২২ মন্ত্রী-এমপির ২৯টি কোম্পানির শেয়ার দর পড়ছে

0
2045

সিনিয়র রিপোর্টার : মুনাফা হচ্ছে কিংবা অদূর ভবিষতে হবে এমন কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য না থাকলেও একাদশ জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সরকারের নিরষ্কুশ জয়ের খবরে ‘হুজুগে’ দাম বাড়ে ২২ মন্ত্রী-এমপির ২৯ কোম্পানির শেয়ারের। এসব কোম্পানির শেয়ারের দাম এখন লাফিয়ে লাফিয়ে কমছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসইর) তথ্যমতে, এসব কোম্পানির শেয়ারের দাম সর্বনিম্ন চার টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৮৩ টাকা পর্যন্ত বাড়ে। অথচ এসব কোম্পানির শেয়ারের দাম কেন বাড়লো তার কারণ জানেন না মন্ত্রী-এমপিরা। অপরদিকে গুজব ছড়িয়ে কারসাজি চক্র হাজার হাজার কোটি টাকা মুনাফা তুলে নিয়েছে।

ডিএসইর তথ্য মতে, নির্বাচন জয়ের পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের মালিকানাধীন সাভার রিফ্যাক্টরিজের শেয়ারদর ৯৬ টাকা থেকে ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত বেড়ে দাঁড়ায় ১৭৯ দশমিক ১০ টাকায়। অর্থাৎ শেয়ারটির দাম বাড়ে ৮৩ টাকা।

এরপর থেকে শেয়ারটির দাম কমতে থাকে। গত বৃহস্পতিবার ৭৯ দশমিক ৮০ টাকায় লেনদেন হয়েছে। অর্থাৎ নির্বাচন ইস্যুতে ৮৩ টাকা দাম বাড়া কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে ১০০ টাকা।

ঢাকা-১ আসনের সংসদ সদস্য সালমান এফ রহমানের কোম্পানি বেক্সিমকো সিনথেটিকসের শেয়ারের দর তিন টাকা বেড়ে ৬ জানুয়ারি ১০ টাকায় দাঁড়ায়। আর সেই শেয়ারটি সর্বশেষ ৭ মার্চ (বৃহস্পতিবার) ৬ দশমিক ৩০ টাকায় লেনদেন হয়েছে।

একইভাবে সালমান এফ রহমানের শাইনপুকুর সিরামিকের শেয়ার ১২ টাকা থেকে বেড়ে ১৭ টাকায় লেনদেন হয়। সেই কোম্পানির শেয়ার বৃহস্পতিবার ১৩ দশমিক ৯০ টাকায় লেনদেন হয়েছে।

এই গ্রুপটির অপর কোম্পানি বেক্সিমকো ফার্মার এমডি নাজমুল হাসান পাপন কিশোরগঞ্জ-৬ আসনে সংসদ সদস্যনির্বাচিত হওয়ার পর কোম্পানিটির শেয়ার ৭৪ টাকা বেড়ে ৯২ দশমিক ৪০ টাকা পর্যন্ত লেনদেন হয় গত ২৬ ফেব্রুয়ারি। তারপর থেকে শেয়ারটির দাম কমে বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ৮৭ দশমিক ১০ টাকায়।

পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলামের পরিচালিত যমুনা ব্যাংকের শেয়ার ১৭ টাকা থেকে বেড়ে ২১ টাকায় দাঁড়ায় ২৪ ডিসেম্বর। তারপর থেকে কমে ১৯ দশমিক ৬০ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

সংসদ সদস্য ফারুক খানের মালিকানাধীন সামিট পাওয়ারের শেয়ার ৩৮ টাকা থেকে বেড়ে ৪৪ দশমিক ৫০ টাকায় লেনদেন হয় ১৩ জানুয়ারি। সর্বশেষ লেনদেন হয়েছে ৪২ টাকায়।

সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরীর আর্থিক প্রতিষ্ঠান জিএসপি ফাইন্যান্সের শেয়ারের দর ২০ টাকা থেকে ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত বেড়ে দাঁড়ায় ২৬ টাকায়। বৃহস্পতিবার ২০ দশমিক ৬০ টাকায় শেয়ারটি লেনদেন হয়েছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সাবেক সভাপতি ও টাঙ্গাইল-৬ আসনের সংসদ সদস্য আহসানুল ইসলাম টিটুর সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার ২৫ টাকা থেকে বেড়ে ২১ জানুয়ারি লেনদনে হয়েছে ৩৫ টাকায়। তারপর থেকে কমে বৃহস্পতিবার ২৬ দশমিক ৩০ টাকায় লেনদেন হয়।

ঝিনাইদহের সংসদ সদস্য তাহজীব আলম সিদ্দিকীর ডরিন পাওয়ারের শেয়ার ৭৯ টাকা থেকে বেড়ে ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১০৬ টাকায় দাঁড়িয়েছে। তারপর থেকে কমে ৮৭ দশমিক ২০ টাকায়।

