৩ কোটির দায় নিয়ে আইপিওতে এমএল ডাইং

0
3468

সিনিয়র রিপোর্টার : এমএল ডায়িং লিমিটেড ফার গ্রুপের একটি কোম্পানি। গ্রুপের ৮টি কোম্পানির মধ্যে দুটি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এবং তৃতীয় কোম্পানি হিসেবে এমএল ডাইং লিমিটেড প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) অনুমোদন পেয়েছে।

এমএল ডায়িং লিমিটেড ৩ কোটি টাকা ঋণের দায় মাথায় নিয়ে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে মাত্র ২০ কোটি টাকা উত্তোলন করতে যাচ্ছে। নানা কারণে বিতর্কিত দেশের উভয় পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আরএন স্পিনিং মিলস এবং ফার ক্যামিকেলস লিমিটেডের পথে আশঙ্কা নিয়েই অন্তর্ভূক্ত হচ্ছে গ্রুপের তৃতীয় কোম্পানি।

এমএল ডাইং লিমিটেড পুঁজিবাজার থেকে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি সাধারণ শেয়ার ছেড়ে ২০ কোটি টাকা উত্তোলন করার অনুমোদন পেয়েছে। আগামী ৮ জুলাই, রোববার শুরু হবে কোম্পানির আইপিও আবেদন এবং চলবে ১৯ জুলাই পর্যন্ত।

এমএল ডাইং কোম্পানির প্রসপেক্টাসের ৭৪ নম্বর পৃষ্টার চিত্র

কোম্পানির প্রসপেক্টাসে ৭৪ নম্বর পৃষ্ঠায় দেখা গেছে, ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের কাছ থেকে কোম্পানি ২০১৬ সালের ২৩ অক্টোবর মুরাবাহা ঋণ নেয় ৬৫ কোটি টাকা। ২০১৭ সালের ২২ অক্টোবর ঋণ পরিশোধের সময় থাকলেও ঋণ বাকি রয়েছে ৩ কোটি ১১ লাখ ৭৯ হাজার ৬৮০ টাকা।

একইসঙ্গে সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের (এসআইবেএল) কাছে দীর্ঘ মেয়াদে ২০১২ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ঋণ ৫৬ কোটি টাকা গ্রহণ করে এবং সুদসহ টাকা ২০১৬ সালে ১ ডিসেম্বর ফেরতের কথা প্রসপেক্টাসে তুলে ধরা হলেও সেখানে (….) শুন্য স্থান। তবে টাকা পরিশোধ করা হয়েছে বলে ভিন্ন সূত্র জানায়।

প্রসপেক্টাসে ঋণের চিত্রে আরো দেখা গেছে, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের কাছে স্বল্প মেয়াদে ২০১৫ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি কোম্পানি ৯৫ কোটি টাকা ঋণ গ্রহণ করে। ২০১৬ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি নির্ধারিত সময়ে টাকা পরিশোধ করা হয়েছে বলে সূত্র জানায়।

একই সঙ্গে এমএল ডায়িং লিমিটেডের ২১৭.৫০ ডেসিমিল ভূমি বন্ধক রাখা হয়েছে।

প্রসপেক্টাস থেকে নেয়া, আয়-ব্যয়ের চিত্র

উত্তোলিত ২০ কোটি টাকা দিয়ে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ যন্ত্রপাতি ক্রয় এবং কারখানা সম্প্রসারেণের পাশাপাশি আইপিওতে খরচ করবে। কারখানা সম্প্রসারেণের কথা বলা হলেও নানান সন্দেহ তৈরি হচ্ছে।

তবে প্রাথমিকভাবে ধারণা, কোম্পানির আগামী শুভ নয়। গ্রুপের অন্য কোম্পানিগুলোর পথে চলার আভাস মিলেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here