকে ৭.৩ টাকায় নেমে যায় এবং ২০০টি শেয়ার লেনদেন হয়। এরপর ১ বছর দুই মাস ১৩ দিন ধরে শেয়ারটি আর লেনদেন হয়নি।

এদিকে বছর শেষে কোম্পানিটি আশানুরূপ মুনাফাও করতে পারেনি বিডি সার্ভিসেস। ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হওয়া অর্থবছরে এ কোম্পানির প্রতি শেয়ারে আয় হয়েছে ০.৩৩ টাকা।

উল্লেখ্য, ১৯৮৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটি ২০১৩ সালের নয় মাসে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) শেয়ার প্রতি আয় করেছে ৪৫ পয়সা। ২০১২ সমাপ্ত বছরে কোম্পানিটি শেয়াহোল্ডারদের জন্য ২০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছিল। একই বছরে শেয়ার প্রতি আয় করেছিল ৩ টাকা ৭৮ পয়সা।

বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানি হিসেবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন করছে। কোম্পানির বর্তমান মূল্য আয় অনুপাত রয়েছে ২ দশমিক ০২।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here