রাহেল আহমেদ শানু : পুঁজিবাজারের উন্নয়ন ও ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ সংরক্ষণে বরাদ্দ করা ‘২০ শতাংশ কোটার মেয়াদ চতুর্থ দফায় বাড়ানো হচ্ছে’। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) দেযা প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয় আমলে নেবে। বুধবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের বিশেষ একটি সূত্র এমন তথ্য নিশ্চিত করে।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) ২০ শতাংশ কোটার সময়সীমা চতুর্থ দফা বাড়াতে অর্থ মন্ত্রণালয়কে ২৮ মার্চ প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। প্রস্তাবনায় নতুন সময়সীমা ৩০ জুন ২০১৭ পর্যন্ত বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছে কমিশন।

ipo 2 (2)
ফাইল ছবি

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের যুগ্ম-সচিব নাসির উদ্দিন আহমেদের কাছে গত ২৮ মার্চ চিঠি পাঠানো হয়।

কমিশনের দেয়া চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের বৃহৎ স্বার্থে ও পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় সব প্রাথমিক গণপ্রস্তাব ইস্যুতে ২০ শতাংশ কোটা সংরক্ষণের সময়সীমা ১ জুলাই ২০১৬ থেকে বাড়িয়ে ৩০ জুন ২০১৭ পর্যন্ত করার অনুরোধ করা হলো।

ipo-2-(1)
ফাইল ছবি

বিএসইসি সূত্র জানায়, গত বছরের ৩০ নভেম্বর ৫৬০তম কমিশন সভায় গণপ্রস্তাব ইস্যুতে কোটা সংরক্ষণের সময়সীমা বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা হয়। সভায় সবার সম্মতিতে সময়সীমা বাড়ানোর জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়কে প্রস্তাব দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সিদ্ধান্তের আলোকে অর্থ মন্ত্রণালয়কে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব ইস্যুতে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য ২০ শতাংশ কোটা সংরক্ষণের সময়সীমা বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, পুঁজিবাজারের উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতার লক্ষে অনেক কর্মসূচি হাতে নিযেছে সরকার। এর মধ্যে ব্যাংকগুলোর বাড়তি বিনিয়োগ (ওভার এক্সপোজার) সমন্বয়ের সময় সীমা বৃদ্ধির একটি প্রস্তাব নিয়েও কথা চলছে।

পেছনের খবর : বাজার চাঙ্গায় আসছে ২৫০ কোটি টাকা, বাড়ছে বিনিয়োগ সীমা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here