যশোরের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদের জেমিনি সি ফুডের শেয়ারদর ৩১৬ টাকা থেকে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত বেড়ে ৩৯৭ টাকায় লেনদেন হয়। তারপর থেকে কমে ৭ মার্চ লেনদেন হয়েছে ৩২৯ টাকায়।

সংসদ সদস্য আবদুস সালাম মুর্শেদীর এনভয় টেক্সটাইলের শেয়ার ১৭ টাকা থেকে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত বেড়ে ৩৮ টাকায় দাঁড়ায়। বৃহস্পতিবার সেই শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৭ টাকায়।

ঝালকাঠি-১ আসনের সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুন (এইচ বি হারুন) প্রিমিয়ার ব্যাংকের পরিচালক। ব্যাংকটির শেয়ার ১১ টাকা থেকে বেড়ে ১৭ টাকা ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত। তারপর থেকে কমে ১৫ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুলের বীকন ফার্মার শেয়ার ১৬ টাকা থেকে বেড়ে ২০টাকায় লেনদেন হয়েছে ১৩ জানুয়ারি। তারপর থেকে কমে ১৮ টাকার ৯০ পয়সায় দাঁড়িয়েছে।

নোয়াখালীর সংসদ সদস্য মোরশেদ আলমের শেয়ার রয়েছে বেঙ্গল উইন্ডসোর থার্মোপ্লাস্টিকস, মার্কেন্টাইল ব্যাংক ও ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সে। এর মধ্যে বেঙ্গল উইন্ডসোরের শেয়ার ২৪ টাকা থেকে বেড়ে ১০ জানুয়ারি দাঁড়িয়েছে ৩৫ টাকা। তারপর থেকে কমে ২৭ দশমিক ৯০ পয়সায় দাঁড়িয়েছে।

ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ারের ১৮৯ টাকা থেকে বেড়ে ২২২ টাকা । তারপর থেকে কমে আবার ১৭৯ দশমিক ৮০ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

চট্টগ্রামের সংসদ সদস্য মোশাররফ হোসেনের প্রতিষ্ঠান পেনিনসুলারের শেয়ার ২৬ টাকা থেকে বেড়ে ৬ জানুয়ারি ৩০ টাকা ১০ পয়সা হয়েছে। এখন কমে ২৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদের শাশা ডেনিমসের শেয়ার ৫৮ টাকা থেকে বেড়ে ৮ জানুয়ারি দাঁড়ায় ৬৫ টাকায়। তারপর থেকে কমে ৪৭ দশমিক ৭০ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

জাসদের সংসদ সদস্য মঈনউদ্দীন খান বাদলের সিভিও পেট্রোকেমিক্যালসের শেয়ার ১৫৩ টাকা ১৩ জানুয়ারি ২৩৮ দশমিক ৫ টাকায় বেড়ে দাঁড়ায়। ১৭৮ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরীর তিন কোম্পানির মধ্যে আরামিটের শেয়ারদর ৩৯৬ টাকা ৮০ পয়সা থেকে বেড়ে ১৫ জানুয়ারি ৪৫১ টাকা হয়েছে। তাপর থেকে কমে ৩৭৭ দশমিক ৫০ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

একইভাবে আরামিট সিমেন্টের শেয়ার ১৮ টাকা থেকে বেড়ে ২৭ জানুয়ারি ২৭ টাকা লেনদেন হয়েছে। তারপর থেকে কমে ২৩ টাকা লেনদেন হয়। অপর কোম্পানি ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের শেয়ার ১৭ টাকা থেকে বেড়ে ২৩ জানুয়ারি ২০ টাকায় লেনদেন হয়। এখন শেয়ারটির দাম ১৮ টাকায়।

সংসদ সদস্য মেজর (অব.) আবদুল মান্নানের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিআইএফসির শেয়ার ৫ টাকা ৩০ পয়সা থেকে বেড়ে ৭ টাকায় লেনদেন হয়। তারপর আবার এখন ৫ টাকা ৮০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে।

সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের ফু-ওয়াং ফুডের শেয়ারের ১৫ টাকা থেকে বেড়ে ১০ জানুয়ারি ১৮ টাকায় লেনদেন হয়েছে। এখন কমে ১৬ টাকা ৪০ পয়সায় দাঁড়িয়েছে।

সংসদ সদস্য মনজুর হোসেন রূপালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান। তার ব্যাংকের শেয়ারের দাম ৩৫ টাকা ৪৫ টাকায় পৌঁছে। সর্বশেষ লেনদনে হয়েছে ৪৩ দশমকি ৯০ টাকায়।

আর এক্সিম ব্যাংকের পরিচালক আবদুল মান্নান লক্ষ্মীপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য। এ ব্যাংকের শেয়ার ১০ টাকা থেকে বেড়ে ১৪ টাকা হয় ২৩ জানুয়ারি। এখন লেনদেন হচ্ছে ১১ দশমিক ৮০ টাকায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here