৪টি ব্যাংকের হাজার কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন

0
1210

স্টাফ রিপোর্টার : পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি বুধবার ৪টি ব্যাংকের ১ হাজার কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন দিয়েছে। অনুমোদন প্রাপ্ত ব্যাংকগুলো হচ্ছে- ইস্টার্ন ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, যমুনা ব্যাংক ও প্রাইম ব্যাংক। বিএসইসির ৫৩০ তম কমিশন সভায় এই অনুমোদন দেয়া হয়।

ইস্টার্ন ব্যাংক : ইস্টার্ন ব্যাংকের ২৫০ কোটি টাকার বন্ডের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। এর মাধ্যমে ব্যাংকটি ২৫০ কোটি টাকার বন্ড ছাড়তে পারবে। যার মেয়াদ হবে ৭ বছর।

বিএসইসি জানায়, বন্ডটির বৈশিষ্ট্য হবে নন-কনভার্টেবল সাব-ওর্ডিনেটেড বন্ড, অনিরাপদ, তালিকাহীন, কুপন রেট ১১ দশমিক ৫০ শতাংশ হতে ১৪ দশমিক ৫০ শতাংশ হবে। বন্ডটি ৭ বছরে সম্পূর্ণ অবসায়ন হবে। স্থানীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বিমা কোম্পানি, মিউচ্যুয়াল ফান্ড, কর্পোরেট বডি, অন্যান্য বৈধ ব্যক্তিরাই প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে এই বন্ড কিনতে পারবেন।

এই বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ উত্তোলন করে ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড ব্যাসেল টু এর শর্ত পূরণ তথা মূলধন পর্যাপ্ততা অনুপাত সংরক্ষণ করবে। ইস্টার্ন ব্যাংক সাব-ওর্ডিনেটেড বন্ড প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্য হবে ১০ লাখ টাকা। এই বন্ডের ম্যান্টেড লিড অ্যারেঞ্জার এবং ট্রাস্টি হিসেবে কাজ করছেন স্ট্যান্ডার্ড চ্যাটার্ড ব্যাংক ও গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড।

ব্যাংক এশিয়া : ব্যাংক এশিয়ার ৩০০ কোটি টাকার বন্ডের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। এর মাধ্যমে ব্যাংকটি ৩০০ কোটি টাকার বন্ড ছাড়তে পারবে। যার মেয়াদ হবে ৭ বছর। বুধবার বিএসইসির ৫৩০ তম কমিশন সভায় এই প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়।

বিএসইসি জানায়, বন্ডটির বৈশিষ্ট্য হবে নন-কনভার্টেবল, সাব-ওর্ডিনেটেড বন্ড, অনিরাপদ, তালিকাহীন, কুপন রেট ১১ দশমিক ৫০ শতাংশ হতে ১৪ দশমিক ৫০ শতাংশ হবে। বন্ডটি ৭ বছরে সম্পূর্ণ অবসায়ন হবে। স্থানীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বিমা কোম্পানি, কর্পোরেট বডি, অন্যান্য বৈধ ব্যক্তিরাই প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে এই বন্ড কিনতে পারবেন।

এই বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ উত্তোলন করে ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড ব্যাসেল টু এর শর্ত পূরণ তথা মূলধন পর্যাপ্ততা অনুপাত সংরক্ষণ করবে। ব্যাংক এশিয়ার সাব-ওর্ডিনেটেড বন্ড প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্য হবে এক লাখ টাকা। এই বন্ডের ম্যান্টেড লিড অ্যারেঞ্জার এবং ট্রাস্টি হিসেবে কাজ করছেন স্ট্যান্ডার্ড চ্যাটার্ড ব্যাংক ও গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড।

যমুনা ব্যাংক : যমুনা ব্যাংকের ২০০ কোটি টাকার নন-কনভার্টেবল সাব-অর্ডিনেটেড বন্ডের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা(বিএসইসি)। এর মাধ্যমে ব্যাংকটি ২০০ কোটি টাকার বন্ড ছাড়তে পারবে। যার মেয়াদ হবে ৭ বছর। বুধবার বিএসইসির ৫৩০ তম কমিশন সভায় এই প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়।

বিএসইসি জানায়, বন্ডটি ৭ বছরে সম্পূর্ণ অবসায়ন হবে। স্থানীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বিমা কোম্পানি, কর্পোরেট বডি, উচ্চ সম্পদধারী ব্যক্তিরাই প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে এই বন্ড কিনতে পারবেন। এই বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ উত্তোলন করে যমুনা ব্যাংক লিমিটেড ব্যাসেল টু এর শর্ত পূরণ তথা মূলধন পর্যাপ্ততা অনুপাত সংরক্ষণ করবে। যমুনা ব্যাংক সাব-অর্ডিনেটেড বন্ড প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্য হবে এক কোটি টাকা।

এই বন্ডের ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাডভাইসর এবং লিড অ্যারেঞ্জার এবং ট্রাস্টি হিসেবে কাজ করছেন ইউএসএফ (ইউনিভার্সাল ফিন্যান্সিয়্যাল সলিইউশন লিমিটেড ও আইডিএলসি ফিন্যান্স লিমিটেড।

প্রাইম ব্যাংক : প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের ২৫০ কোটি টাকার নন-কনভার্টেবল সাব-অর্ডিনেটেড বন্ড ছাড়ার অনুমোদন দিয়েছে বিএসইসি। বুধবার কমিশনের ৫৩০তম সভায় এ বন্ড ইস্যুর অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন।

জানা যায়, বন্ডটি সম্পূর্ণ অবসানযুক্ত। সাত বছর পরে বন্ডটির বিলুপ্ত ঘটবে। সাড়ে ১১ শতাংশ থেকে ১৪ শতাংশ হারে সুদ দেবে বন্ডটি। শুধুমাত্র স্থানীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বিমা কোম্পানি, মিউচ্যুয়াল ফান্ড, কর্পোরেট বডি ও বৈধ বিনিয়োগকারীরা প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে বন্ডটি ক্রয় করতে পারবে।

উল্লেখ্য, এই বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে টাকা সংগ্রহ করে প্রাইম ব্যাংক ব্যাসেল টু এর শর্ত পূরণ, টায়ার টু মূলধন বৃদ্ধি কাজে ব্যয় করবে।

প্রাইম ব্যাংকের সাব-অর্ডিনেটেড বন্ডের প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্যে হবে ১০ লাখ টাকা। এই বন্ডটির ট্রাস্টি হিসেবে কাজ করবে স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক ও গ্রীণ ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here