২৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন স্কিম চূড়ান্ত

0
335

dse- Logoস্টাফ রিপোর্টার :  আগামী ২৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ডিএসই ও সিএসইর ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন স্কিম চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ব্যবস্থাপনা ও মালিকানা পৃথক করার জন্য (ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন) দাখিলকৃত স্কিম চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়ার আগে দুই স্টক এক্সচেঞ্জকে শুনানিতে তলব করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জকে (সিএসই) আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর ও  ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই) ২৫ সেপ্টেম্বর শুনানিতে তলব করা হয়েছে।

স্কিম চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়ার জন্য ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন পরবর্তী ডিএসই ও সিএসইর বোর্ডের সদস্য সংখ্যা ১৩ জন করার জন্য মতামত দিয়েছে বিএসইসি। ১৩ সদস্যের মধ্যে স্বতন্ত্র পরিচালক থাকবেন ৭ জন। এর মধ্যে শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে থাকবেন ৪ জন, ডিএসইর সিইও এবং একজন স্ট্র্যাটেজিক ইনভেস্টরও উপস্থিত থাকবেন।

তবে দাখিলকৃত স্কিমের ওপর পূর্ণাঙ্গ মতামত না পাওয়ায় উদ্বিগ্ উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ। এসব প্রক্রিয়া শেষ হলেই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে চূড়ান্ত অনুমোদন পাবে ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন স্কিম।

গত ১২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় স্কিমের ওপর লিখিত মতামত দেয় বিএসইসি। ওই মতামতের পরিপ্রেক্ষিতে ডিএসই ও সিএসইর জবাব জানতে শুনানিতে ডাকা হয়েছে। শুনানির বিষয়টি উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ বাংলামেইলকে নিশ্চিত করেছে।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিএসইর একজন পরিচালক বলেন, আমরা গত বৃহস্পতিবার স্কিম সম্পর্কিত বিএসইসির মতামত হাতে পেয়েছি। তবে তা পূর্ণাঙ্গ নয়। দাখিলকৃত স্কিমের ওপর পূর্ণাঙ্গ মতামত না পাওয়ায় নির্ধারিত শুনানিতে আমরা কী অভিমত ব্যক্ত করব তা এখন ভাবনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সম্ভব হলে এ শুনানির দিন পরিবর্তনের সুপারিশ করা হতে পারে।

এদিকে ডিএসইর পরিচালনা পর্ষদের এক সদস্য জানান, ‘বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্কিমের বিষয়ে বিএসইসির মতামত পাওয়া গেছে। ওই মতামতের সঙ্গে শুনানির তারিখ উল্লেখ করেছে বিএসইসি। এছাড়া ডিএসইর সম্পদ ও নিকুঞ্জ ভবনের বিষয়ে বিএসইসি মতামত দিয়েছে। ওই মতামতের ওপর শুনানির দিনেই আমরা অভিমত ব্যক্ত করব।’

এছাড়া ডিএসইর বর্তমান সদস্যদের নিকুঞ্জ ভবনের জায়গা (ফ্লোর) স্থায়ীভাবে বরাদ্দ না দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে ভাড়া বা লিজ দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। এ বিষয়ে বিএসইসির একজন কমিশনার বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার দুই স্টক এক্সচেঞ্জের সঙ্গে ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন স্কিম অনুমোদনের বিষয়ে বৈঠক হয়েছে। আমরা দুই স্টক এক্সচেঞ্জকে বলেছি, দাখিলকৃত স্কিমের ওপর আমাদের মতামত দেব। ওই মতামতের ওপর স্টক এক্সচেঞ্জের অভিমত জানতে শুনানিতে তলব করা হবে। আগামী ২৩ থেকে ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দুই স্টক এক্সচেঞ্জকে ডাকা হবে।

স্কিম অনুমোদনের পর আগামী ২৯ অক্টোবরের মধ্যে বিশেষ সাধারণ সভা (ইজিএম) করতে হবে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জকে। এ সভার পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে স্টক এক্সচেঞ্জকে পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিতে রূপান্তর হতে হবে। আর পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন সম্পন্ন করে নতুন পরিচালনা পর্ষদ গঠন করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here